বুধবার ১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ১৮ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

খানসামায় অন্ত:সত্ত্বা প্রেমিকাকে হত্যার চেষ্টা

দিনাজপুর প্রতিনিধি : জেলার খানসামা উপজেলায় প্রেমিকার পেটে সমত্মান আসায় পাটক্ষেতে নিয়ে ধর্ষণের পর এসিড ও বিষ দিয়ে হত্যার চেষ্টা করেছে এক প্রেমিক। এ ঘটনা ঘটেছে খানসামা উপজেলার গোয়ালডিহি ইউনিয়নের দুবলিয়া গ্রামে।

ঘটনার শিকার প্রেমিকার স্বজনরা জানায়, খানসামা উপজেলার দুবলিয়া গ্রামের প্রফেসর পাড়া এলাকার সবজি বিক্রেতা রমেশ চন্দ্র রায় ওরফে বানিয়ার মেয়ে স্মৃতি রানীর (১৬) সাথে একই এলাকার প্রফেসর ব্রজেন্দ্র নাথ রায়ের ছেলে সুব্রত রায় (২২) বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। এক পর্যায়ে তাদের সম্পর্ক দৈহিক মিলনে গড়ায় এবং প্রেমিকা অমত্মঃসত্ত্বা হয়। প্রেমিক এ খবর জানতে পেরে প্রেমিকার পেটের সমত্মান নষ্ট করতে বলে। কিন্তু প্রেমিকা এতে রাজী না হওয়ায় গত ২২ জুন সকালে বাড়ীর পাশের পুকুরে গোসল করতে গেলে সুব্রত রায় প্রেমিকার মুখ চেপে ধরে পুকুর সংলগ্ন একটি পাটক্ষেতে নিয়ে যায় এবং ধর্ষণ করে। ধর্ষণের পর মুখে এসিড ও বিষ দিয়ে হত্যা চেষ্টা করলে সে প্রেমিকা সংজ্ঞাহীন হয়ে পড়লে প্রেমিক সুব্রত তাকে ফেলে পালিয়ে যায়।

এদিকে মেয়ে গোসলে গিয়ে দীর্ঘ সময়ে ফিরে না আসায় তার মা ও পরিবারের লোকজন খোঁজ করতে বের হয়। অনেক খোঁজা-খুজির এক পর্যায়ে পুকুর পাড়ে গেলে পাটক্ষেত থেকে মেয়ের গলার শব্দ শুনে তাকে বিবস্ত্র অবস্থায় দেখে মেয়ের চিৎকার দিয়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। পরে প্রতিবেশিরা এসে দু’জনকে উদ্ধার করে প্রথমে পাকেরহাট হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানামত্মর করা হয়। হাসপাতাল থেকে বাড়ী ফিরে প্রেমিকা বিয়ে দাবিতে সুব্রত রায়ের বাড়িতে অবস্থান করছে।

সরেজমিন, প্রেমিকার কথা হলে সে তার সাথে সংগঠিত ঘটনার বিবরণ তুলে ধরে। এদিকে সুব্রত রায়ের পিতা ঠাকুরগাঁও সরকারি কলেজের প্রফেসর ও তার লোকজন ছেলের প্রেমিকাকে বাড়ি থেকে বের করে দেয়। এ ঘটনা ধামাচাপা দিতে প্রফেসর ব্রজেন্দ্রনাথ এ ঘটনাটি অন্যদিকে প্রবাহিত করছে বলে এলাকাবাসী অভিযোগ করেছেন।

এ ব্যাপারে প্রেমিকার পরিবারের পক্ষ থেকে খানসামা থানায় মামলা দায়ের করেছে। তবে প্রফেসর ব্রজেন্দ্রনাথ রায় জানান, এটি সাজানো ঘটনা। মেয়ের পরিবার আমার সুনাম ক্ষুণ্ণ করতে ও আমাকে ফাঁসাতে এসব ঘটনা সাজিয়েছে।