বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৬ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ঘোড়াঘাটে পুজা মন্ডবে দর্শনার্থীদের ঢল

মোঃ আজহারুল ইসলাম সাথী ঘোড়াঘাট (দিনাজপুর)ঃ

দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটে মঙ্গলবার দুর্গাপুজার শেষ দিন। মহা বিজয়া দশমী ও বিসর্জন। মহান দশমী শেষ তিীথীতে দেবীর অর্চনায় উপজেলার প্রতিটি মন্ডবে এমনিই দূশ্য চখে পরে সনাতন ধর্মবলম্বীরদের সবচেয়ে বড় ধমীয় উৎসব শারদীয় দুর্গা পুজা। সকাল থেকে দেবী দুর্গার আগমনী গানে গানে মুখরিত করে তুলেছে প্রতিটি মন্ডিরে। সনাতন ধর্মবলম্বীরদের সর্ববৃহত ধর্মীয় উৎসব প্রতিটি মন্ডবে মানুষের ঢল দেখাগেছে। পরিবার পরিজন ছেলে-মেয়ে নিয়ে মন্ডব গুলোতে ঘুড়ে বেড়াচ্ছে পুর্ণাথীরা, ঢাক ঢোলের কাশির শব্দে মুখোরিত হচ্ছে পুজা মন্ডব এলাকা। রং বে রংয়ের আলোর ঝলকানিতে সাজিয়েছে প্রতিটা মন্ডব, মন্ডবে গুলোতে পরিবেশন হচ্ছে চন্ডীপাঠ, যজ্ঞ পাঠ,সস্কধ্বনি, উলু ধ্বনি, কাচ বাজানো কাশি, সর্বশেষ সাংস্কৃতিক উৎসব আয়োজন করছে। বিহিত  পুজার পর দেবীর আমন্ত্রণ ও অধিবাসের মধ্যেদিয়ে মুল দূর্গোৎসবের সুচনা। আজ দশমী পর্যন্ত চলবে মায়ের পুজা। হিন্দু ধর্মবলম্বীরদের সূত্রে জানা যায়, হিন্দু ধর্মবলম্বীরদের মতে দশভূজা দেবী দুর্গা অসুর বধ করে শাস্তি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে প্রতি শরৎ কৈলাস ছেড়ে কন্যারুপে মর্ত্যলোকে আসেন। সনতানদের নিয়ে পক্ষকাল পিতার গৃহে কাটিয়ে আবার ফিরে যান দেবালয়ে। দেবীপক্ষের শুচনা হয় আশ্বিন শুক্ল পক্ষের অমবস্যার দিন, সে দিন মহালয়। শুক্ল পক্ষের এই ১৫ দিন দেবীপক্ষ মর্ত্যলোকে উৎসব চলে। আজ বিজয়া দশমীতে প্রতিমা বিশর্জনের মধ্য শেষ হবে দূর্গাৎসব। একটি বছরের জন্য দুগতিনাশিনী দেবী ফিরে যাবেন কৈলাসে দেবালয়ে। দশমী বিহিত পুজা ও দর্পন বিষর্জনে শেষ হবে দুর্গোৎসব। ঘোড়াঘাট উপজেলার মোট ৩৪ টি পুজা মন্ডবে দুর্গাপুজা। সবকয়েটি পুজা মন্ডবে শান্তিপুর্ণ ও সুন্দরভাবেই পুজা উদযাপন হচ্ছে। সনাতন ধর্মবলম্বীরদের ধমীয় উৎসবে শারদীয় দুর্গা পুজা উপলক্ষে প্রতিটি মন্দিরে মন্দিরে বসানো হয়েছে মেলা। মেলাতে বসানো হয়েছে বিভিন্ন মিঠানোর দোকা, মনুহারির দোকান, বাচ্চাদের বিভিন্ন খেলার জিনিস পত্রর দোকান। এ পর্যন্ত উপজেলার কোন মন্ডবে অপ্রীতিকার ঘটনার সংবাদ পাওয়া যায়নি। পুজার উৎসবকে সফল করতে নিরাপত্তা সক্রিয় কাজ করছে আইনশূংখলা বাহিনি। সনাতন ধর্মবলম্বীরদের প্রধান এই উৎসবকে ঘিরে প্রাচিন জনপত উপজেলার প্রতিটি অঞ্চলে চলছে উৎসব আমেজ।

Spread the love