রবিবার ২১ এপ্রিল ২০২৪ ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

খালেদা জিয়া অবরুদ্ধ! দেশ জুড়ে আতংক

যে কোনো মূল্যেই জনসভা করার প্রত্যয় ব্যক্ত করার পর রাজধানীর গুলশানে রাজনৈতিক কার্যালয়ে বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে ‘অবরুদ্ধ’ করে রাখা হয়েছে।

এমনটি অভিযোগ করেছেন দলের পক্ষ থেকে। তবে পুলিশের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, নিরাপত্তার স্বার্থে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

শনিবার রাত ১১টা থেকে রোববার সকাল সাড়ে ১০টা পর্যন্ত বিভিন্ন সংবাদকর্মী খালেদার রাজনৈতিক কার্যালয়ে প্রবেশ করতে চাইলে পুলিশ বাধা দেয়। সেখানে প্রবেশ করতে কিংবা সেখান থেকে কাউকে বের হতে দিচ্ছে না পুলিশ।

বিকল্পধারা বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট অধ্যাপক ড. বদরুদ্দোজা চৌধুরী ও মহাসচিব মেজর (অব.) আবদুল মান্নান খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে এসে পুলিশি বাধার মুখে ফিরে যান। এ সময় বদরুদ্দোজা চৌধুরী ৫ জানুয়ারির বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোটের ডাকা ‘গণতন্ত্র হত্যা’ দিবসের কর্মসূচির প্রতি সমর্থন জানান। এরপর আসেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপ-উপাচার্য আ ফ ম ইউসুফ হায়দার। তিনিও কার্যালয়ে প্রবেশ করতে পারেননি।
তবে রোববার বেলা দেড়টার দিকে সাংবাদিকদের ৮ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল খালেদা জিয়ার কার্যালয়ে প্রবেশ করেন। সাংবাদিক প্রতিনিধি দলে ছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও ঢাকা ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি (একাংশ) শওকত মাহমুদ, সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক রুহুল আমিন গাজী, প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আবদাল হোসেন, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি (একাংশ) কবি আবদুল হাই শিকদার, সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম প্রধান, ডিআরইউর প্রাক্তন সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান, সরদার কামাল ফরিদ, শহিদ আহমেদ।
এরপর বেলা ২টার দিকে কার্যালয়ে প্রবেশ করেন চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, উপদেষ্টা জয়নুল আবেদিন ফারুক, প্রাক্তন মন্ত্রী নিতাই রায় চৌধুরী, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মাহবুব উদ্দিন খোকন, বিএনপির গণশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক সানাউল্লাহ মিয়া, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক মাসুদ আহমেদ তালুকদার।
 খালেদার কার্যালয়ের ১৫০ গজ দূরত্বে তিন স্তরের নিরাপত্তা বেষ্টনী গড়ে তুলেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এই নিরাপত্তা বেষ্টনীর ভেতরে কাউকেই প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে না।

৫ জানুয়ারি নির্বাচনের এক বছর পূর্তিতে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ‘গণতন্ত্রের বিজয় দিবস’পালন করার প্রস্তুতি নিচ্ছে। এর বিপরীতে ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবস’পালন করতে সর্বাত্মক প্রস্তুতি চলছে বিএনপিতে। ওই দিন রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসভা করবে আওয়ামী লীগ। অপর দিকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান, নয়া পল্টনের কার্যালয়ের সামনের সড়ক অথবা মতিঝিলের শাপলা চত্বরে সমাবেশ করতে চায় বিএনপি।
Spread the love