বুধবার ১৮ মে ২০২২ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

গোদাগাড়ীতে বিষ মিশিয়ে পাকানো হচ্ছে টমেটো

Godagari Photo-27.11.13মাইনুল ইসলাম, গোদাগাড়ী (রাজশাহী) প্রতিনিধি:

রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে রোদে শুকিয়ে ও বিষাক্ত কেমিকেল স্প্রে করে কৃত্রিম উপায়ে পাকানো হচ্ছে কাঁচা টমেটো। আর সেই টমেটো পাঠানো হচ্ছে ঢাকাসহ সারাদেশে। এতে মারাত্বক হুমকির মুখে পড়েছে জনস্বাস্থ্য।

উপজেলা কৃষি অফিস সুত্রে জানা যায়, উপজেলায় চলতি মৌসুমে প্রায় ৪ হাজার হেক্টর জমিতে শীতকালীন হাইব্রীড জাতের টমেটোর চাষ হয়েছে। আর এই বিপুল পরিমাণ জমি থেকে উৎপাদিত টমেটোতে অতিরিক্ত লাভের আশায় অপরিপক্ব টমেটো জমি থেকে উত্তোলনের পর মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর রাইপেন জাতীয়  ‘ইথেফোন’ নামের এক ধরনের রাসায়নিক ক্যামিকেল মিশিয়ে এবং রোদে শুকিয়ে টমেটোতে কৃত্রিম রং ধরিয়ে তা বাজারজাত করেছে কৃষকরা। যদিও ইথেফোন গ্রুপের ক্যামিকেলগুলো বিভিন্ন শাক-সবজির ক্ষেতে বিষ হিসেবে প্রয়োগের কথা। কিন্তু এই ইথেফোনই এখন ব্যাবহার করা হচ্ছে কৃত্রিম উপায়ে টমেটো পাকাতে। জানা গেছে, গোদাগাড়ীতে এখন রাইজার-১৫, রাইপেন, ইমিপাস, টমটম, ইডেন, প্রলং ও হারভেষ্টসহ বিভিন্ন নামের দেশীয় ইথেফোনের পাশাপাশি ভারতীয় ইথেফোন বিক্রি হচ্ছে ২শ-২৫০ টাকার মধ্যে। কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, অপরিপক্ব টমেটো জমি থেকে উত্তোলনের পর রোদে শুকিয়ে ইথেফোন স্প্রে করা হলে দুই-তিন দিনের মধ্যে টমেটোতে লাল রং ধারণ করে। এতে কাঁচা টমেটো অপেক্ষা বেশি দরে বিক্রি হয় ক্যামিকেলযুক্ত লাল রংয়ের টমেটো। অনুসন্ধানে আরো জানা যায়, ক্যামিকেলযুক্ত এসব টমেটোই এখন পাঠানো হচ্ছে রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে। বিষমিশ্রিত এসব টমেটো গোদাগাড়ীর সবচেয়ে বড় দুটি টমেটো বাজার রেলগেট-রেলবাজার ও বাসলীতলা এলাকায় বিক্রি হচ্ছে। বর্তমানে ক্যামিকেলমুক্ত কাঁচা টমেটো বিক্রি হচ্ছে মণ প্রতি সাড়ে ৭শ-৮শ টাকা পর্যন্ত। অপরদিকে ক্যামিকেলযুক্ত কৃত্রিম পাকা টমেটো বিক্রি হচ্ছে মণ প্রতি ১৫শ-১৮শ টাকা পর্যন্ত। এদিকে ক্যামিকেলযুক্ত যে কোন খাবারই মানবদেহের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর হলেও এখনো পর্যন্ত গোদাগাড়ীতে ক্যামিকেলযুক্ত টমেটোর বিরুদ্ধে কোন অভিযান পরিচালনা করেনি উপজেলা প্রশাসন কিংবা সংশি­ষ্ট দপ্তর। জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার খালিদ হোসেন বলেন, গোদাগাড়ীর হাজার হাজার টমেটো চাষী কৃত্রিম উপায়ে টমেটোতে রং ধরিয়ে তা বাজারজাত করছে। ক’জন কৃষকের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করা সম্ভব ? পাল্টা প্রশ্ন রাখেন তিনি।

এদিকে উপজেলা স্যানিটারী ইন্সপেক্টর নাসিমা আক্তারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, তিন বছর পূর্বে একবার গোদাগাড়ীর ক্যামিকেলযুক্ত টমেটো ঢাকা আই.টি.এস-এ পরীক্ষা করা হয়েছিলো। পরীক্ষীত নমুনার প্রাপ্ত ফলাফলে ক্যামিকেলযুক্ত টমেটোকে মানবদেহের জন্য সহনীয় উলে­খ করা হয়। সে কারণে ক্যামিকেলযুক্ত টমেটোর বিরুদ্ধে কোন অভিযান পরিচালনা করা হয়না। গোদাগাড়ীর বিষযুক্ত টমেটোকে মানবদেহের জন্য ‘খুব একটা’ ক্ষতিকর নয় বলেও দাবি করেন তিনি। তবে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডাঃ মুহাম্মদ হোসেন আলী বলছেন ভিন্ন কথা। তিনি বলেন, যে কোন ক্যামিকেলই মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর। আর ইথেফোন জাতীয় ক্যামিকেল মানুষের শরীরে ধীরে ধীরে কাজ করে বলে মানুষ এগুলো বিবেচনা করেনা। তবে মাত্রাতিরিক্ত ইথেফোন মানবদেহে প্রবেশ করলে ক্যান্সার ও কিডনি নষ্টসহ মৃত্যু পর্যন্ত হওয়ার আশংকা রয়েছে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email