শুক্রবার ২৮ জানুয়ারী ২০২২ ১৪ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

চিত্ত ঘোষ আমাদের একজন আইকন সাংবাদিক

চিত্ত ঘোষ আমাদের একজন আইকন সাংবাদিক। সাংবাদিকতার পাশাপাশি নানাবিধ সামাজিক কর্মযজ্ঞে জড়িত। ধর্মকর্মে নিবেদিত প্রাণ। ১০ জানুয়ারি তাঁর সাথে কালের কন্ঠ পত্রিকার যুগপূর্তি অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছিলাম। ১১ জানুয়ারি দেশবার্তা অফিসে বসে গল্প করেছি। ১২ জানুযারি দেশবার্তা অফিসে গিয়ে জানলাম তিনি অসুস্থ্য! সেদিন সানন্দার প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর খাওয়া-দাওয়া চলছিল। কিন্তু তাঁকে প্রোগামে দেখা গেল না। শব্দস্বরের পক্ষ হতে তাঁকে দাওয়াত কার্ড দিতে এসেছিলেন কবি লালমিয়া। কিন্তু চিত্তদাকে তিনি পেলেন না। দাওয়াত কার্ড দেশবার্তার টেবিলে রেখে দিলেন। তখনো কম্মিনকালেও ধারণা করিনি যে, চিত্তদা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। কিন্তু তিনি নিজেই ফেসবুক আইডিতে লিখলেন “ধরা পড়ে গেছি।” চিত্তদা করোনায় ধরা পড়েছেন, এটা জানলাম ১৩ জানুয়ারি। সেদিন আরেকটা খবর জানলাম যে, দেশবার্তার আরেক কর্মী প্লাবন জ্বরে আক্রান্ত। ১৪ জানুয়ারি অর্থাৎ আজ দুপুরে জানলাম, প্লাবনও করোনায় আক্রান্ত।করোনা এখন দ্রুত ছড়িয়ে যাচ্ছে। ক্রমাগতভাবে ভয়াবহ হয়ে উঠছে এই ভাইরাস। চিত্তদা এবং প্লাবন এখন আক্রান্ত। আরো কে যে আক্রান্ত হবেন জানি না। তবে সবাইকে সতর্ক হতে হবে। সাহসের সাথে করোনা মোকাবেলা করতে হবে। আর এটি মোকাবিলার সবচেয়ে প্রধানতম মাধ্যম হলো নাকে মুখে মাস্ক পরিধান করা। এরপর আছে সাবান দিয়ে হাত ধোয়া, নিজেকে সর্বদা পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখা, ভিড় এড়িয়ে চলা, একজনের সাথে আরেকজনের দূরত্ব বজায় রাখা। সবার প্রতি আহ্বান, দ্রুত আরোগ্য লাভের জন্য চিত্তদা ও প্লাবনের জন্য আশির্বাদ-দোয়া করবেন। আর নিজেদেরকে সুরক্ষিত রাখার জন্য মুখে মাস্ক পড়ে চলাফেরা করবেন। হাত ধোয়া ও পরিচ্ছন্নতা থেকেও নিজেকে দূরে রাখবেন না। সবাই ভাল থাকুন। টিকা না নিলে দ্রুত নিয়ে নিন। চিত্তদা ও প্লাবনের জন্য শুভ কামনা রইল। মহান সৃষ্টিকর্তা তাদেরকে দ্রুত আরোগ্য করে তুলবেন এই প্রার্থনা করি।

লেখক-আজাহারুল আজদ জুয়েল

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email