শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ ১৩ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

গোদাগাড়ীর কাজিপাড়ার তহশীলদার সামশুল হকের বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়ম ও দুণীতির অভিযোগ

গোদাগাড়ী(রাজশাহী) প্রতিনিধিঃ রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ীর বাসুদেবপুর কাজিপাড়া ভুমি অফিসের তহশীলদার ও নায়েবের ব্যাপক অনিয়ম ও দূর্নীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযোগ সুত্রে জানা যায় কাজিপাড়া ভুমি অফিসের তহশীলদার সামশুল হক ও তার সহকারী নায়েম জিন্নাতুন উমেদার মোহাম্মদ হোসেনের সহযোগীতায় ব্যাপক অনিয়ম ও দূনীতির মাধ্যমে গরীব ও ভুমিহীনদের কে হয়রানী করে ব্যাপক অনিয়ম ও দুনীতি করে আসছে। অভিযোগ রয়েছে যে, কাপাসিয়াপাড়া, দৌলতপুর, ডাঙ্গাপাড়া,নলীগ্রাম, সিধনা মোজায়  মওকুফ চেক নিতে ১ হাজার থেকে ২ হাজার টাকা ঘুষ গ্রহন করে। খাস পত্তনীর চেক নিতে গেলে ৪ থেকে ৫ হাজার টাকা গ্রহন করে  থাকে। অভিযোগকারী কাপাসিয়া পাড়ার মোস্তফা হাজীর ছেলে নাজ মিয়া জানায় যে, অফিসের উমেদার মোহাম্মদ হোসেন অরফে গুধা মুন্সি গরীর ও অসহায় লোকদের কে হয়রানী করে টাকা আদায় করে তহশীলদার  ও  সহকারী তহশীলদার কে ঘুষ বানিজ্যে সরাসরি সহায়তা করে থাকে। তাছাড়া টাকার বিনিময়ে একই খাস জমি একাধিকবার বন্দোবস্ত দিয়ে থাকে। তার রিরুদ্ধে কেউ কথা বললে বিভিন্ন মামলার ভয়ভীতি প্রদান করে থেকে। অভিযোগকারী জানায় যে, আজেদ বিশ্বাসের ছেলে আহসান আলী কে ২ কাঠা, মকবুল হোসেন ছেলে আনারুল ৬কাঠা, কাশিমের ছেলে গোল জাহান ৬ কাঠা, নসের আলীর ছেলে আপেল মালেক ৯ কাঠা, ইয়াসিন কে ৩ কাঠা, লাল চানের স্ত্রী আমেনা কে ৫ কাঠা, এসলাম দফাদার কে, ১০ কাঠা, বুধু মহালদারের ছেলে বেলাল কে ৫ কাঠা অবৈধ ভাবে কাগজ পত্র তৈরী করে তহসিলদার সামশুল হক খাস জমি বন্দোবস্ত দিয়েছে। ফলে এলাকায় ব্যাপক চঞ্চলতার সৃষ্টি হয়েছে।

 

এ বিষয়ে গোদাগাড়ী কাজিপাড়া তহশীলদার সামশুল হক অভিযোগ গুলো অস্বীকার করে তবে তিনি বলেন কাজ করে দিলে মানুষ আমাকে খুশি হয়ে টাকা দিলে তা গ্রহন করি। তিনি  আরো বলেন নিউজ করিয়েন না, আপনার সাথে পরে যোগাযোগ করে আপনাকেও আমি খুশি করব।

 

গোদাগাড়ী উপজেলা নিবার্হী অফিসার খালিদ হোসেন বলেন, অনিয়ম ও দূনীতির মাধ্যমে ঘুষ বানিজ্যের কোন সুযোগ নেই তবে ঐ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে তিনি জানান।