রবিবার ১৪ অগাস্ট ২০২২ ৩০শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঘোড়াঘাটে ৩৬ টি মন্দিরে শারদীয় দুর্গোৎসবের প্রস্ত্ততি

ঘোড়াঘাট (দিনাজপুর) থেকে মোঃ শফিকুল ইসলাম শফিঃ

ঔঁ জয়ন্তি মঙ্গলা কালী, ভদ্র কালী কপালিনী, দূর্গা শিবা ক্ষমা ধাত্রী, স্বাহা স্বধা নমস্ত্ততে। এস স্ব চন্দন পুষ্প বিল্ব পত্রাঞ্জলী নম ভগবতী দূর্গা দেবী নমহ্। তোমার মূতি সব দেবতার শক্তির সংহতি, ত্রিলোকব্যাপিনী হে মহালক্ষী রুপময়ী দেবজ্যোতি। খড়গ শূল চক্র ধনুকে অক্ষমালায় আসিতে, দন্ড পাশ কমন্ডলুতে সাজো ভক্তের প্রীতে, রণসাজে সাজি হও মা ভীষণা অগতির কর গতি। চমকি উঠুক লক্ষবিজলি চৌদিকে আজি উদ্ভাসি, শতধবংসের রণতান্ডবে জয় হুঙ্কারে উল্লাসি। ক্রুদ্ধ ভ্রকুটি রক্তলোচনে দর্পে অট্টহাসিতে, হে ভয়ঙ্করি জাগো দেব অরিমহিষাসুর নাশিতে পূণ্যালোকের হে আশাপূর্ণা অনন্যা ভগবতী। আর কিছুদিনের মধ্যেই সনাতন ধর্মালম্বীদের সববৃহৎ ধমীয় উৎসব শারদীয় দূগাপূজা শুরু হবে। ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে আনন্দ উচ্ছাসে মেতে উঠবে সমগ্র বাঙালি জাতি। ধর্ম যার যার উৎসব সবার। তাইতো আমাদের বাংলার সমাজে যুগযুগ ধরে চলে আসছে এক ধর্মের প্রতি আরেক ধর্মের সৌহাদ্যপূর্ণ আচরণ। এরই ধারাবাহিকতায় ঘোড়াঘাট উপজেলায় সনাতন ধর্মালম্বীদের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় অনুষ্ঠান শ্রী শ্রী শারদীয় দুগোৎসব ঘনিয়ে আসছে। তাইতো হিন্দু ধর্মালম্বীরা শক্তিময়ী, অবিনাশী মাকে বরণ ডালা নিয়ে বরন করার জন্য প্রস্ত্ততি নিচ্ছে সবাই। মা আসছে ধরাতে শান্তি স্থাপনের বার্তা নিয়ে ঘোটকে চড়ে, আর যাবে দোলায় চড়ে, যে বার্তা প্রত্যেকটি মানুষের মঙ্গল কামনায় ব্রত হবে। সনাতান ধর্মালম্বী লোকদের দূর্গাপূজা উপলক্ষ্যে চলছে প্রতিমা তৈরির সমাপনী কাজ। আসন্ন দূর্গাপূজা ঘনিয়ে আসায় প্রতিমা শিল্পীদের চোখের ঘুম, কান্তি ঝেড়ে মনোনিবেশ করেছে প্রতিমা তৈরিতে। একজন প্রতিমা কারিগর একই সাথে অনেক গুলো প্রতিমার কাজ হাতে নেয়ায় ব্যস্ত সময় পার করছে তারা। ৩০ আশ্বিন দেবীর বোধন থেকে ১লা কার্ত্তিক ষষ্ঠী পূজার মধ্য দিয়ে শুরু হবে শারদীয় দূর্গোাৎসব আর শেষ হবে ৪ কার্ত্তিক বিজয়া দশমীর মধ্য দিয়ে। এ লক্ষ্যে পূজাকে সাফল্যমন্ডিত করার জন্য দিনরাত অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছে ঘোড়াঘাট উপজেলার পূজা উদযাপন কমিটির নেতৃবৃন্দ। ঘোড়াঘাট উপজেলা পূজা উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক বাবুল সাহা জানান, এইবার ঘোড়াঘাট উপজেলা ৩টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌর সভা সহ মোট ৩৬ টি পূজা মন্ডবে পূজা অনুষ্ঠিত হবে। সিংড়া ইউনিয়নে ১৭টি, বুলাকীপুর ইউনিয়নে ৫টি, পালশা ইউনিয়নে ২টি এবং ঘোড়াঘাট পৌরসভায় ১২ পুজা মন্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হবে। তবে এর সংখ্যা বাড়তেও পারে। গত বছর ঘোড়াঘাট উপজেলায় পূজা হয়েছে ৩৫টি মন্দিরে। ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রোখছানা বেগম জানান, হিন্দু ধর্মীয় সর্ববৃহৎ শ্রী শ্রী দূর্গাপুজার দিন ঘনিয়ে আসায় উপজেলা ব্যাপী পুলিশি টহল জোরদার করা হবে। এছাড়া পুজা চলাকালীন সময়ে প্রতিটি মন্ডপে বিগত বছরের মত এবারও পুলিশ ও আনসার পাহারা থাকবে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email