শুক্রবার ১২ এপ্রিল ২০২৪ ২৯শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

খাবার সরবরাহ নিয়ে মিথ্যা প্রচারণা হচ্ছে : বিএনপি

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয়ের জন্য আনা খাবার প্রবেশে আবারো বাধা দিয়েছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। রোববারও কার্যালয়ে খাবার প্রবেশ করেনি।

দলের ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান বলেছেন, বিএনপি প্রধানের কার্যালয়ে খাবার সরবরাহ নিয়ে ক্ষমতাসীনদের পক্ষ থেকে মিথ্যা প্রচারণা চালানো হচ্ছে। ‘তিনবারের প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া অভুক্ত রয়েছেন। তার কার্যালয়ে অবস্থানকারীদের রেখে তিনি খেতে পারছেন না।’

রোববার দুপুর সোয়া ২টার দিকে গুলশান বিরানী হাউজ থেকে ৩০ প্যাকেট খাবার ও ৩০ বোতল পানি নিয়ে আসা হলে সেগুলো আটকে দেয় পুলিশ। খাবার প্রবেশে বাধা দেওয়ার পর রিকশাযোগে আনা সেই খাবার দক্ষিণ পাশের ফুটপাতের উপর রেখে চলে যান রিকশাওয়ালা।

খাবার প্রবেশের বাধা দেওয়ার পর কার্যালয়ে অবস্থান করা দলের ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান সাংবাদিকদের বলেন, ‘সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, খালেদা জিয়ার কার্যালয়ের খাবার সরবরাহ বন্ধ করা হয়নি। কার নির্দেশে খাবার বন্ধ করা হয়েছে, আমরা জানতে চাই।’

কার্যালয়ে অবস্থান করা নেতা-কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য আনা খাবার গত বুধবার রাত থেকে প্রবেশ করতে দিচ্ছে না আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

তবে শুক্রবার কার্যালয়ে অবস্থান করা বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমানের বাসা থেকে অল্প পরিমানে আনা খাবার প্রবেশ করতে দেওয়া হয়। খাবার প্রবেশে বাধা দেওয়ার পর কার্যালয়ে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় স্বল্প পরিসরে রান্নার আয়োজন করা হয়েছে।

বিএনপি প্রধানের সঙ্গে কার্যালয়ে আছেন দলের ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুল কাইয়ুম, প্রেস সচিব মারুফ কামাল খান, বিশেষ সহকারী শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, মাহবুব আলম ডিউ, নিরাপত্তা সমন্বয়কারী অবসরপ্রাপ্ত কর্ণেল আবদুল মজিদ, মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক শিরিন সুলতানা প্রমুখ। এছাড়াও রয়েছে অফিস স্টাফ, কর্মকর্তা-কর্মচারী।

৫ জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ঠিক দু’দিন আগে রাজনৈতিক অস্থিরতার মধ্যে নিজ কার্যালয়ে ‘অবরুদ্ধ’ হয়ে পড়েন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। সেই ৩ জানুয়ারি রাত থেকে এখনও কার্যালয়েই অবস্থান করছেন তিনি। এ অবস্থায় প্রতিদিনই তার ভাইয়ের বাসা থেকে তার জন্য খাবার আসে। আর কার্যালয়ে অবস্থান অন্যদের, দায়িত্বরত গণমাধ্যম কর্মী, বিএনপি চেয়ারপারসনের ব্যক্তিগত নিরাপত্তারক্ষী (সিএসএফ) এবং প্রটোকলের দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যদের জন্য বাইরে থেকে খাবার নিয়ে আসা হতো।

Spread the love