শনিবার ২৫ মার্চ ২০২৩ ১১ই চৈত্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

খানসামায় জায়ান্ট মিলিবাগের আক্রমণ

Khansama Jayant Miibugমোছা. সুলতানা রফিকুল, চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: দিনাজপুরের খানসামা উপজেলায় আফ্রিকার উদ্ভিদভোজী পোকা জায়ান্ট মিলিবাগের আক্রমণ দেখা দিয়েছে। এ নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে আতঙ্ক আর উৎকন্ঠা দেখা দিয়েছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, উপজেলা পরিষদের সদর দরজার পশ্চিম পিলার সংলগ্ন কাঁঠাল গাছে এ পোকার আক্রমণ দেখা দিয়েছে। জায়ান্ট মিলিবাগ পোকা গাছের পাতা, ডাল ও ফল খেয়ে ফেলছে। শুধুই তাই নয়- এ পোকাটি উপজেলা পরিষদের সামনের হোটেল, কম্পিউটার দোকান ও পান-সিগারেট দোকানেও ঢুঁকছে। এতে দোকানের মালিক, কর্মচারি ও গ্রাহকরা অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। ক’জন ব্যবসায়ীরা জানান- গত ২/৩বছর ধরে এ পোকা গাছটিতে বসবাস করছিল। ছিল সংখ্যায়ও কম। কিন্তু এবছর পোকার সংখ্যা ও উৎপাত অনেক বেড়ে গেছে। এরা দিনের অধিকাংশ সময়ে দোকানের মধ্যে ঢুঁকে পড়ছে। ফলে দোকানপাট ঘন ঘন পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করতে হচ্ছে। এ পোকার অত্যাচারে আমরা অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছি। এ পোকাটি দল বেঁধে কাঁঠালের মুঁচির বোটা-কচিপাতার রস শুষে নিচ্ছে। ফলে গাছের পাতা, শাখা, পুষ্পমঞ্জুরি ও ফল নষ্ট হয়ে ঝড়ে পড়ছে। শুধু ওই গাছটিই নয়। এ পোকাটি উপজেলার গোবিন্দপুর গ্রামের এড. সাইফুল ইসলামের বাড়ির পাশে ঘন পাতাযুক্ত ছায়ায় ঘেরা কাঁঠাল গাছেও এ পোকার আক্রমণ দেখা দিয়েছে। জায়ান্ট মিলিবাগ পোকাটি ম্যাঙ্গো মিলিবাগ নামেও পরিচিত। এর বৈজ্ঞানিক নাম হচ্ছে ‘ড্রসিকা ম্যানজিফেরি’। এটি আকারে লম্বায় ১৯ মিলিমিটার ও ২ দশমিক ৩ মিলিমিটার চওড়া হয়। পোকাটি ডিসেম্বর মাসের শেষ থেকে জানুয়ারী মাস পর্যন্ত ডিম দেয়। একটি স্ত্রী পোকা ২শ’ থেকে ৪শ’ টি পর্যন্ত ডিম দিতে পারে। যা মাটির নিচে সুপ্তাবস্থায় থাকে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এজামুল হক জানান, জায়ান্ট মিলিবাগ পোকারশরীরে এক ধরণের সাদা সাদা রসালো পদার্থ থাকে। যা মানুষের শরীরে লাগলে এলার্জি হতে পারে। তবে ভয়ের কিছু নেই। শুধু আম, কাঁঠাল, জাম, পেয়ারা, লেবু, পেঁপে ও লিচুর মতো ফলে আক্রমণ হলে টপসিন জাতীয় কীটনাশক স্প্রে করে তা বাঁচানো যায়।