বুধবার ২৭ অক্টোবর ২০২১ ১১ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ঘোড়াঘাট পৌরসভা নির্বাচন মনোনয়ন দৌঁড়ে সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থীরা

লোটাস আহম্মেদ, ঘোড়াঘাট (দিনাজপুর) প্রতিনিধি ॥ আগামী ২রা নভেম্বর অনুষ্ঠিত হবে দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট পৌরসভা নির্বাচন। ইভিএম এর মাধ্যমে এবারের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন। তফসিল ঘোষণার পর থেকেই দলীয় মনোনয়ন পেতে তৎপরতা শুরু করেছে সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থীরা। এবারের নির্বাচনে বিভিন্ন দলের ৯ জন সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থী মাঠে নেমেছে।

ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পেতে দৌঁড়ঝাপ শুরু করেছে পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি এবং গত পৌরসভা নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা ইউনূছ আলী মন্ডল, পৌর আওয়ামীলীগের সদস্য আব্দুর রহিম, উপজেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক রবিউল ইসলাম, পৌর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মুরাদ মন্ডল, উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য বিপুল চন্দ্র সরকার এবং পৌর মহিলা যুবলীগের সভানেত্রী নিলুফা জাহান লায়লা।

তবে স্থানীয় আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা বলছে, সম্ভাব্য মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মাঝে যারা মনোনয়ন পাবে না, তাদের অধিকাংশ জন বিদ্রোহী বা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে না।

অপরদিকে অন্যতম আরেক রাজনৈতিক দল বিএনপি মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন বিগত দুইবারের মেয়র ও পৌর বিএনপির সভাপতি আব্দুস সাত্তার মিলন এবং উপজেলা বিএনপির সহ সভাপতি আবুল কালাম আজাদ। তবে বিএনপি ঘোষণা দিয়েছে এবারের পৌরসভা নির্বাচনে তারা অংশগ্রহণ করবে না। ফলে দলীয় প্রতিক না থাকায় সম্ভাব্য এই দুজন প্রার্থী স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে এবারের নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করবে বলে শোনা যাচ্ছে। গত পৌরসভা নির্বাচনেও আব্দুস সাত্তার মিলন দলীয় ধানের শীষ প্রতিকে মেয়র নির্বাচিত হয়েছিলেন।

এছাড়াও বিএনপির অন্যতম জোট শরিক জামায়াতের সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থী পৌর জামায়াতের সাবেক আমির প্রভাষক আব্দুল মান্নান। গত নির্বাচনেও তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন। আরেক রাজনৈতিক দল জাতীয় পার্টির প্রার্থী গত পৌরসভা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করলেও এবারের নির্বাচনে দলটির সম্ভাব্য কোন প্রার্থীর তৎপরতা দেখা যাচ্ছে না।

ঘোড়াঘাট উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবু সাইদ বলেন, “কেন্দ্র থেকে ঘোষণা দিয়েছে এই নির্বাচনে আমরা অংশ গ্রহণ করবো না। তবে ব্যক্তিগত ভাবে দলীয় কেও নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা বা না করার বিষয়ে কোন সিন্ধান্ত দেওয়া হয়নি। উপজেলা বিএনপির পক্ষ থেকে মিটিং ডাকা হয়েছে। সেখানে সিন্ধান্ত হবে যে আমরা কাকে সমর্থন দেব আর কেন দেব। তবে এই নির্বাচনকে ঘিরে জেলা বা কেন্দ্র থেকে আমাদেরকে কোন নির্দেশনা দেওয়া হয়নি।”

এদিকে ঘোড়াঘাট উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাফে খন্দকার শাহানসা বলেন, “শনিবার বিকেলে আমরা সম্ভাব্য দলীয় প্রার্থীদেরকে নিয়ে আলোচনায় বসেছিলাম। সেখানে কোন সমঝোতা হয়নি। রবিবার বিকেলে সম্ভাব্য প্রার্থীদেরকে নিয়ে জেলা আওয়ামীলীগ আলোচনায় বসবে। সেখানেও সমঝোতা না হলে, জেলা থেকে সম্ভাব্য মনোনয়ন প্রত্যাশীদের তালিকা কেন্দ্রে পাঠানো হবে এবং কেন্দ্রীয় মনোনয়ন বোর্ড সিন্ধান্ত নেবে কাকে দলীয় প্রতীক দেওয়া যায়।”

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email