মঙ্গলবার ২৩ এপ্রিল ২০২৪ ১০ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

খালেদা জিয়ার জাতীয় ঐক্য গড়ে তোলার আহ্বান

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বর্তমান পরিস্থিতিকে অস্বাভাবিক উল্লেখ করে বলেন, ‘বর্বরতা ও উৎপীড়ন মুক্ত স্বাভাবিক অবস্থা ফিরিয়ে এনে মানুষের লুণ্ঠিত অধিকার পুনঃপ্রতিষ্ঠা এবং একটি গণতান্ত্রিক ও সৌহার্দ্যময় বাংলাদেশ গড়ে তোলাই হবে এবারের স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসের অঙ্গীকার। সেই লক্ষ্যে বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য গড়ে তুলে সাহসী সংগ্রাম রচনার মাধ্যমে বিজয়কে ত্বরান্বিত করাই হোক আজকের দিনের শপথ।’

 

মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে বিএনপি প্রধান এক বাণীতে এ কথা বলেন। তার প্রেস সচিব মারুফ কামাল খান সোহেল স্বাক্ষরিত এই বাণী বুধবার রাতে গণমাধ্যমে পাঠানো হয়।

 

স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে দেশবাসী এবং প্রবাসী বাংলাদেশীদের আন্তরিক শুভেচ্ছা জানিয়ে তিনি বলেন, ‘যাদের সুমহান আত্মত্যাগে আমরা অর্জন করেছি স্বাধীনতা, সেই লাখো বীর শহীদদের কথা সকৃতজ্ঞ চিত্তে স্মরণ করছি। তাদের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত ও শান্তি কামনা করছি।’

 

বীর মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মত্যাগের কথা স্মরণ করে খালেদা জিয়া বলেন, ‘তাদের স্মরন করি, যারা জীবনবাজি রেখে রণাঙ্গনে লড়াই করে দেশকে মুক্ত করেছিলেন। আমি স্বাধীনতার সংগঠক রাজনৈতিক ও সামরিক নেতৃত্বের প্রতি শ্রদ্ধা জানাচ্ছি। স্বাধীনতার মহান ঘোষক ও রণাঙ্গনের বীর অধিনায়ক শহীদ জিয়াউর রহমানকে সশ্রদ্ধ চিত্তে স্মরণ করছি। যারা যুদ্ধাহত হয়েছেন, দেশে থেকে কিংবা উদ্বাস্তু হয়ে অপরিসীম ত্যাগ স্বীকার করেছেন তাদের কথাও স্মরণ করছি।’

 

প্রতিবেশী ভারতসহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ভূক্ত যে সব রাষ্ট্র ও বিদেশী বন্ধু সরাসরি যুদ্ধ করে কিংবা প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে সাহায্য-সহযোগিতা ও সমর্থন দিয়ে বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে সম্ভব ও ত্বরান্বিত করেছেন তাদের ধন্যবাদ জানান বিএনপি প্রধান।

 

তিনি বলেন, ‘এবারে এমন এক অস্বাভাবিক পটভূমিতে আমাদের মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস এসেছে যখন দেশ থেকে গণতন্ত্র নির্বাসিত। ভোটাধিকারসহ প্রায় সকল সাংবিধানিক ও মৌলিক অধিকার হারিয়েছেন দেশবাসী। গুম, খুন, বিচার বহির্ভূত হত্যা, অপহরণ, নির্যাতন, পাইকারী গ্রেফতার অবাধে চলছে।’

 

বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, ‘সারাদেশ যেন এক উপদ্রুত জনপদ। স্বজনহারা মানুষের করুণ কান্নায় বাতাস ভারী হয়ে আছে। মানুষের কোনো নিরাপত্তা নেই, অধিকার নেই, স্বাধীনতা নেই। সীমাহীন দুর্নীতি, লুণ্ঠন, অপশাসন, উৎপীড়নে আজ সকল সুবচন নির্বাসিত। যুক্তির বদলে অবাধ মিথ্যাচার এবং সমঝোতার বদলে জবরদস্তির মাধ্যমে দুর্বিনীত দুঃশাসনকে দীর্ঘায়িত করার অপচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।’

Spread the love