রবিবার ২৬ জুন ২০২২ ১২ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘গলি গ্রাফিতি’ যেভাবে ফুটিয়ে তুলছে ফুটবলকে

ফুটবলের বাংলাদেশের মানুষের আবেগের সঙ্গে জড়িয়ে আছে। নিজ দেশ বিশ্বকাপ খেলতে না পারলেও ভাটা পড়েনি উন্মাদনায়। বিশ্বকাপ উপলক্ষেয় কোকাকোলার সৌজন্যে, এশিয়ান পেইন্টস ও ওয়াপদার সহযোগিতায় আঁকা হচ্ছে দেশের সব থেকে বড় ১২ হাজার স্কোয়ার ফিট গ্রাফিতি। যার নাম দেয়া হয়েছে ‘গলি গ্রাফিতি’।

আগামী ৮ জুন কোকা-কোলার উদ্যোগে বাংলাদেশে আয়োজিত হতে যাচ্ছে ‘ফিফা বিশ্বকাপ- ২০২২’ ট্রফি ট্যুর। ফুটবলের প্রতি সেই আবেগ, সেই উন্মাদনা আবার জাগিয়ে তোলার জন্যই এই গলি গ্রাফিতি।

আসন্ন ফুটবল বিশ্বকাপকে ঘিরে দেশের মানুষের মনে ফুটবলের প্রতি প্রেমকে আবার চাঙ্গা করে তুলতে কোকা-কোলা বেছে নিয়েছে শিল্পীর রং-তুলি। এক দল দেশীয় চিত্রশিল্পীদের নিয়ে ‘গলি গ্রাফিতি’ নামের স্ট্রিট আর্ট ওয়ার্ক ক্যাম্পেইনটি এই লক্ষ্যেই পরিচালিত হচ্ছে। 

বনানী ১১ ও গুলশান সংযোগ সেতুর পাশে অবস্থিত বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের অফিসার্স কোয়াটার্সের ১২০০০ স্কয়ার ফিট দেয়ালে বর্তমানে প্রথম গ্রাফিতির কাজ চলছে। বাংলাদেশি ফুটবলপ্রেমীদের ফুটবলের প্রতি আবেগ, ভালোবাসা ও ফুটবলকে ঘিরে তাদের উদযাপনের কথা এই আর্ট ওয়ার্কের মাধ্যমে তুলে ধরছেন শিল্পীরা।

গ্রাফিতিগুলোতে আরো ফুটিয়ে তোলা হয়েছে ফুটবলের প্রতীক, মহাতারকা ও ভক্তদের। এছাড়া, দেশীয় শিল্পকে বাঁচিয়ে রাখার জন্য রিকশাচিত্রের মতো দেশীয় মোটিফের ব্যবহারও থাকছে। 

আঁকা হয়েছে আর্জেন্টাইন লিজেন্ড ম্যারাডোনার অবয়ব, আছেন ব্রাজিলিয়ান তারকা নেইমার, সময়ের সেরা খেলোয়াড় লিওনেল মেসি ও পর্তুগাল তারকা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোও। 

ফুটিয়ে তোলা হয়েছে দর্শকের উল্লাস,ফুটবলের নয়নাভিরাম শর্ট। এক কথায় ফুটবলকেই ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করেছেন শিল্পীরা।  

আর্ট ওয়ার্কের পরিকল্পনা ও ডিজাইনের দায়িত্বে আছেন মেহেদী হাসান। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের স্নাতক মেহেদী তার স্টাইলের প্রকাশ ঘটান মিনিমালিস্ট কৌশলের সাথে রং ও ফর্মের বৈচিত্র্যের মাধ্যমে। আর আর্ট ওয়ার্কের কাজ বাস্তবায়নের দায়িত্ব পালন করছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ৩০ জন ছাত্র-ছাত্রী। সঙ্গে আছেন আরো একদল শিল্পী।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email