শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ ১৩ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

গণতান্ত্রিক ধারায় দেশকে এগিয়ে নিতে প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা

PMবৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে ‘একুশে পদক প্রদান অনুষ্ঠান-২০১৪’-এ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, “একুশ ও স্বাধীনতার চেতনাবিরোধীদের মোকাবেলা করতে নতুন প্রজন্মের মাঝে একুশের চেতনা ছড়িয়ে দিতে হবে। যারা একুশের চেতনা ও স্বাধীনতার চার মূল স্তম্ভকে অস্বীকার করে তারা একুশের শত্রু, স্বাধীনতার শত্রু।”

 

শেখ হাসিনা বলেন, “আমাদের অনেক প্রতিকূলতা মোকাবেলা করতে হচ্ছে। আমরা বাংলাদেশকে একটি শান্তির দেশে পরিণত করতে চাই। গণতান্ত্রিক ধারায় দেশকে এগিয়ে নিতে চাই।”

তিনি বলেন, “একুশ মানে বাঙালি জাতির আত্মত্যাগের এক বীরত্ব কাহিনী। একুশ মানে মাকে মা বলার অধিকার অর্জন, বাঙালি জাতির চেতনা ও গৌরবের উৎস একুশ, একুশ মানে হার না মানা অবিনাশী চেতনার নাম। একুশ আমাদের পরিচয়।”

সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. রণজিৎ কুমার বিশ্বাস।

২০১৪ সালের একুশে পদক ঘোষণা করা হয় ১১ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার। সাংবাদিকতায় ‘দৈনিক সমকাল’ পত্রিকার সম্পাদক গোলাম সারওয়ার, ভাষা ও সাহিত্যে বেলাল চৌধুরী, রশীদ হায়দার, আবদুস শাকুর (মরণোত্তর), বিপ্রদাশ বড়ুয়া, জামিল চৌধুরীসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদানের জন্য ১৫ জন এবার এই পদক পান।

অন্য যারা এবারের একুশে পদক পান তারা হলেন, ভাষা আন্দোলনে শামসুল হুদা ও ডা. বদরুল আলম (মরণোত্তর); শিল্পকলায় রামকানাই দাশ, এস এম সোলায়মান (মরণোত্তর) ও কেরামত মওলা; গবেষণায় ড. এনামুল হক, শিক্ষায় ড. অনুপম সেন, সমাজসেবায় ডা. মুজিবুর রহমান।

একুশ পদকের জন্য নির্বাচিত প্রত্যেককে এককালীন নগদ এক লাখ টাকাসহ ৩৫ গ্রাম ওজনের একটি স্বর্ণপদক ও একটি সম্মাননাপত্র দেয়া হবে।

বাংলাদেশের বিশিষ্ট সাহিত্যিক, শিল্পী, শিক্ষাবিদ, ভাষাসৈনিক, ভাষাবিদ, গবেষক, সাংবাদিক, অর্থনীতিবিদ, দারিদ্র্য বিমোচনে অবদানকারী, সামাজিক ব্যক্তিত্ব ও প্রতিষ্ঠানকে জাতীয় পর্যায়ে অনন্য অবদানের স্বীকৃতি দেয়ার উদ্দেশ্যে ১৯৭৬ সাল থেকে একুশে পদক দেয়া হচ্ছে। ভাষা আন্দোলনের শহীদদের স্মরণে এই পদকের প্রচলন করা হয়।