সোমবার ১৫ অগাস্ট ২০২২ ৩১শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জেলায় মানবিক চার নারী ইউএনও

একরাম তালুকদার ॥ দিনাজপুর জেলার ১৩টি উপজেলার মধ্যে চারটি উপজেলায় দায়িত্ব পালন করছেন চারজন নারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। নারী হলেও স্ব-স্ব উপজেলায় তারা দায়িত্ব পালন করছেন সু-চারুভাবেই এবং সাহসিকতার সাথে। নিজ নিজ দায়িত্ব পালনকালে তারা প্রমাণ করেছেন-সমাজে নারীরাও কোন অংশে কম নয়। প্রতিবেদকের সাথে আলাপকালে তারা জানান, ইউএনও হিসেবে দায়িত্ব পালনকালে তাদের চিন্তা-চেতনার কথা।
ছন্দা পাল
বোচাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার

২০২০ সালের ৫ জুলাই থেকে দিনাজপুরের বোচাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত রয়েছেন ছন্দা পাল।
ছন্দা পাল-এর জন্ম খুলনা শহরে। তিনি খুলনা করনেশন স্কুল থেকে এসএসসি, খুলনা সরকারী মহিলা কলেজ থেকে এইচএসসি এবং খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (কুয়েট) থেকে ইলেকট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং-এ অনার্স ও মাষ্টার্স করেন।
৩১ তম বিসিএস-এ তিনি গণপুর্ত ক্যাডারে চাকুরীতে প্রবেশ করেন। এরপর ৩৩ তম বিসিএস-এ প্রশাসন ক্যাডারে উত্তীর্ণ হয়ে ২০১৪ সালের আগষ্ট মাসে তিনি রংপুর জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে সহকারী কমিশনার হিসেবে যোগদান করেন। পরবর্তীতে তিনি রংপুর সদর উপজেলায় সহকারী কমিশনার (ভুমি) হিসেবে কর্মরত ছিলেন। এরপর কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট হিসেবে কর্মরত ছিলেন। সবশেষ ২০২০ সালের ৫ জুলাই তিনি দিনাজপুরের বোচাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেন।
নারী হিসেবে ইউএনও পদে দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে তিনি বলেন, কোন কাজেই তিনি কোন প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হননি। তিনি বলেন, এখানে দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে তিনি স্থানীয় সাংসদ নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরীসহ উপজেলার সকল বিভাগের কর্মকর্তা ও কর্মচারীর সহযোগিতা পেয়েছেন এবং পাচ্ছেন। এ জন্য তিনি প্রশাসনিক এই দায়িত্ব পালনে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করছেন। একজন নারী ইচ্ছা করলেই সব কাজ ভালোভাবে করতে পারে উল্লেখ করে তিনি বলেন, একসময় নারী-পুরুষের বিভেদ থাকলেও এখন আর তা নেই। প্রশাসনিক কাজের পাশাপাশি সমাজে মেয়েদের অধিকার নিশ্চিত করার প্রত্যয় নিয়ে কাজ করছেন বলে জানান তিনি।

আয়েশা সিদ্দীকা
চিরিরবন্দর উপজেলা নির্বাহী অফিসার

দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে ২০১৯ সালের ১৯ নভেম্বর থেকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন আয়েশা সিদ্দীকা। জন্ম শরীয়তপুর জেলার জাজিরা উপজেলায় হলেও বড় হয়েছেন ঢাকাতেই।
ময়মনসিংহ ক্যাডেট কলেজ থেকে এসএসসি ও এইচএসসি পাশ করার পর আয়েশা সিদ্দীকা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরোজীতে অনার্স ও মাস্টার্স সম্পন্ন করেন। এরপর ডেইলী সান ও ফিনান্সিয়াল এক্সপ্রেস পত্রিকায় সাংবাদিকতা করেন তিনি। পরবর্তীতে ৩১ তম বিসিএস-এ প্রশাসন ক্যাডারে উত্তীর্ণ হয়ে ২০১৩ সালে কুমিল্লা কালেক্টরেট-এ সহকারী কমিশনার হিসেবে যোগদান করেন তিনি। এরপর ঢাকার মিরপুর সার্কেল-এ সহকারী কমিশনার (ভুমি) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন আয়েশা সিদ্দীকা। সবশেষ ২০১৯ সালের ১৯ নভেম্বর দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেন তিনি।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালনের অভিজ্ঞতা প্রসঙ্গে আয়েশা সিদ্দীকা বলেন, নারী হিসেবে প্রশাসনিক এই দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে এখন পর্যন্ত কোন সমস্যার সম্মুখীন হইনি । তিনি বলেন, প্রশাসনিক কাজের ক্ষেত্রে নারী-পুরুষের কোন ভেদাভেদ নেই। কারন একজন পুরুষ প্রশাসনের যেসব কাজ করতে পারে, নারীরাও তার চেয়ে কোন অংশেই কম করতে পারে না। তিনি বলেন, নারী হিসেবেও তিনি রাত-দিন কাজ করে থাকেন। ক্যাডেট কলেজ থেকে পাশ করায় প্রশাসনিক দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে অনেক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে তার সহজ হয়েছে। সৃষ্টিশীল চিন্তাচেতনা নিয়ে কাজ করলে প্রতিটি কাজই ভালোভাবে করা যায়। এই চিন্তা চেতনা নিয়েই দায়িত্ব পালন করছেন তিনি।

