মঙ্গলবার ৪ অক্টোবর ২০২২ ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঘোড়াঘাট হাসপাতালে সমস্যা অনিয়ম দূর্ণীতির বেড়াজালে হাসপাতালটি নিজেই রোগী

দিনাজপুর প্রতিনিধি : দিনাজপুর জেলার ঘোড়াঘাট হাসপাতালে হাজারো সমস্যা। ডাক্তারের স্বেচ্ছাচারিতা আর ব্যাপক অনিয়ম ও দূর্ণীতির বেড়াজালে হাসপাতালটি নিজেই এখন এক মূমুর্ষ রোগীতে পরিনত হয়েছে। হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা বলতে এখন কিছুই নেই। সামর্থবান আর ক্ষমতা ধর কিছুটা চিকিৎসা সুবিধা পেলেও অসহায়, হতদরিদ্র ও গরীব রোগীরা হাসপাতালে এসে চরম হয়রানীর স্বীকার হন। পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার জন্য কর্মচারী ২জন, হাসপাতালের মধ্যে কর্মরত আছে  ১জন। ফলে নোংরা পরিবেশে রোগীরা আরও রোগী হয়ে পড়েন। বর্তমানে ঘোড়াঘাট হাসপাতালে যে কয়জন ডাক্তার কর্মরত আছেন তারা সবাই প্রাইভেট চিকিৎসা নিয়ে ব্যস্ত থাকেন। আর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা  ডাঃ শামসুর রহমান কাজল ঘোড়াঘাট  হাসপাতাল সংলগ্ন উত্তর পার্শ্বে সিটি ডায়াগনস্টিক সেন্টারে সব সময় ব্যস্ত থাকেন ও আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ নুর নেওয়াজ আহমেদ হাসপাতাল চত্বরে সরকারী বাসভবনে ক্লিনিক খুলে প্রাইভেট চিকিৎসা নিয়ে ব্যস্ত রয়েছেন। ডাক্তারদের স্বেচ্ছাচারিতায়  চিকিৎসা সুবিধা থেকে বঞ্চিত হওয়ার কারনে রোগীদের যেতে হয় রংপুর, দিনাজপুর, বগুড়া, জয়পুরহাট সহ বিভিন্ন হাসপাতালে। উপজেলার ২ লক্ষাধিক মানুষের সরকারীভাবে চিকিৎসার একমাত্র প্রতিষ্ঠান ঘোড়াঘাট হাসপাতালে নিয়োজিত ডাক্তারগণের দায়িত্ব ও কর্তব্যে  পুকুর চুরির কারনে ভর্তিকৃত রোগীদের দূর্ভোগ চরমে পৌচ্ছে গেছে। কর্তব্য ফাঁকি রেওয়াজ নিয়মমাফিক হওয়ায় হাসপাতালে ভর্তি ছাড়াও প্রতিদিন প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে আসা রোগ ব্যাধিতে আক্রান্ত শত শত রোগী ঘন্টার পর ঘন্টা তীর্থের কাকের মত দাড়িয়ে অপেক্ষা করে ডাক্তারদের দর্শন না পেয়ে ফেরত যেতে হয়। উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের দেয়া তথ্যে জানা গেছে, ঘোড়াঘাট হাসপাতালে ৯ জন ডাক্তারের স্থলে ৩জন ডাক্তার নিয়োজিত রয়েছেন। সরকারী ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক বেঁধে দেয়া সময়ের মধ্যে কোন ডাক্তার হাসপাতালে আসে না। কর্তব্যরত ডাক্তারদের সকাল ৮টার মধ্যে হাসপাতালে হাজির হওয়ার কথা থাকলেও কোন ডাক্তার সময়মত হাজির না হয়ে নিজেদের বাসায় ও চেম্বারে প্রাইভেট রোগীদের নিয়ে ব্যস্ত থাকেন।

দেখা যায়, ১১টা থেকে ১২টার সময় কর্তব্যরত  ডাক্তারা হাসপাতালে হাজির হন। হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর  করে অফিসে  বিশ্রাম এবং বারান্দায় পায়েচারী করে দ্রুত প্রাইভেট রোজগারে বেরিয়ে পড়েন। ডাক্তারদের এই কর্তব্য  ফাঁকি নিত্য দিনের ঘটনা। ডিউটি ফাঁকির ঘটনা শুধু শুধু উপজেলার সচেতন মহল আর আগত রোগীদের জানা নয়, স্বাস্থ্য বিভাগের জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ে  চেয়ারে বসা কর্তা বাবুরাও জানেন।

জানা যায়, কর্তব্যে পুকুর চুরিতে যে কজন ডাক্তারের নাম সব সময় আলোচিত তারা হচ্ছেন, স্বাস্থ্য কর্মকর্তা  ডাক্তার শামসুর রহমান কাজল ও আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ নুর নেওয়াজ। স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ও আবাসিক মেডিকেল অফিসার সিটি ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও সরকারী বাসভবনে আলীশান চেম্বার খুলে বসে প্রাইভেট চিকিৎসায় ব্যস্ত থাকেন। তারা ২৪ ঘন্টার মধ্যে ১৮ ঘন্টায় আলীশান চেম্বারে বসে শত শত রোগীর চুক্তিভিত্তিক চিকিৎসা করে অর্থ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। ঘোড়াঘাট হাসপাতালে কর্তব্যরত ডাক্তারদের ডিউটি ফাঁকি অবসান চায় এলাকাবাসী। ভর্তিকৃত রোগীর প্রতিদিন ৯০ টাকা খাদ্য বরাদ্দ থাকলেও তা দেয়া হয় না। গর্ভবতী রোগী হাসপাতালে আসলে নার্সরা চুক্তিভিত্তিক ২/৩ হাজার টাকা করে হাতিয়ে নেয়।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email