বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ ১৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কোয়ার্টার ফাইনালে বাংলাদেশ টাইগাররা

এবারের অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে গেছে বাংলাদেশ টাইগাররা। নিউজিল্যান্ড, ভারত ও অস্ট্রেলিয়ার পর ৪র্থ দল হিসেবে নিজেদের শেষ ৮ এ খেলা নিশ্চিত করলো মাশরাফি বিন মর্তুজার দল। ক্রিকেটের জনক হিসেবে খ্যাত প্রবল পরাক্রমশালী ইংল্যান্ডকে ১৫ রানে হারিয়ে অনেক বড় এক অসম্ভবকে সম্ভব করলে মাহমুদুল্লাাহ রিয়াদ, মুশফিকুর রহীম তাসকিন আহমেদরা। অবশ্য ইংল্যান্ড ইনিংসের শুরুতেই ছিল আতঙ্ক। খেলার মাঝে বেশ মুন্সিয়ানা; আর শেষদিকের ফিল্ডং ব্যর্থতা সত্ত্বেও পুরো ম্যাচের দৃঢ়তায় লক্ষ্যে পৌঁছে গেছে বাংলাদেশ। এর আগে টস হারা বাংলাদেশের দেয়া ২৭৬ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে অনেকটাই ধুকছিল ইংল্যান্ড। যার ফলে ৪৮.৩ ওভারে ২৬০ রানে অল আউট হয়ে গেছে ইংল্যান্ড।
রোমাঞ্চকর এ ম্যাচে ইংলিশদের হারিয়ে ১মবারের মত বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে খেলার যোগ্যতা অর্জন করলো বাংলাদেশ। আজ অস্ট্রেলিয়ার এডিলেড ওভাল স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচে ইংল্যান্ডকে ১৫ রানে হারিয়ে বি গ্রুপ থেকে শেষ ৮ এ জায়াগা করে নিয়েছে বাংলাদেশ। এ জয়ের ফলে ৫ ম্যাচ থেকে ৭ পয়েন্ট অর্জন করেছে মাশরাফিরা। পক্ষান্তরে সমান ম্যাচ থেকে ইংলিশদের সংগ্রহ মাত্র ২ পয়েন্ট। টুর্ণামেন্টে টিকে থাকার মিশন নিয়ে আজ সোমবার বাংলাদেশের মুখোমুখি হয়েছিল ইংল্যান্ড। আর বাংরাদেশের সামনে ছিল এক ম্যাচ হাতে রেখে শেষ কোয়ার্টার ফাইনালের টিকিট লাভ করা। এ যাত্রায় সফল হয়েছে টাইগাররাই।
টস হেরে ১মে ব্যাটিং পাওয়া বাংলাদেশ ম্যাচ সেরা মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের সেঞ্চুরিতে ভর করে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ২৭৫ রান সংগ্রহ করে। রিয়াদ ১০৩ ও মুশফিকুর রহিম ৮৯ রান সংগ্রহ করেন। ইংল্যান্ডের হয়ে দুটি করে উইকেট নেন জেমস এন্ডারসন ও ক্রিস জর্ডান। জবাবে ইয়ান বেল ও জস বাটলারের জোড়া হাফ সেঞ্চুরিতে ভর করে টাইগারদের ছুড়ে দেয়া লক্ষ্যের দ্বারপ্রান্তে এসেই থেমে যায় ইংলিশ ইনিংস। ৪৮.৩ ওভারে ২৬০ রান তুরতেই সবকটি উইকেট হারায় তারা। বেল ৬৩ ও বাটলার ৬৫ রান সংগ্রহ করেন। ক্রিস ওয়াকস সংগ্রহ করেন অপরাজিত ৪২ রান। বাংলাদেশ দলের হয়ে রুবেল হোসেন সংগ্রহ করেন ৪ উইকেট। এছাড়া মাশরাফি ও তাসকিন আহমেদ নেন দুটি করে উইকেট।
ইনিংসের আগে টস জিতে টাইগারদের ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানান ইংলিশ অধিনায়ক ইয়োইন মরগান। আগে ব্যাটিং পাওয়া টাইগারদের হয়ে ব্যাটিং উদ্বোধন করতে মাঠে আসেন বাঁহাতি ওপেনার তামিম ইকবাল এবং এনামুল হক বিজয়ের বদলি হিসেবে যোগ দেয়া ইমরুল কায়েস। তবে জেমস এন্ডারসনের করা ইনিংসের প্রথম ওভারের চতুর্থ বলে উইকেটের পিছনে তৃতীয় স্লিপে দাঁড়ানো ক্রিস জর্ডানের হাতে ক্যাচ তুলে দেন ইমরুল কায়েস। আউট হওয়ার আগে মাত্র ২ রান করেন তিনি। আরেক ওপেনার তামিম ইকবালও দ্রুতই বিদায় নেন। এক বার জীবন ফিরে পেয়েও সে সুযোগ কাজে লাগাতে ব্যর্থ হন আগের ম্যাচের সর্বোচ্চ ৯৫ রান করা তামিম। জেমস এন্ডারসনের করা ৩য় ওভারের ১ম বলে ২য় স্লিপে দাঁড়ানো জো রুটের তালুবন্দী হন মাত্র ২ রান করা তামিম।
