শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

চিরিরবন্দরের কৃষকরা ধানক্ষেতে পোকা দমনে পার্চিং পদ্ধতিতে সুফল পাচ্ছেন

মো. রফিকুল ইসলাম, চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: চিরিরবন্দর উপজেলার কৃষকরা ধানক্ষেতে চলতি মৌসুমে কীটনাশক প্রয়োগ না করে ক্ষতিকর পোকা মাকড় দমনে প্রাকৃতিক ও কৃষি বান্ধব পার্চিং পদ্ধতি ব্যবহার করে সুফল পাচ্ছেন। ক্ষেতের ক্ষতিকর পোকা মাকড় তাড়াতে এক সময় ক্ষেতের মধ্যে পাখি বসার স্থান হিসেবে বাঁশের কঞ্চি ব্যবহার করা হলেও এখন জমিতে লাগানো হচ্ছে ফলন সাশ্রয়ী ও পরিবেশ বান্ধব আফ্রিকান ধৈঞ্চা গাছ। যা জীবন্ত পার্চিং হিসেবে পরিচিত। এ পদ্ধতি উপজেলার কৃষকদের মাঝে ব্যাপক জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। স্থানীয় কৃষি বিভাগের পরামর্শক্রমে কৃষকরা তাদের ধানক্ষেতে কীটনাশক প্রয়োগ না করে ক্ষতিকারক পোকা মাকড় দমনে ধৈঞ্চা গাছের জীবন্ত পার্চিং ও ডেড পার্চিং পদ্ধতি ব্যবহার করে সাফল্য পেয়েছেন। বিপন্ন পরিবেশ ও জনজীবন রক্ষায় ধানক্ষেতে কীটনাশকের পরিবর্তে কীটপতঙ্গভুক্ত পাখিদের দ্বারা কৃষিজাত ফসলের রোগবালাই দমনে ক্ষেতের মাঝে বাঁশের কঞ্চি, গাছের ডাল ও ধৈঞ্চাগাছ বপন করছেন।
সরেজমিনে উপজেলার সাঁইতাড়া, খোচনা, আলোকডিহি, সাতনালা গ্রামে ধানক্ষেতগুলোতে গিয়ে দেখা যায়, ক্ষেতে পাখি বিভিন্ন বিষাক্ত পোকা মাকড় খাচ্ছে এবং পার্চিং করা খুঁটি ও ধৈঞ্চা গাছে গিয়ে বসে আশ্রয় নিচ্ছে। পাখিগুলো মূলত ধানের ক্ষতিকর মাজরা পোকা, পোকার ডিম খেয়ে পোকার বংশ বিস্তার ধ্বংস করছে। পাখিগুলো ধানের পাতা মোড়ানো, সবুজ পাতা মোড়ানো ফড়িং ও সাদা ফড়িং এবং আক্রমণ থেকে রক্ষা করে। কৃষক আফজাল হোসেন, আজিজুল ইসলাম, আমির আলী, আনোয়ার হোসেন, সাইদুর রহমান, ফরমান আলী, পংকজ কুমার দাস, আকরামসহ আরো অনেকে জানান, জীবন্ত পার্চিং পদ্ধতি সম্পর্কে বুঝানোর সময় আমরা কোন কিছুই বুঝিনি এবং গুরুত্বও দেইনি। পরে এ পদ্ধতির গুণাগুণ দেখে আমরা বিস্মিত হই। অন্যের দেখে তারা এ বছর স্ব-উদ্যোগে এ পদ্ধতি অনুসরণ করছেন।
উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, চলতি রোপা আমন মৌসুমে উপজেলায় ২৩ হাজার ৬১ হেক্টর জমিতে রোপা আমন চাষ করা হয়েছে। যার মধ্যে কৃষকেরা ১৬ হাজার ৫শ’ হেক্টর জমিতে জীবন্ত পার্চিং ধৈঞ্চা গাছের চারা রোপণ ও ৬ হাজার ৫৬১ হেক্টর জমিতে ডেডপার্চিং’র ব্যবস্থা করেছে। যা গত বছরের তুলনায় দ্বিগুণ।
উপজেলা কৃষি অফিসার মো. মাহমুদুল হাসান জানান, ধানক্ষেতে সবুজের মধ্যে ধৈঞ্চা গাছের হলুদ ফুলের সমারোহ প্রকৃতিক সৌন্দর্য্য বৃদ্ধি করে। ধৈঞ্চা গাছের হলুদ ফুল শুধু শোভাবর্ধনই করে না বরং এসব হলুদ ফুলে আকৃষ্ট হয়ে ধানক্ষেতে উপকারী পোকা মাকড়ও আসে। রোপা লাগানোর সময় একই সাথে ধৈঞ্চার গাছের চারা লাগানো হয় জমিতে। ধান গাছের চারার সাথে দ্রুত বেড়ে ওঠে ধৈঞ্চার গাছ। ধৈঞ্চা গাছে ফিঙ্গে, বূলবুলি ও শালিকসহ নানা ধরনের উপকারি পাখি বসার কারণে ক্ষতিকর পোকা মাকড় দমন হয়। কিন্তু ধানক্ষেতে মাজরা, পাতা মোড়ানো, ঘাস ফড়িং, চুঙ্গি, লেদা, পামড়িসহ নানা প্রজাতির ক্ষতিকর পোকার আক্রমণ দেখা যায়। ক্ষেত আক্রান্ত হলে কৃষকরা বাজার থেকে চড়া মূল্যে রাসায়নিক কীটনাশক ওষুধ সংগ্রহ করে আমনক্ষেতে প্রয়োগ করেও কোন আশানুরুপ ফল পাচ্ছেন না। সেই সাথে পরিবেশ বান্ধব অনেক পোকা মাকড় মারা যায়। তাই কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করে পার্চিং পদ্ধতির ব্যবস্থা করা হয়েছে।

Spread the love