মঙ্গলবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১২ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

গাইবান্ধায় সুন্দরগঞ্জে সরিষার বাম্পার ফলন : কৃষকের মুখে হাসি ফুটেছে

Sorisaজিল্লুর রহমান মন্ডল পলাশ, গাইবান্ধা

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় সরিষার বাস্পার ফলন হয়েছে। চলতি রবি মৌসুমে আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় সরিষার বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাসি ফুটেছে।

 

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, এ বছর উপজেলায় ৩০৫ হেক্টর জমিতে সরিষা আবাদ করা হয়েছে। এরমধ্যে বারি-৯ জাত ১২০ হেক্টর, বারি-১৪ জাত ৮০ হেক্টর ও টরি-৭ জাত ১০৫ হেক্টর। উৎপাদনের লক্ষ্য মাত্রা ধরা হয়েছে ৫৭৬ মেঃ টন। বিগত বছর গুলোতে সরিষার চাষ তেমন একটা ছিল না। কিন্তু গত বছর থেকে সরিষা চাষের প্রতি কৃষকদের আগ্রহ বেড়েছে। কারণ আলু, গম ও বোরোসহ অন্যান্য ফসলের চেয়ে সরিষা চাষে খরচ অনেক কম। এ কারণে সরিষা একটি লাভজনক ফসল। কোন প্রকার কিটনাশক, রাসায়নিক সার ছাড়াই এ ফসল চাষ করা সম্ভব। প্রয়োজন হলে খুব কম মাত্রায় কিটনাশক ও সার প্রয়োগ করলে চলে।

 

সব মিলে উৎপাদন খরচ কমে ভাল ফলন হওয়ায় কৃষকেরা সরিষা চাষের প্রতি আগ্রহ বাড়িয়েছে। তবে এ উপজেলার চরাঞ্চলেই সরিষার আবাদ বেশি। প্রতি বছর বন্যায় চরাঞ্চলের জমিতে নতুন করে পলি জমায় সরিষাসহ বিভিন্ন রবি ফসল চাষে খরচ হয় অনেক কম। এরই মধ্যে অনেক কৃষক সরিষা ঘরে তুলতে শুরু করেছে। গত বছর এখানকার হাট-বাজার গুলোতে কৃষকরা মান অনুযায়ি এক হাজার ৫’শ থেকে ২ হাজার টাকা পর্যন্ত প্রতি মণ সরিষা বিক্রি করেন।

 

খোর্দ্দার চরের সরিষা চাষী আবদুল মতিন মিয়া বলেন, প্রাকৃতিক সমস্যা না থাকায় সরিষার আবাদ ভাল হয়েছে। নিজাম খাঁ গ্রামের চাষি মোস্তাক জানান, মিল মালিকরা সরাসরি কৃষকদের নিকট থেকে সরিষা কিনলে আমরা দাম আরো বেশি পেতাম।

 

উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ সত্যেন কুমার জানান, সরিষা একটি তৈলবীজ ফসল। ফুল আসার পূর্বে সেচ দিলে সরিষার উৎপাদন বেশি হয়। তিনি আরো জানান, অল্প খরচে লাভজনক উৎপাদন হওয়ায় কৃষকদের মাঝে পরামর্শ দেয়ার কারণে সরিষা চাষ বাড়ছে। সরিষার উৎপাদন যত বাড়বে ভোজ্য তেলের দাম ততই কমবে।

 

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email