রবিবার ২১ এপ্রিল ২০২৪ ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঘোড়াঘাটে পাম চাষে ব্যাপক আলোড়নের সৃষ্টি হয়েছে

মোঃফরিদুল ইসলাম,ঘোড়াঘাট (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ দিনাজপুর বগুড়া মহাসড়কের পাশে ঘোড়াঘাটের হিলি মোড় নামক স্থানে ১৪ একর জমির উপর প্রতিষ্ঠিত কাজী মঈদ এগ্রো ফার্ম পাম প্রকল্প যা জেলার পাম চাষে মডেল হয়ে উঠেছে। পাম চাষের জন্য প্রয়োজনীয় আবহাওয়া ও মাটির গুনাগুন এখানকার জমিতে আছে বলে এখানে পাম চাষের উজ্জল সম্ভাবনা রয়েছে। সে কারনেই এখানকার মানুষ পাম চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছে। গ্রিন বাংলাদেশ নামের একটি কোম্পানী মালিকের সাথে শর্ত সাপেক্ষে চুক্তিবদ্ধ হয়ে চারা রোপন করে। পরবর্তীতে কোম্পানী সঠিকভাবে পরিচর্যা না করায় কয়েকটি বাগান বিলুপ্ত হতে থাকে। এর মধ্যে কাজী এগ্রো ফার্মের অবস্থা একই পর্যায় দাড়ায়। কিন্তু বাগানের মালিক কাজী কাদের মঞ্জুর, কাজী নাসির মঈদ পদ্ধতিগত ভাবে পরিচর্যা করতে থাকে। ঘোড়াঘাটের ৯/১০টি পাম বাগানের মধ্যে কাজী মঈদ এগ্রো ফার্ম এলাকার মানুষের দৃষ্টি আকর্ষন করতে সক্ষম হয়েছে। দিনাজপুর ভায়া ঘোড়াঘাট হয়ে ঢাকা সহ সারাদেশে চলাচলে মহাসড়কের পাশে এই পাম বাগানটি পাম চাষে মানুষকে আকর্ষন করতে ব্যাপক ভূমিকা রাখবে বলে অভিজ্ঞ মহল মনে করেন। দৃষ্টি নন্দন এই বাগানটি চোখে না দেখলে মনে হবে না সঠিক পরিচর্যা ও সঠিক পরিকল্পনা মানুষকে কত এগিয়ে নিতে পারে। এখানে সুন্দর একটি নার্সারী রয়েছে, যাতে সব ধরনের ফুল ও ফলের চারা পাওয়া যায়। প্রতিদিন এখানে দুর দুরান্ত থেকে অনেক লোকজন আসে এই বাগানটি দেখার জন্য। ২০১০ সালে এ বাগানে চারা রোপন করা হয়। যার বর্তমানে প্রায় ৭০ ভাগ গাছে ফল ধরেছে। এই প্রকল্পের মালিক জানান ৫ম বছর থেকে প্রতি গাছ থেকে ৫’শ থেকে ২ হাজার টাকা এবং পর্যায়ক্রমে প্রতি গাছ থেকে ৫ থেকে ৮ হাজার টাকা আয় করা যাবে। কৃষি বিশেষজ্ঞদের মতে বাংলাদেশের আবহাওয়া সম্পূর্ণ পাম চাষের অনুকুলে। যদি ব্যাপক হারে বাংলাদেশে পাম চাষ করা হয় তবে একদিন বাংলাদেশ মালয়েশিয়ার মত উন্নয়নশীল দেশে পরিনত হবে। বাংলাদেশে বেকারত্ব অনেকাংশে দুর হবে এবং বাংলাদেশের ভোজ্য তেল আমদানিতে বিরাট অংশের টাকা বেঁচে যাবে।

Spread the love