রাশিদা আক্তার
খানসামা উপজেলা নির্বাহী অফিসার

দিনাজপুরের খানসামা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে ২০২১ সালের ২৮ অক্টোবর থেকে কর্মরত রয়েছেন রাশিদা আক্তার। বাড়ী মুন্সীগঞ্জ জেলার টঙ্গীবাড়ী উপজেলায়।
রাশিদা আক্তার টঙ্গীবাড়ী উপজেলার ব্রাক্ষ্মনভিটা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি, মুন্সীগঞ্জ জেলার সরকারী হরগঙ্গা কলেজ থেকে এইচএসসি এবং ঢাকার তিতুমীর কলেজ থেকে উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগে স্নাতক (সম্মান) ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জন করেন। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ২০০৫ সালে উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগে সারাদেশের মধ্যে সপ্তম স্থান অধিকার করেন তিনি। এরপর তিনি বিএড এবং এমএড ডিগ্রীও অর্জন করেন।
৩১ তম বিসিএস-এ প্রশাসন ক্যাডারে উত্তীর্ন হয়ে প্রথমে রাজশাহী কালেক্টরেট-এ যোগদান করেন রাশিদা বেগম। চার বছর সেখানে কর্মরত থাকার পর মানিকগঞ্জে সহকারী কমিশনার (ভুমি) হিসেবে যোগদান করেন। পরবর্তীতে ঢাকায় বিএসটিআই’র নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি। এরপর গত ২০২১ সালের ২৮ অক্টোবর দিনাজপুরের খানসামা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেন রাশিদা বেগম।
একটি উপজেলার নির্বাহী প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালনের অভিজ্ঞতা হিসেবে রাশিদা আক্তার বলেন, সমাজে নারীর আর পিছিয়ে নেই। একজন পুরুষ যেভাবে দায়িত্ব পালন করে থাকেন, তার থেকে কোন অংশেই তারা কম দায়িত্ব পালন করেন না। তিনি বলেন, নারী হিসেবে এই দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে তিনি কখনই কোন প্রতিবন্ধকতার শিকার হননি, বরং সকলের সহযোগিতাই পেয়েছেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে প্রতিটি কাজ সময়মতো করতে পেরে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন এই নারী কর্মকর্তা।

মোছাঃ আফছানা কাওছার
বিরল উপজেলা নির্বাহী অফিসার

মোছাঃ আফছানা কাওছার। চলতি মার্চ মাসের ৬ তারিখে দিনাজপুরের বিরল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেছেন তিনি। এর আগে ওই উপজেলায় পর পর দুবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ছিলেন নারী। বিরলে টানা তৃতীয়বারের মতো নারী ইউএনও হিসেবে যোগদান করেন তিনি।
মোছাঃ আফছানা কাওছার-এর বাড়ী নীলফামারী জেলার ডিমলা উপজেলায়। ডিমলা থেকে তিনি এএসসি পাশ করেন। এরপর রংপুর ক্যান্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ থেকে এইচএসসি এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগে অনার্স ও মাষ্টার্স করেন তিনি।
৩৩ তম বিসিএস-এ প্রশাসন ক্যাডারে উত্তীর্ন হয়ে তিনি প্রথমে সাতক্ষীরা ও পরে গাজীপুর কালেক্টরেট-এ সহকারী কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। পরবর্তীতে ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলায় সহকারী কমিশনার (ভুমি) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি। এরপর তিনি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষে কর্মরত ছিলেন। এরপর ৬ মার্চ বিরল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেন মোছাৎ আফছানা কাওছার।
মোছাঃ আফছানা কাওছার বলেন, একজন নারী হিসেবে প্রশাসনিক এই দায়িত্ব পালন করা একটি চ্যালেঞ্জ। কারন একজন নারীকে সোসাইটি ও ফ্যামিলি মেইনটেইন করেই প্রশাসনিক এই দায়িত্ব পালন করতে হয়। সেই হিসেবে একজন পুরুষের চেয়ে নারীকে অনেক বেশী দায়িত্ব পালন ও পরিশ্রম করতে হয়। এক্ষেত্রে পরিবারের অনেক সাপোর্ট দরকার। যেটা তিনি পাচ্ছেন বলেই, ভালোভাবে তার উপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করতে পারছেন। তিনি বলেন, অনেক চ্যালেঞ্জ থাকলেও এখন নারীদের জন্যও প্রশাসনিক এই দায়িত্ব পালন করা অনেকটাই সহজ হয়েছে। আফছানা কাওছার বলেন, অনেক দায়িত্ব পালন করার পরও অনেক ক্ষেত্রেই নারীরা ভালো করছেন। প্রশাসনিক এই দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে নারীর ক্ষমতায়নের ধারাবাহিকতা রক্ষায় কাজ করবেন বলে জানালেন তিনি।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email