রবিবার ৩ মার্চ ২০২৪ ১৯শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ঘোড়াঘাটে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে সাংবাদিক সম্মেলন

ঘোড়াঘাট প্রতিনিধি : দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলার ভর্ণাপাড়া হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোঃ গোলাম মোস্তফা আদালতে তার মণগড়া প্রতিবেদন প্রধান করায় ছেলের অভিবাবক মোঃ ইয়াছিন মিয়া উক্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ঘোড়াঘাট প্রেসক্লাব ও ঘোড়াঘাট সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের কার্যালয়ে সাংবাদিক সম্মলন করেছেন।

 

অভিযোগে জানা যায়, ঘোড়াঘাট উপজেলার ৩নং ইউপি-৭নং ওয়ার্ডের কুমড়ীয়া গ্রামের মৃতু: ইজাদুল হক এর মেয়ে মোছা: তহমিনা আক্তারের সহিত গত ২৭/০৬/২০০৭ ইং তারিখ মুসলিম শরীয়া মোতাবেক একই উপজেলার ৪নং ইউপি-৮নং ওয়ার্ডের চেঁচুড়িয়া গ্রামের মোঃ ইয়াছিন মিয়ার বড় ছেলে মোঃ আমজাদ মিয়ার বিবাহ হয়। বিয়ের পর থেকে তাদের সাংসারিক জীবন সুখের বদলে ছেয়েযায় অশান্তির আগুনে। এই অশান্তির কারনে ৭/৮বার গ্রাম্য চেয়ারম্যান মেম্বার সহ সকলে আপোষ মিমাংসা করিয়ে দিলেও উক্ত তহমিনা বেগম স্বামীর সংসার ছেড়ে বরাবরের মতো তার বাবার বাড়ীতে বসবাস করতে থাকেন। স্বামী তাকে নিজ বাসায় নিয়ে আসতে চাইলে সে আসতে অসম্মত্তি জানায় এবং দাবি করে যে, তার স্বামী আমজাদ মিয়া তার স্ত্রীর সহিত সংসার করতে হলে শুশুরবাড়ীর গ্রামে জায়গা ক্রয় করে বাড়ী নির্মান করে সংসার করতে হবে তা ছাড়া উক্ত তহমিনা বেগম আমজাদ মিয়ার সংসার করবেন না বলে সাফ জানিয়ে দেন। পরবর্তীতে ইউপি-সদস্য সহ সকলে তহমিনা বেগমকে স্বামী সংসারে পূন্যরায় ফিরে পাঠাতে ব্যার্থ হওয়ায় আমজাদ মিয়া তাহার স্ত্রীকে তালাক প্রদান করেন। তালাক প্রদানের পরে তহমিনা বেগম ও তার পরিবার আমজাদ মিয়া এবং তাহার পিতা ইয়াছিন মিয়ার বিরুদ্ধে আদালতে একটি মামলা দায়ের করে মামলা নং-১৪৮ সি/১৪।

 

এই মামলার প্রেক্ষিতে উক্ত ভর্ণাপাড়া হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক গোলাম মোস্তফাকে বিষয়টি তদন্তসাপেক্ষে প্রতিবেদন প্রদানের জন্য আদালত আদেশ প্রদান করিলে তিনি বিষয়টি কোন প্রকার তদন্ত না করে প্রতিবেদন দিয়েছেন বলে সাংবাদিক সহিত কথাবার্তার মাধ্যমে তা প্রকাশ পায়। এই ব্যাপারে ৩নং ইউপির ৭নং ওয়ার্ডে মেম্বার রাজ্জাক মিয়া ও ৪নং ইউপির ৮নং ওয়ার্ডের মেম্বার মোঃ মহাবুর রহমান সাংবাদিককে জানান উক্ত প্রধান শিক্ষক তাকে অথবা গ্রামের কাউকে কোন প্রকার তদন্তের জন্য জিজ্ঞাসাবাদ করেননি।

প্রধান শিক্ষক আরোও বলেন যে, তার হাতে সময় না থাকায় আদালতের ভয়ে-ভীত হয়ে তিনি চটজল্দী প্রতিবেদনটি দিয়ে ফেলেছেন। এই প্রতিবেদনটি প্রদান করা তার ভূল হয়েছে বলে তিনি শিকার করেছেন।

 

ছেলে পিতা ইয়াছিন মিয়ার দাবি অবশ্যই কোন না কোন গোপন মোটা অংকের উৎকচ গ্রহনের মাধ্যমেই প্রধান শিক্ষক গোলাম মোস্তফা তাহার অসহায় পরিবারটিকে চিরতরের জন্য পথের ফকির বানানোর জন্যই এই একক মেয়ের পক্ষে প্রতিবেদন আদালতে প্রদান করেছেন। যে স্ত্রীটিকে আমার ছেলে তার সংসারে বারবার ফিরিয়ে নিয়ে সংসার করার চেষ্টা করেছে তা কুমড়ীয়া ও চেঁচুড়ীয়া গ্রামের সকলেই জানে এর পরেও আমাদের মামলার মাধ্যমে জেল-হাজতে পাঠানোর জন্যই শুধুমাত্র মেয়ে পক্ষ কারী কারী টাকা খরচ করে প্রধান শিক্ষক কর্তৃক প্রতিবেদনটিও তাদের পক্ষে প্রদান করিয়েছেন বলে বৃদ্ধ ইয়াছিন মিয়া কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন ও এর সুষ্ঠ তদন্ত এবং বিচারের জন্য দেশ রত্ন মানেনীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ্ হাসিনা সরকারের নিকট আকুল আবেদন জানিয়েছেন।

 

এই সময় উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক আকাশ, ফরিদুল, ইফতেখার, কদ্দুস, মোফাজ্জল, মজিবর রহমান, রাখু, রেহানা, লতিফ, শিল্পী ও তোজাম্মেল প্রমুখ।

Spread the love