শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

চিন্তার বিপরী‌তে অবস্হান নেয়া‌ কি নৈ‌তিকতার বিপরী‌তে অবস্হান নেয়া নয়?

খেলার মাঠগু‌লো বিলুপ্ত হ‌য়ে যা‌চ্ছে ব‌লে এন্তার অ‌ভি‌যোগ বি‌শেষত শহু‌রে মানুষ‌দের। শিশু‌দের নির্মল বি‌নোদ‌নের জন্য খেলার মাঠ বা পার্কগু‌লোর কোন বিকল্প আস‌লেই নেই। শিশু‌দের মান‌সিক বিকাশ, তা‌দের আত্ম‌বিশ্বাস বৃ‌দ্ধি বা আগামী বাংলা‌দে‌শের শক্ত ক্রিড়া-ভি‌ত্তির জন্য মা‌ঠে শিশু‌দের নিয়‌মিত ও পর্যাপ্ত উপ‌স্হি‌তি নি‌শ্চিত কর‌তেই হ‌বে। আর সেজন্য খেলার মাঠ দরকার।
সুতরাং যেভা‌বে খেলার মাঠগু‌লো বে‌নিয়া‌দের দখ‌লে চ‌লে যা‌চ্ছে আর সেটা নি‌য়ে শহু‌রে মানুষ‌দের যে উ‌দ্বেগ তার বিপ‌রি‌তে অবস্হান নেয়ার সু‌যোগ আস‌লেই নেই।
একসময় এ বিষয়‌টি ভাবাই যেত না যে এক‌টি শিক্ষা প্র‌তিষ্ঠান গ‌ড়ে উঠ‌বে অথচ সেখা‌নে শিক্ষার্থী‌দের জন্য এক‌টি খেলার মাঠ থাক‌বে না। আজকাল সেই কন‌সেপ্টটা‌কে দু‌রে স‌রি‌য়ে রে‌খে ক্রমাগত গ‌ড়ে উঠ‌ছে অসংখ্য শিক্ষা প্র‌তিষ্ঠান। যেন শিক্ষা মা‌নেই পু‌থীগত শিক্ষা। অ‌ভিভাবকরাও বাচ্চা‌দের ভ‌বিষ্য‌তের বিষয়টা মাথায় রে‌খে ব্যাপার‌টি‌কে অব‌লিলায় মে‌নে নি‌চ্ছেন।

অ‌ভিভাবক‌দের এই মে‌নে নেয়ার বিষয়‌টি‌কে মূখ্য ধ‌রে বরং আ‌লোচনাটা‌কে এ‌গি‌য়ে নেয়া যায়। যে অ‌ভিভাবক খেলার মাঠ বিলু‌প্তির ভয়াবহতা আঁচ ক‌রে আ‌ক্ষেপ কর‌ছেন সেই তিনিই তাঁর সন্তা‌নের দৈন‌ন্দিন রু‌টি‌নে খেলার জন্য কোন সময় বরাদ্দ রাখ‌ছেন না। এবং খেয়াল ক‌রে দেখুন এটা তি‌নি কর‌ছেন স্বজ্ঞা‌নে কোন রকম আ‌ক্ষেপ ছাড়াই।

মহানগরগু‌লো‌কে পা‌শে স‌রি‌য়ে রে‌খে য‌দি দৃ‌ষ্টিটা‌কে আমরা মফস্বল শহরগু‌লোর দি‌কে ফেরাই একটু অবাকই হ‌বেন তাহ‌লে। এখা‌নে অ‌নেক মাঠ আ‌ছে কিন্তু মা‌ঠে খেলা নেই। বিষয়‌টির সত্যতা যাচাই করার জন্য খুব বেশী প‌রিশ্রম করার দরকার নেই। বি‌কে‌লে একটা রিক্সা নি‌য়ে বে‌ড়ি‌য়ে আসুন আপনার শহরটার উভয় প্রান্ত। আ‌মি নি‌শ্চিত আপনার বো‌ধে জন্ম নে‌বে নতুন অনুভু‌তি। মাঠগু‌লো‌কে যে একদম শুন্য পা‌বেন তা হয়ত নয়। দেখ‌বেন কিছু ছিন্নমুল শিশু‌দের দাপাদা‌পি। ওরা কেউ ছাল ওঠা ফুটবল সাদৃশ্য একটা কিছু নি‌য়ে মে‌তে আ‌ছে অথবা হা‌তে বানা‌নো কা‌ঠের ব্যাট দি‌য়ে টে‌নিস ব‌লে মার‌ছে চার ছক্কা।
তা‌কি‌য়ে দেখুন ও‌দের চো‌খের দি‌কে সেখা‌নে কোন স্বপ্ন খুঁ‌জে পা‌বেন না আপ‌নি। স্বপ্নহীন অসহায় বালক‌দের দখ‌লে মা‌ঠের খা‌নিকটা অংশ। বাকী অংশ দখ‌লে নি‌য়ে‌ জ‌ম্পেস আড্ডা চল‌ছে বখা‌টে দুলাল‌দের, উঠ‌তি যুবক-যুব‌তি‌দের, ফুচকা-চটপ‌টিয়ালা‌দের। সন্ধ্যা পরবর্তী এসব মা‌ঠের দৃশ্য আরও ভয়াবহ। সে গল্পও কিন্তু খুব সু‌খের গল্প নয়। সন্ধ্যার অন্ধকা‌রে তখন মা‌ঠের দখল চ‌লে যায় অন্ধকা‌রের প‌থে হাঁটা যুবক‌দের হা‌তে।

‌বিত্তবান‌দের সন্তা‌নেরা খেল‌তে চায়না। তা‌দের পিতারাও চান না ছে‌লে মা‌ঠে যাক। মধ্য‌বি‌ত্তের সমস্যা আরও প্রকট। না ঘরকা না ঘাটকা। ছে‌লে মা‌ঠে না গে‌লে চি‌ত্তের বিকাশ ঘট‌বে না এটা যেমন জা‌নেন তাঁরা, মা‌ঠে পাঠা‌লে আবার সেটা হ‌বে উপযুক্ত শিক্ষা অর্জ‌নের ক্ষে‌ত্রে বড় অন্তরায়- এ ভাবনাও ছা‌ড়েনা তাঁ‌দের। এ উভয় সমস্যার দোলাচ‌লের ফাঁক গ‌লে সুরসুর ক‌রে মা‌ঠে ঢু‌কে প‌ড়ে পথক‌লি অনা‌থেরা। তাহ‌লে আসুন ও‌দের চো‌খ স্ব‌প্নে ভ‌রি‌য়ে দেই।
গ্যাড়াকল! নি‌শ্চিত জা‌নি এ দা‌য়িত্ব কেউ নে‌বেনা। না উচ্চবিত্ত না মধ্য‌বিত্ত।
বলুন তাহ‌লে মা‌ঠের কি দরকার! চিন্তার জগ‌তে মা‌ঠের কোন প্র‌য়োজ‌নীয়তা নেই কিন্তু কথায় ঝ‌ড়ে পড়‌ছে মায়াকান্না- মা‌ঠের জন্য আকু‌তি!

‌চিন্তার বিপরী‌তে অবস্হান নেয়া‌ কি নৈ‌তিকতার বিপরী‌তে অবস্হান নেয়া নয়?

 

লেখক- সুভাষ দাশ, কলামিষ্ট ও রাজনীতিবিদ

বীরগঞ্জ, দিনাজপুর

Spread the love