রবিবার ১৪ অগাস্ট ২০২২ ৩০শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

খরাসহিষ্ণু ও স্বল্পমেয়াদি ব্রি ধান -৫৬ নীলফামারীতে মাঠ দিবস

মো. জাকির হোসেন, রংপুর ব্যুরো চীফ : উত্তরাঞ্চলে একই জমিতে খরাসহিষ্ণু স্বল্পমেয়াদে চারটি ফসল উৎপাদনের আওতায় ব্রি ধান-৫৬ পরীক্ষামুলকভাবে আবাদ করে সাফল্য পেয়েছে কৃষককুল। ১০৮ দিন সময়ের মধ্যে প্রতিবিঘা জমিতে কৃষকরা ১৬ মন করে ধান ঘরে তুলতে পেরেছে। বঙ্গবন্ধু কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ও আরডিআরএস বাংলাদেশ-এর আয়োজনে কৃষি গবেষণা ফাউন্ডেশন (কেজিএফ) এবং কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর (ডিএই) এর সহযোগিতায়এবার পরীক্ষামুলকভাবে এই ধান রংপুর ও দিনাজপুর কৃষি অঞ্চলের নীলফামারী সহ ৮ জেলায় আবাদ করা হয়েছিল এক হাজার ৫৫০ বিঘা জমিতে। এর মধ্যে নীলফামারীতে সাড়ে ৩শত বিঘা, দিনাজপুরে চারশত বিঘা, গাইবান্ধায় তিনশত বিঘা,রংপুরে একশত বিঘা,লালমনিরহাটে একশত বিঘা, ঠাকুরগাঁয়ে দেড়শত বিঘা,পঞ্চগড়ে দেড়শত বিঘা।

এই ধান কর্তনে সোমবার (১৯ অক্টোবর) সকালে নীলফামারীর কিশোরীগঞ্জ উপজেলার বড়ভিটা ইউনিয়নের কৃষক মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন নীলফামারী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক গোলাম মো: ইদ্রিস, কিশোরীগঞ্জ উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা এনামুল হক এবং কেজিএফ এর  নির্বাহী পরিচালক ড: নুরুল আলম ও পরিচালক রহিমউদ্দিন, আরডিআরএস বাংলাদেশ নীলফামারী ইউনিটের কর্মসূচি সমন্বয়কারী খ.ম. রাশেদুল আরেফীন ও বড়ভিটা ইউনিয়ন পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জাহেদুল ইসলাম প্রমুখ। আরডিআরএস বাংলাদেশের কৃষি ও পরিবেশ সমন্বয়কারী মোঃ মামুনুর রশিদ জানান যে, আরডিআরএস বাংলাদেশ চলতি বছর নীলফামারী জেলায় স্বল্পমেয়াদি আমন-সরিষা/আলু-মুগডাল-আউশ শস্যবিন্যাসের আওতায় ২০০জন কৃষকের ২০০ বিঘা জমিতে ব্রি ধান-৫৬ এবং ১৫০ জন কৃষকের ১৫০ বিঘা জমিতে বিইউ ১ এর প্রদর্শনী প­ট স্থাপন করা হয়। ব্রি ধান ৫৬ একটি খরাসহিষ্ণু ও স্বল্পমেয়াদি জাতের ধান যা মাত্র ১০৫-১১০ দিনের মধ্যে কর্তন করা যায়। পরীক্ষামুলকভাবে এই ধান আবাদের সফলা এখন কৃষকদের মাঝে ছড়িয়ে দেয়া হবে।

মেলাবর বাবুপাড়া গ্রামের চাষী কৃষ্ণ চন্দ্র জানায় তিনি চলতি বছরের ২৫ জুলাই ২০১৫ তারিখে ৩০ শতক জমিতে ব্রি ধান ৫৬ রোপন করেন তা ১০৮ দিনে কর্তন করেন ১৬ মন ধান পেয়েছেন। কৃষক তহমিনা বেগম বলেন এই ধান কর্তন করে আগাম আলু/সরিষা লাগানো যায় যা তাকে উৎসাহিত করেছে।

 

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email