শুক্রবার ২৮ জানুয়ারী ২০২২ ১৪ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ঘোড়া দিয়ে চাষ করে জীবিকার চাকা ঘোরাচ্ছেন নজু

মো. রফিকুল ইসলাম, চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: ঘোড়া ও ঘোড়ার গাড়ি একটি প্রাচীনতম বাহন। এক সময় ওই বাহন অর্থাৎ ঘোড়া ও ঘোড়ার গাড়িতে চড়ে রাজা-বাদশাহ্রা দেশ শাসন করতেন। যুদ্ধক্ষেত্রেও ঘোড়া ব্যবহার হতো। সেই আদিকাল থেকেই কৃষি কাজে ঘোড়ার ব্যবহার হয়ে আসছে। ঘোড়ার পাশাপাশি গরু-মহিষও ব্যবহার হতো। কৃষকরা গরু-মহিষ দিয়ে হালচাষ করতো। কিন্তু কালের বিবর্তনে ঐতিহ্যবাহী গরু-মহিষের হাল আজ বিলুপ্তির পথে। গরু-মহিষের হাল তেমন আর চোখে পড়ে না। সময়ের পরিবর্তনের সাথে সাথে কৃষিক্ষেত্রে এসেছে আমুল পরিবর্তন। বর্তমানে কৃষকরা পশু দিয়ে চাষাবাদ না করে উন্নতমানের যান্ত্রিক প্রযুক্তির সাহায্যে জমি হালচাষ করছেন। এখন জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে পাওয়ার টিলার ও ট্রাক্টর দিয়ে জমি চাষ। কারণ এতে অল্প সময়ে অধিক জমি চাষাবাদ করা সম্ভব হয়।
তবে ডিজিটাল প্রযুক্তির যুগে এসেও বর্তমানে ঘোড়া দিয়ে হাল চাষ করে জীবিকা নির্বাহ করছেন দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার ঈসবপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ নগর গ্রামের ছাকাপাড়ার মো. নজরুল ইসলাম ওরফে নজু (৫০)। তিনি ১ ছেলে ও ৩ মেয়ের জনক। ছেলেমেয়েদের বিয়ে দিয়েছেন তিনি। তারাও পৃথক। তাঁর নেই নিজস্ব কোন জমিজমা। জীবিকা নির্বাহে তাঁর একমাত্র ভরসা দু’টি ঘোড়ার একটি হাল। এ ঘোড়ার হাল দিয়েই তিনি ঘোরাচ্ছেন তাঁর জীবিকার চাকা। ঘোড়াই তাঁর হালগরু। ঘোড়ার হাল দিয়ে অন্যের জমিচাষ করে যা উপার্জন হয় তা দিয়েই সংসারের সকল চাহিদা পুরণ করছেন নজু। তিনি তাঁর ঘোড়ার হাল দিয়ে ইরি-বোরো জমিতে চাষাবাদ করছেন। তিনি ঘোড়া দিয়ে মানুষের ইরি-বোরো জমিচাষ ও মই দিয়ে চাষে সহায়তা করছেন। এতে করে তিনি প্রতিবিঘা এক চাষে ৫০০ টাকা করে নেন। তিনি জানান-প্রতিদিন সকাল থেকে শুরু করে সকালের নাস্তা খাওয়া পর্যন্ত ১-২ বিঘা জমি চাষ করা যায়। এছাড়াও তিনি অন্য সময়েও হালচাষ বা জমিতে মই দেন। এতে করে তাঁর এক থেকে দেড় হাজার টাকা আয় হয়। প্রতিদিন তার ঘোড়ার খাদ্য বাবদ ৫০০ টাকা ব্যয় হয়। হালচাষ বা জমিতে মই দিয়ে যা পাই তাই দিয়ে সংসার ভালোই চলে।
তিনি আরো জানান, ঘোড়া দিয়ে জমিচাষ ও মই দেয়ার জন্য প্রতিদিন তাঁর ঘোড়ার হালের চাহিদা বৃদ্ধি পাচ্ছে। বর্তমানে অনেক কৃষক জমিতে কলের লাঙল পাওয়ার টিলার দিয়ে জমিচাষ করে থাকেন। এমন পরিস্থিতিতে তাঁর এ পেশায় অনেকটা স্বস্তি পেয়েছেন এলাকার কৃষকরা।
কৃষক আবুল কাশেম ও বাবলুর রহমান বাবলু বলেন, তাদের এলাকায় বড় কোনো গরু-মহিষ নেই। তাঁর ঘোড়া দিয়েই তাদের জমিগুলোতে মই দিতে হয়।
চিরিরবন্দর সরকারি ডিগ্রি কলেজের বিএসসি দ্বিতীয়বর্ষের ছাত্র মো. সাব্বির রুম্মান বলেন, আমরা এতদিন জানতাম-ঘোড়দৌঁড় প্রতিযোগিতা, ঘোড়ার গাড়ির সৌখিনতার কথা। শখের বসে ঘোড়া লালন-পালন করে মানুষ এদিক-সেদিক যান। সৌখিন মানুষরা ঘোড়ার গাড়িতে বসে সময় কাটাতেও পছন্দ করেন। আবার মালামাল টানতেও ঘোড়ার গাড়ি ব্যবহার হয়। কিন্তু ঘোড়া দিয়ে জমিতে হালচাষ করা তেমন একটা দেখা যায় না।
চিরিরবন্দর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ জোহরা সুলতানা জানান, কৃষকরা এখন যান্ত্রিক উপায়ে জমিচাষ করেন। সময়ের পরিবর্তনের সাথে সাথে ঘোড়ারগাড়িও উঠে গেছে। ঘোড়া দিয়ে হালচাষ করা দুর্লভ একটি বিষয়। এটা পারসেনট্রিন মধ্যে পড়ে না। কৃষি বিভাগ আধুনিক মানের যন্ত্রাংশ ব্যবহার করে চাষাবাদ করার জন্য কৃষকদের উৎসাহ দিচ্ছে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email