দলীয় ৮ রানের মাথায় ২ ওপেনারকে হারিয়ে সাময়িক বিপর্যয়ে পড়ে বাংলাদেশ। তবে এ বিপর্যয় কাটিয়ে তোলার চেষ্টা করেন রিয়াদ-সৌম্য জুটি। এ জুটি আরও ৮৬ রান সংগ্রহ করেন। খেলার ২১তম ওভারে জর্ডানের বলে উইকেটের পিছনে জস বাটলারের তালুবন্দী হন সৌম্য সরকার। আউট হওয়ার আগে তিনি ৫২ বলে ৫টি চার আর একটি ছয়ে করেন ৪০ রান। পরের ওভারে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানকে ফেরান মঈন আলী। মঈনের ঘূর্ণিতে জো রুটের তালুবন্দি হন ২ রান করা সাকিব। পরে মাত্র ২ রান করে নিয়ে ৩ শীর্ষ ব্যাটসম্যানের আউট হবার পরও অনন্য এক দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে সক্ষম হয় টাইগার বাহিনী।
দলীয় ৯৯ রানের মাথায় সাকিবের বিদায়ের পর মুশফিককে সঙ্গে নিয়ে জুটি গড়েন মাহামুদুল্লাহ রিয়াদ। এ দু’জন মিলে গড়েন ১৪১ রানের জুটি। বিশ্বকাপে এটি বাংলাদেশের সর্বোচ্চ জুটি। রিয়াদ ১৩৮ বলে ১০৩ রান করে রান আউট হয়ে সাজ ঘরে ফিরেন। তার আগে ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ১ম শতক পুর্ণ করেন সাম্প্রতিক সময়ে দারুণ ফর্মে থাকা ডানহাতি ব্যাটসম্যান রিয়াদ। তিনি বাংলাদেশের হয়ে বিশ্বকাপের ইতিহাসেও ১ম সেঞ্চুরিয়ান হিসেবে নাম লেখালেন। রিয়াদের ইনিংসে ছিল ৭টি ৪ আর দুটি ছক্কার মার। ইনিংসের ৪৮তম ওভারে ব্রডের বলে জর্ডানের হাতে ক্যাচ তুলে দেয়ার আগে মুশফিক খেলেন ৮৯ রানের ঝকমলে একটি ইনিংস। তার খেলা ৭৭ বলের ইনিংসটিতে ছিল ৮টি ৪ আর একটি ছক্কা। আর শেষ দিকে ব্যাটিংয়ে নেমে সাব্বির রহমান বাংলাদেশ ইনিংসে যোগ করেন ১৪ রান।
জবাবে কিছুটা সাবধান হয়েই ইনিংস শুরু করেন ইংলিশ দলের ২ ওপেনিং ব্যাটসম্যান মঈন আলী ও ইয়ান বেল। এ সময় রিভিউ নিয়ে মাশরাফির বলে আম্পায়ারের দেয়া আউট থেকেও রেহাই পান মঈন আলী। ১ম দফায় জীবন ফিরে পেলেও ২য় দফায় আর পার পাননি পাকিস্তানী বংশোদ্ভোত এ ইংলিশ ওপেনার। সৌম্য-মুশফিকের যৌথ প্রযোজনায় রান আউট হয়ে ক্রিস ছাড়লে ১ম সফলতা আসে টাইগার শিবিরে। বিদায় হবার আগে ২১ বলে ১৯ রান করেন তিনি।
এরপর দীর্ঘ সময় ধরে উইকেট না পাওয়ার হতাশার মধ্যেই কাটিয়েছে সাকিব-মুশফিকরা। এক পর্যায়ে এসে ২য়বারের মত বল নিজ হাতে তুলে নেন মাশরাফি। ওই স্পেলের ১ম ওভারেই সফলতা পেয়ে যান টাইগার অধিনায়ক। ফিরিয়ে দেন এলেক্স হেলসকে। উইকেট রক্ষক মুশফিকুর রহিমের তালুবন্দী হয়ে বিদায় নেয়ার আগে তিনি সংগ্রহ করেন ২৭ রান। ৯৭ রানে ২য় উইকেট হারানোর পর আরো সাবধান হয় ইংলিশ ব্যাটসম্যানরা। তবে এতে কোন কাজ হয়নি।
ফের রুবেল এসে প্যাভিালয়নে ফিরিয়ে দেন হাফ সেঞ্চুরিসহ ৬৩ রান করা অপর ওপেনার বেলকে। একই ওভারে মরগানকে পিফরয়ে দিয়ে রুবেল দারুনভাবে লড়াইয়ে ফেরায় টাইগারদের। এরপর নিয়মিত উইকেট পতনে বাংলাদেশ যখন সুবিধাজনক অবস্থানে চলে এসেছে তারা গড়ে তুলেন ৭৫ রানের এক অনবদ্য জুটি। তাসকিন এসে ৬৫ রান সংগ্রহকারী বাটলারকের ফিরিয়ে দেয়ার পর কিছুটা স্বস্তি ফিরে আসে টাইগার শিবিরে।
তার পর ওয়াকস এক প্রান্ত আগলে রেখে চোখ রাঙ্গাচ্ছিলেন বারবার। এসময় পেন্ডুলামের মত দোল খাচ্ছিল ম্যাচের ভবিষ্যৎ। শেষ পর্যন্ত নিজের শেষ ওভারটি করতে এসে রুবেল হোসেন এক ওভারেই ইংলিশ দলের ২ ব্যাটসম্যান ৯ রানে ব্রড ও কোন রান করার আগেই এন্ডারসনকে সরাসরি বোল্ড আউট করে ফিরিয়ে দিয়ে দলীয় জয় নিশ্চিত করেন। ওয়াকস অবশ্য শেষ পর্যন্ত অপরাজিত ছিলেন ৪২ রানে। আর ৯.৩ ওভার বল করে ৫৩ রানে দলে পক্ষে সর্বাধিক ৪ উইকেট সংগ্রহ করেন রুবেল। মাশরাফি ও তাসকিন নেন ২টি করে উইকেট। অবশ্য ম্যান অব দ্যা ম্যাচ হয়েছেন বাংলাদেশের মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ।

