শনিবার ২৫ জুন ২০২২ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

গাজায় ৩০০ ছাড়িয়েছে নিহতের সংখ্যা

বার্তা সংস্থা এএফপির প্রকাশিত প্রতিবেদনে জানানো হয়, যুদ্ধবিরতিতে উভয় পক্ষকে রাজি করানোর লক্ষ্যে আমত্মর্জাতিক প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে গতকাল গাজা সফরে গিয়েছেন জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুন। তবে ইতিমধ্যেই ফিলিসিত্মন-শাসিত গাজায় গতকাল শনিবার ইসরায়েলের নতুন করে শুরম্ন হওয়া বিমান হামলায় ১০ জন নিহত হয়েছে। আর এই নিয়ে গত ১২ দিনে গাজায় নিহতের সংখ্যা ৩০০ পেরিয়েছে। গাজায় ইসরায়েলের প্রায় একতরফা হামলা গতকাল পর্যমত্ম দ্বাদশ দিন ছাড়িয়েছে। ভোরে খান ইউনিস শহরে একটি মসজিদের বাইরে বিমান হামলা চালায় ইসরায়েল। এতে সাতজন নিহত হয়। এরপর গাজায় আরও হামলা হয়। এতেও হতাহতের ঘটনা ঘটে। গতকালের ঘটনাসহ গত ১২ দিনে গাজায় নিহতের সংখ্যা ৩০৬ জনে দাঁড়িয়েছে। আহত হয়েছে হাজারো ফিলিসিত্মনি। হতাহত ব্যক্তিদের অধিকাংশই বেসামরিক নাগরিক। তাদের মধ্যে অনেক নারী ও শিশু রয়েছে। অপর দিকে চলমান সংঘাতে এ পর্যমত্ম মাত্র দুজন ইসরায়েলি নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে কয়েকজন। জাতিসংঘের পক্ষ থেকে গত শুক্রবার বলা হয়েছে, চলমান সহিংসতা বন্ধে উভয় পক্ষকে একটি সমঝোতায় আনার লক্ষ্যে সংস্থাটির মহাসচিব বান কি মুন গতকাল ঐ অঞ্চল সফরে গিয়েছেন। তবে নিজেকে রক্ষার ব্যাপারে ইসরায়েলের অধিকারের প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। বেসামরিক মানুষের প্রাণহানি এড়াতে সতর্ক থাকার আহ্বানও জানিয়েছেন তিনি। গাজা উপত্যকায় গত শুক্রবার থেকে স্থল অভিযান শুরম্ন করেছে ইসরায়েলি বাহিনী। যুদ্ধবিমান ও সামরিক হেলিকপ্টারের সহায়তা নিয়ে স্থলবাহিনীর ওই অভিযানে গত শুক্রবার ও গতকাল শনিবার নিহত হয়েছে অমত্মত ২৪ জন। আহত হয়েছে ২০০ জন। প্রাণ বাঁচাতে গাজার বাসিন্দারা বাড়িঘর ছেড়ে নিরাপদ আশ্রয়ের সন্ধানে ছুটতে থাকে। এর আগে ১৩ জুলাই দিবাগত রাত থেকে প্রথম গাজায় স্থল অভিযান শুরম্ন করেছিল ইসরায়েলি নৌ কমান্ডোরা। তবে এক দিন পরই ওই স্থল হামলা স্থগিত করা হয়েছিল। হামাস হুঁশিয়ারি করে বলেছে, এ আগ্রাসনের জন্য ইসরায়েলকে চড়া মূল্য দিতে হবে। ইসরায়েলি হামলার জবাবে তারা গাজা থেকে ইসরায়েলকে লক্ষ্য করে রকেট ছুড়ছে। ইসরায়েল বলছে, গতকাল এক ইসরায়েলি সেনা নিহত হয়েছেন। তবে কোথায় ও কীভাবে নিহত হয়েছেন, তা সুনির্দিষ্ট করে জানানো হয়নি। ৮ জুলাই থেকে ফিলিসিত্মন ভূখন্ডে ইসরায়েলের সর্বশেষ হামলার সূত্রপাত ইসরায়েলি তিন কিশোরকে সম্প্রতি অপহরণ ও হত্যার ঘটনাকে কেন্দ্র করে। হামাসই ওই ঘটনা ঘটায় বলে মনে করে ইসরায়েল। তবে হামাস তা অস্বীকার করে। পরে ফিলিসিত্মনি এক কিশোরকে একইভাবে হত্যা ও অপহরণের পর উত্তেজনা নতুন মাত্রা পায়। এরপর গাজা থেকে রকেট ছোড়া হচ্ছেএমন দাবি তুলে ‘অপারেশন প্রটেক্টিভ এজ’ শুরম্ন করে ইসরায়েল। এর আগে ২০১২ সালের নভেম্বরে গাজায় অভিযান চালায় ইসরায়েল। তখন আট দিনের মাথায় মিসরের মধ্যস্থতায় যুদ্ধবিরতি চুক্তি হয়। ক্ষমতার ভাগাভাগি নিয়ে দ্বন্দ্বের জের ধরে ফিলিসিত্মনের দুই অংশ পশ্চিম তীর ও গাজা ২০০৭ সালের আগস্টে চলে যায় দুটি দলের নিয়ন্ত্রণে। সেই থেকে মাহমুদ আববাসের নেতৃত্বে ফাতাহ পশ্চিম তীরে ও খালেদ মেশালের নেতৃত্বে হামাস গাজা শাসন করছিল। এই অবস্থায় গত এপ্রিলে দুই দলের মধ্যে একটি চুক্তি হয়। সে অনুযায়ী নতুন করে নির্বাচনের পর চলতি বছরের শেষ নাগাদ একটি জাতীয় সরকার গঠনের কথা। কিন্তু হামাস-ফাতাহর চুক্তিকে ভালোভাবে নেয়নি ইসরায়েল। তাদের মতে, হামাস একটি জঙ্গি সংগঠন। হামাস-ফাতাহ জাতীয় ঐক্যের সরকার হলে সেই সরকারের সঙ্গে শামিত্ম আলোচনায় যাবে না বলে জানিয়ে দেয় ইসরায়েল। ১৯৪৮ সালে ফিলিসিত্মন ভূখন্ডে ইহুদিদের জন্য ইসরায়েল রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার পর থেকেই স্বাধীন রাষ্ট্রের দাবিতে ফিলিসিত্মনিদের সংগ্রামের শুরম্ন। এর পর থেকে নিয়মিত রক্ত ঝরলেও আজও তাদের সেই স্বপ্ন পূরণ হয়নি। রাষ্ট্র হিসেবে ফিলিসিত্মনের স্বাধীন সত্তা মেনে নিতে রাজি নয় ইসরায়েল।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email