সোমবার ২৩ মে ২০২২ ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

গাইবান্ধায় পদ্মরাগ এক্সপ্রেসের ইঞ্জিনসহ ৪ বগি লাইনচ্যুত । নিহত ৩, আহত ৫০

Gaibandha-Photo From-Palash-04-12-2013(4)জিল্লুর রহমান মন্ডল পলাশ, গাইবান্ধা

গাইবান্ধার বোনারপাড়া-মহিমাগঞ্জ রেল স্টেশনের মাঝামাঝি কচুয়ার ভুরুঙ্গী নামকস্থানে বুধবার রাত ১ টা ১৫ মিনিটে রেল লাইনের ফিসপেস্ন­ট ও ক্লিপ তুলে ফেলায় লালমনিরহাট থেকে সান্তাহারগামী পদ্মরাগ এক্রপ্রেস ট্রেনের ইঞ্জিনসহ ৪ বগি লাইনচ্যুত হয়। ফায়ার ও সিভিল ডিফেন্স বিভাগ ৩ জনের মৃতদেহ উদ্ধারের কথা বললেও স্থানীয়দের দাবী এঘটনায় ৫ জনের মৃত্যু হয়েছে এবং আহত হয়েছেন অর্ধশতাধিক। নিহতদের মধ্যে দুজন নারী ও একজন পুরুষ।  এদিকে নাশকতার ঘটনায় জড়িত থাকার সন্দেহে স্থানীয় জনতা ঘটনাস্থল থেকে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার ছয়ঘড়িয়া গ্রামের হাফিজার রহমানের ছেলে সাদ্দাম হোসেন (২৫) ও একই গ্রামের তছলিম উদ্দিনের ছেলে দুদু মিয়া (৩২) নামে দুই শিবিরকর্মীকে আটক করে সাঘাটা থানা পুলিশের নিকট সোপর্দ করেছে। এদিকে এ ঘটনায় রাত ২ টা থেকে গাইবান্ধা-বোনারপাড়া-সান্তাহার রুটে ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ফলে অবরোধের কারণে ট্রেন নির্ভর এই রুটের হাজার হাজার যাত্রীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

রেলওয়ে সুত্রে জানা গেছে, প্রায় ৩০০ যাত্রী নিয়ে লালমনিরহাট থেকে ছেড়ে আসা সান্তাহারগামী পদ্মরাগ এক্সপ্রেস ট্রেনটি রাত একটার দিকে বোনারপাড়া রেল ষ্টেশন থেকে যাত্রা শুরু করে। এসময় ট্রেনের অধিকাংশ যাত্রী ঘুমিয়ে ছিলেন। বোনারপাড়া ও মহিমাগঞ্জ রেলষ্টেশনের মাঝামাঝি কচুয়ার ভুরুঙ্গী এলাকার ব্রীজের কাছে পৌছলে ট্রেনটির ইঞ্জিনসহ সামনের অংশের চারটি বগি বিকট শব্দে লাইনচ্যুত হয় এবং বগিগুলো দুমড়ে মুচড়ে যায়। স্থানীয় লোকজন ছুটে এসে উদ্ধার তৎপরতা শুরু করে। সকাল সাড়ে এগারোটার দিকে মৃতদেহ ও আহতদের উদ্ধারের জন্য বোনারপাড়া জংশন থেকে একটি উদ্ধারকারী ট্রেন এবং গাইবান্ধা, রংপুর ও বগুড়ার সোনাতলে থেকে ফায়ার সার্ভিসের ৩টি ইউনিট ঘটনাস্থলে এসে দুপুর ৩ টার দিকে উদ্ধার কার্যক্রম শেষ করেন।

বোনারপাড়া রেলওয়ে থানার ওসি সাইদুর রহমান জানান, স্থানীয়দের সহযোগিতায় গুরুত্বর আহতদের মধ্যে ৮ জনকে উদ্ধার করে বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপতাল, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেস্নক্স এবং গাইবান্ধা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তারা হলেন গাইবান্ধা সদরের সবুজ মিয়া (২৩), লালমনিরহাটের হাতিবান্ধা উপজেলার বেতগ্রামের সাবু মিয়া (২৮), পাবনার আজিজার (৪২), বগুড়া সেনপাড়ার আমিনুর (৩৪), গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জের মেলা বেগম (২৪), গোবিন্দগঞ্জের বাবু মিয়া (২৮), গাইবান্ধার ফুলছড়ি গ্রামের আবু তাহের (৩২), সাঘাটার ত্রিমহনি গ্রামের আকতারম্নল ইসলাম (৩৩)। তবে নিহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলেও জানান তিনি।

বোনারপাড়া রেলওয়ে স্টেশন মাষ্টার আইয়ুব হোসেন জানান, দুর্ঘটনা কবলিত এলাকায় লাইনের প্রায় ৪০ ফুট ফিসপেস্ন­ট ও ক্লিপ তুলে ফেলা হয়েছে। এতে দুর্ঘটনা কবলিত ইঞ্জিন রেল লাইন থেকে ২০ ফুট নিচে খাদে পড়ে গেলেও বগিগুলো লাইনচ্যুত হয়ে রেল লাইনের পাশে পড়ে যায়। তা না হলে এই এ দুর্ঘটনায় নিহত ও আহতের সংখ্যা আরো বাড়তো বলে তিনি জানান। তিনি আরো জানান, দুপুর ৩ টার দিকে উদ্ধার তৎপরতা শেষ হলেও ইঞ্জিন ও বগি উদ্ধারের কাজ কখন শেষ হবে বা প্রকৃত পক্ষে কখন থেকে এই রুটে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হবে তা তিনি নিশ্চিত করতে পারেননি।

গাইবান্ধার পুলিশ সুপার সাজিদ হোসেন জানান, এটি জামায়াত-শিবিরকর্মীদের পূর্ব পরিকল্পিত নাশকতা। ফিসপেস্নট খুলে ট্রেন লাইনচ্যুত হবার মুহূর্তে দৌড়ে পালিয়ে যাবার সময় দুই শিবিরকর্মীকে গ্রামবাসী আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। তারা শিবিরের কর্মী বলে তিনি নিশ্চিত করেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email