স্কোর বোর্ড : বাংলাদেশ
তামিম ইকবাল ক রুট ব এন্ডারসন ২
ইমরুল কায়েস ক জর্ডান ব এন্ডারসন ২
সৌম্য সরকার ক বাটলার ব জর্ডান ৪০
মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ রান আউট (ওয়াকস) ১০৩
সাকিব আল হাসান ক রুট ব মঈন ২
মুশফিকুর রহিম ক জর্ডান ব ব্রড ৮৯
সাব্বির রহমান ক মরাগন ব জর্ডান ১৪
মাশরাফি বিন মতুর্জা অপরাজিত ৬
আরাফাত সানি অপরাজিত ৩
অতিরিক্ত (বা-১, লে বা-৪, ও-৮, নো-১) ১৪
মোট (৭ উইকেট, ৫০ ওভার) ২৭৫

উইকেট পতন

১/৩ (ইমরুল), ২/৮ (তামিম), ৩/৯৪ (সৌম্য), ৪/৯৯ (সাকিব), ৫/২৪০ (মাহমুদুল্লাহ), ৬/২৬১ (মুশফিকুর), ৭/২৬৫ (সাব্বির)।
বোলিং : এন্ডারসন ১০-১-৪৫-২, ব্রড ১০-০-৫২-১, জর্ডান ১০-০-৫৯-২ (ও-৫), ওয়াকস ১০-০-৬৪-০ (নো-১, ও-২), মঈন ৯-০-৪৪-১ (ও-১), রুট ১-০-৬-০।

ইংল্যান্ড
মঈন আলি রান আউট (সৌম্য/মুশফিকুর) ১৯
ইয়ান বেল ক মুশফিকুর ব রুবেল ৬৩
এ্যালেক্স হেলস ক মুশফিকুর ব মাশরাফি ২৭
জো রুট ক মুশফিকুর ব মাশরাফি ২৯
ইয়োইন মরগান ক সাকিব ব রুবেল ০
জেমস টেইলর ক মুশফিকুর ব তাসকিন ১
জস বাটলার ক মুশফিকুর ব তাসকিন ৬৫
ক্রিস ওয়াকস নট আউট ৪২
ক্রিস জর্ডান রান আউট (সাকিব) ০
স্টুয়ার্ট ব্রড ব রুবেল ৯
জেমস এন্ডারসন ব রুবেল ০
অতিরিক্ত (লে বা-৪, নো-১) ৫
মোট (অলআউট, ৪৮.৩ ওভার) ২৬০

উইকেট পতন
১/৪৩ (মঈন), ২/৯৭ (হেলস), ৩/১২১ (বেল), ৪/১২১ (মরগান), ৫/১৩২ (টেইলর), ৬/১৬৩ (রুট), ৭/২৩৮ (বাটলার), ৮/২৩৮ (জর্ডান), ৯/২৬০ (ব্রড), ১০/২৬০ (এন্ডারসন)।
বোলিং : মাশরাফি ১০-০-৪৮-২, রুবেল ৯.৩-০-৫৩-৪, আরাফাত ৮-০-৪২-০, সাকিব ১০-০-৪১-০, তাসকিন ৯-০-৫৯-২ (নো-১), সাব্বির ২-০-১৩-০।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email