রবিবার ২২ মে ২০২২ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

খানসামায় মেধাবী মুখের সন্ধানে নাট্যাভিনেতা ও পরিচালক আবুল হায়াত

Abul Hayatমোছা. সুলতানা রফিক, চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: আমাদের দেশের নির্ভৃত ও নিবিড় প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে অবহেলিত এবং লুকিয়ে আছে অনেক মেধাবী মুখ। আর এসব অবহেলিত ও লুকিয়ে থাকা দরিদ্র ও মেধাবী মুখের সন্ধানে ছুঁটছে বাংলাদেশ এডিবেল ওয়েল নামক একটি প্রতিষ্ঠান। কারিগরী নির্মাতা গ্রুপের পরিচালক বিশিষ্ট নাট্যকার, নির্দেশক ও অভিনেতা আবুল হায়াত অক্লান্ত পরিশ্রম করে এবং প্রশিক্ষিত ক্যামেরাম্যান ও এক ঝাঁক তরুণ-তরুণীর মাধ্যমে তুলে আনছেন ওইসব মেধাবীদের ছবি ও সাফল্য গাথার কথা।

‘মিজান মেধাবী দেশের মুখ’-এ শ্লোগানকে সামনে রেখে কারিগরী নির্মাতা গ্রুপ গত ২২ মার্চ শনিবার ছুঁটে আসে দিনাজপুরের খানসামা উপজেলায়। যান তে-বাড়িয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে। ওই প্রতিষ্ঠানেরই ছাত্রী মাহমুদা আক্তার। তারা দু’বোন ও ১ ভাই। মাহমুদা পিতামাতার দ্বিতীয় সন্তান। সে গত ২০১৩ সালে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে লাভ করে জিপিএ-৫। তার পিতা লুৎফর রহমান ও মা বানু বেগম পেশায় দিনমজুর। তারা মানুষের বাড়িতে কাজ কর্ম করে কোন রকমে জীবিকা নির্বাহ করেন। ঝড়-বৃষ্টি কিংবা কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগ হলে তারা যদি অন্যের বাড়িতে কাজকর্ম করতে পারেন না। ফলে তাদের পুরো পরিবারকে সেদিন না খেয়ে থাকতে হয়। তারপরেও থেমে থাকেনি মেধাবী মাহমুদা। অনাহারেই মাসের অধিকাংশ সময়ে স্কুলে যায় মাহমুদা। শত অভাব-অভিযোগের পরেও মাহমুদা চালিয়ে যায় তার লেখাপড়া।

এ ব্যাপারে তে-বাড়িয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাজ্জাদ হোসেন বলেন, সাধ্যমত আমি এখনো মাহমুদাকে ব্যক্তিগতভাবে সাহায্য-সহযোগিতা করে আসছি। সে বর্তমানে শাপলা স্কুল এন্ড কলেজে একাদশ শ্রেণিতে পড়ালেখা করছে।

অভাব-অনটনের মধ্যে এমন সাফল্যের খবর ওই বছর ১৩মে জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত হয়। সংবাদের শিরোনাম ছিল ‘মাহমুদা কেবল বাবা-মা নয়, স্কুল ও প্রতিবেশিদের মুখ উজ্জ্বল করেছে।’ সংবাদের ভিত্তিতে ছুঁটে আসে মিজান মেধাবী দেশের মুখ-এর দলটি। এ দলটি যায় মাহমুদার শিক্ষালয় ও বাড়িতে। দিনভর অনুষ্ঠিত হয় তাদের শ্যুটিংয়ের কার্যক্রম। শ্যুটিং শেষে মেধাবী মাহমুদাকে দেয়া হয় বাংলাদেশ এডিবেল অয়েল’র পক্ষ থেকে উপহার সামগ্রিসহ নগদ ২৫হাজার টাকাও।

শত ব্যস্ততা থাকা সত্ত্বেও কারিগরী নির্মাতা গ্রুপের পরিচালক আবুল হায়াত বলেন, গ্রামের এসব মেধাবীরা একটু সাহায্য-সহযোগিতা পেলে অনেক অনেক দূর এগিয়ে যাবে এতে কোন সন্দেহ নেই। অভাব-অনটন ও জীর্ণ কুটিরে কুপির আলোতে তাদের এমন সাফল্য সত্যি অবাক করার মতো ঘটনা। কারিগরী নির্মাত গ্রুপের প্রধান সহকারী পরিচালক গোলাম হাবিব লিটু বলেন, আমরা কারিগরী নির্মাতার পক্ষ থেকে এমন মেধাবীদের সাফল্যই কামনা করি। তাই আমরা তাদেরকেই খুঁজছি।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email