শনিবার ২৮ জানুয়ারী ২০২৩ ১৪ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

খালেদা জিয়া সব সময় উল্টো পথে হাঁটেন-প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

pm-bpনির্বাচন স্থগিত এবং নির্দলীয় সরকারের দাবিতে বিরোধীদলীয় নেতা খালেদা জিয়ার আন্দোলনের নতুন কর্মসূচি ঘোষণার কিছু সময়ের মধ্যে গণভবনে এক অনুষ্ঠানে একথা বলেন তিনি।

দশম সংসদ নির্বাচনে অর্ধেকের বেশি আসনের প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ার জন্য বিরোধী দলের অনুপস্থিতিকে কারণ দেখিয়ে শেখ হাসিনা দুদিন আগেই বলেছিলেন, খালি মাঠে গোল তো হবেই।

ওই প্রসঙ্গ ধরেই মঙ্গলবার তিনি বলেন, “প্রমোদ মানকিন মাঠে খেলতে নামলেন। তাকে দেখে খেলোয়াড়রা ভয়ে পালিয়ে গেলেন। উনি খালি মাঠে গোল দিয়ে আসলেন।

“তেমনি বিরোধী দলও ভয়ে নির্বাচনে আসলো না।”

বড় দিন উপলক্ষে খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের একটি প্রতিনিধি দলের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে একথা বলেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী। ওই প্রতিনিধি দলের নেতা ছিলেন সরকারদলীয় সংসদ সদস্য প্রমোদ মানকিন।

প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্যের ঘণ্টাখানেক আগেই এক সংবাদ সম্মেলনে বিরোধীদলীয় নেতা খালেদা জিয়া ৫ জানুয়ারির নির্বাচন প্রতিহত করার ঘোষণা দেন। সেই সঙ্গে আগামী সারাদেশ থেকে সবাইকে ঢাকায় এসে অবস্থান নেয়ার আহ্বানও জানান তিনি।

খালেদা জিয়া অভিযোগ করেছেন, তারা সমঝোতা চাইলেও সরকারই তাতে আগ্রহী না হয়ে ক্ষমতা ধরে রাখতে ‘একতরফা’ নির্বাচন করতে চাইছে।

শেখ হাসিনা পাল্টা বিরোধীদলীয় নেতাকে দায়ী করে বলেন, “২০১১ সাল থেকে তাকে আলোচনার কথা বলে আসছি। পার্লামেন্টেও আলোচনার কথা বলেছি।

“আমি আলোচনার কথা বলি, আর উনি আমাকে আল্টিমেটাম দেন।”

বর্তমান সরকারের সময়ে অনুষ্ঠিত কোনো নির্বাচনে সরকারের কোনো প্রভাব খাটানো হয়নি দাবি করে বিরোধী দলের অবস্থানের সমালোচনাও করেন প্রধানমন্ত্রী।

“কোনো নির্বাচনে হস্তক্ষেপ করিনি। সিটি কপোরেশন নির্বাচনে বিরোধী দল জয়লাভ করল। তারপরও তারা নির্বাচনে এল না।”

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিরোধীদলীয় নেতা একের পর এক হরতাল-অবরোধ দিয়ে যাচ্ছেন। অবরোধ পালনের জন্য মানুষের ওপর ‘জোর-জবরদস্তি’ করছেন।

“আন্দোলন হয় মানুষের কল্যাণে। কিন্তু বিরোধীদলীয় নেত্রীর আন্দোলন মানুষ খুনের। তারা আন্দোলন করছে না, এটা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড।”

বড়দিনের এই শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে প্রমোদ মানকিনের অনুরোধে একটি দেশের গানও গেয়ে শোনান প্রধানমন্ত্রী, যাতে কণ্ঠ মেলান অনুষ্ঠানে অংশ নেয়া অন্য সবাই।

সবশেষে বড়দিনে কেক কেটে দেশ ও জাতীর মঙ্গল কামনা করে প্রার্থনা করা হয়।