শনিবার ২৫ জুন ২০২২ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

খানসামা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার বরখাস্ত

দিনাজপুর প্রতিনিধি : প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী এবং মন্ত্রণালয়ের নামে কটুক্তি ও তাচ্ছিল্য করায় দিনাজপুরের খানসামা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে অধিদপ্তর।

সূত্রমতে, খানসামা উপজেলার ৫৮ জন শিক্ষক প্রতিনিধির স্বাক্ষরিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে গত ২০ জুলাই প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তদন্ত ও শৃঙ্খলা শাখার সচিব কাজী আখতার হোসেনের স্বাক্ষরিত একটি প্রজ্ঞাপনে সাময়িক বরখাস্তের বিষয় জানানো হয়। বি.এস.আর পার্ট-১ রুল-৭৩ এর নোট-২ মোতাবেক খানসামা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আব্দুস সালামকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। আব্দুস সালাম শিক্ষা অফিসার হিসেবে খানসামা উপজেলায় যোগদান করায় শিক্ষকরা সৌজন্য সাক্ষাৎ করতে গেলে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর ও মন্ত্রীকে কটুক্তি করে অকথ্য ভাষায় গালাগাল ও তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য মুলক কথা বলেন। পরে এটি উপজেলার বিভিন্ন মহলে ছড়িয়ে পড়লে সকলে ক্ষোভে ফেটে পড়েন এবং ওই কর্মকর্তার আচরণে অসততার চিহ্নি দেখতে পেয়ে একটি লিখিত অভিযোগ সংশি­ষ্ট মন্ত্রনালয়সহ বিভিন্ন অধিদপ্তরে প্রেরণ করেন। এছাড়াও ওই শিক্ষা অফিসার ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভাংচুর ও ক্ষতিগ্রস্থ বিদ্যালয় মেরামত এবং বিদ্যালয়ের ল্যাট্রিন ও ক্ষুদ্র মেরামত করতে দেয়া সরকারি ২৬ লাখ টাকার লোভ সামলাতে না পেরে কৌশলে আদায়ের ফন্দি আটেন।

তিনি সহকারি শিক্ষা অফিসার আজমল হোসেন ডলার, বজলুর রশিদ, আব্দুস সামাদ, ইউডিএ কান্তেস্বর রায় এবং স্থানীয় শিক্ষক তুষারকান্তি রায়সহ সদ্য জাতীয়করণকৃত বিদ্যালয়ের বেশ কয়েক জন শিক্ষকের যোগসাজোসে এসব কাজ করছেন বলে নাম প্রকাশে অনেচ্ছুক একাধিক শিক্ষক জানান।

তারা বলেন, শিক্ষা অফিসার আব্দুস সালাম সরকারের দেয়া ২৬ লাখ টাকা থেকে ১০ পার্সেন্ট হারে পিইডিপি-৩’র হিসাব নম্বর ৩৬০০০৪০৩-এ সোনালী ব্যাংক খানসামা শাখায় ২০ জুলাই’র মধ্যে জমা দেয়ার কঠোর নির্দেশ দেন। অন্যথায় শিক্ষকদের জুলাই মাসের বেতন কেটে নেবেন বলে জানিয়ে দেন। ফলে, চাকরি হারানোর ভয়ে ক্ষতিগ্রস্থ বিদ্যালয়ের মধ্যে হোসেনপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পূর্ব বাসুলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও শুসুলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তিন মহিলা প্রধান শিক্ষক সংসারের জিনিসপত্র নষ্ট করে কর্মকর্তার কথামত ১০ পাসেন্ট হারে অর্থ ওই একাউন্টে জমা দেন। এসব ঘটনায় অতিষ্ঠ হয়ে ৫৮ জন শিক্ষকের স্বাক্ষরিত একটি লিখিত অভিযোগপত্র গত ১০ জুলাই প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রীসহ সংশি­ষ্ট দপ্তরগুলোতে প্রদান করা হয়।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email