বুধবার ১৮ মে ২০২২ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চিরিরবন্দরের গমিরাহাট ব্রীজটি ২৪ বছরেও পুন:নিমার্ণ হয়নি, জনদূর্ভোগ

Gomirahatসুলতানা রফিকুল, চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: চিরিরবন্দর উপজেলার গমিরাহাটের ব্রীজটি দীর্ঘ ২৪ বছরেও পুন:নিমার্ণ না হওয়ায় বিকল্প পথে চলতে গিয়ে হাজার হাজার মানুষকে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

জানা গেছে, ১৯৬২ইং সালে উপজেলার ১০নং পুনট্টি ইউনিয়নের গমিরাহাটে আত্রাই নদীর উপরে এ ব্রীজটি নির্মিত হয়। ব্রীজটি নির্মিত হওয়ার ২৭ বছর পর ১৯৮৯ইং সালের বন্যায় সম্পূর্ণরুপে ভেঙ্গে নদীতে পড়ে যায়। সেই থেকে অদ্যাবধি ব্রীজটি আর নির্মিত বা পুন:নির্মিত হয়নি। ব্রীজের পশ্চিমে গমিরাহাট উচ্চ বিদ্যালয়, গমিরাহাট সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, গমিরাহাট পোস্ট অফিস, তুলশিপুর দাখিল মাদরাসা এবং পূর্বদিকে গোবিন্দপুর কেরামতিয়া দাখিল মাদরাসা, গোবিন্দপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও উপজেলার প্রখ্যাত আমবাড়ি হাট রয়েছে। ব্রীজটি নির্মিত বা পুন:নির্মিত না হওয়ায় পুনট্রি, তুলশীপুর, খেড়কাটি, মথুরাপুর, শ্যামনগর, বাসুদেবপুর, পাইকান, কালীগঞ্জ, ভিয়াইল, শান্তিবাজার, গোবিন্দপুর, ফুলপুর, কুতুবডাঙ্গা, ভবানীপুর, হরানন্দপুর, কেশবপুর, উচিতপুর, পাটুল, বিশ্বনাথপুর, দোয়াপুর, ভোলানাথপুরসহ ৫০টি গ্রামের হাজার হাজার মানুষকে সীমাহীন দুর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে। শুধু তাই নয়- এখানে ব্রীজ না থাকায় যাতায়াত, উৎপাদিত কৃষিপণ্য বাজারে আনা-নেয়া, অন্যান্য মালামাল বহনে ভোগান্তি ও অতিরিক্ত অর্থ গুনতে হচ্ছে। শুধুমাত্র একটি বাঁশের সাঁকোই অত্রাঞ্চলের মানুষের একমাত্র ভরসা। জনগুরুত্বপূর্ণ ওই স্থানে আজও ব্রীজ নির্মিত না হওয়ায় দূভোর্গ পোহাতে হচ্ছে এলাকাবাসীকে। ফলে কৃষি সমৃদ্ব এই এলাকায় আজও আধুনিকতার তেমন ছোঁয়া লাগেনি। এখানে একটি ব্রীজ নির্মিত হলে শিক্ষার্থীসহ হাজার হাজার এলাকাবাসীর দুর্ভোগ লাঘবের পাশাপাশি সময় ও অর্থের সাশ্রয় হবে।

ব্যবসায়ী সাহাবউদ্দিন মন্ডল ও লঙ্কেশ্বর চন্দ্র রায় জানান, এ ব্রীজটি নিমার্ণ না হওয়ায় এলাকাবাসীকে যাতায়াতে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। আমরা ব্যবসা-বাণিজ্যও ঠিকমতো করতে পারছিনা। মালামাল পরিবহনে অতিরিক্ত অর্থ খরচ করতে হয়। কৃষক নেজামউদ্দিন মন্ডল জানান, এখানে ব্রীজ না থাকায় উৎপাদিত কৃষিপণ্য পারাপারের অতিরিক্ত অর্থ গুনতে হয়। আবার সেগুলো সময় মতো বাজারে পৌঁছাতে পারি না। এতে আমাদের অনেক কষ্ট হয়। পল্লী চিকিৎসক ধীরান্ন চন্দ্র রায় জানান, এখানে ব্রীজ না থাকায় রোগীদের চরম কষ্ট পোহাতে হয়। যথাসময়ে তারা চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত হন। সবচেয়ে বেশি কষ্ট হয় সন্তানসম্ভাবা মাদের। ১০নং পুনট্টি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান বাবু চন্দ্র বসন্ত রায় বলেন, আমার শাসনামলে এলাকার বৃহত্তর জনগোষ্ঠির কথা ভেবে গমিরাহাটে ব্রীজটি নিমার্ণ করা হয়। এরপর আর কেউ খোঁজ নেননি। তবে এলাকার বৃহত্তর জনগোষ্ঠির কথা ভেবে গমিরাহাটে ব্রীজটি নিমার্ণ করা প্রয়োজন। শিক্ষক মোশারফ হোসেন মন্ডল বলেন, বর্ষাকালে আমাদের যে কি পরিমাণ দু:খ-র্দূদশা হয় তা ভাষায় প্রকাশ করা যাবে না। আমাদেরকে দু’সেট কাপড় নিয়ে বেড়াতে হয়। শিক্ষার্থীদের অবস্থাও একই রুপ। ১০নং পুনট্টি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আতিয়ার রহমান মন্ডলের সঙ্গে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি বলেন, সাবেক দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর নিকট এখানে ব্রীজ নিমার্ণে আবেদন করেছিলাম। এতে তিনি প্রতিশ্রুতিও দিয়েছিলেন। কিন্তু অদ্যাবধি ব্রীজটি নিমার্ণ হয়নি। অভিজ্ঞমহল ওই স্থানে ব্রীজটি নিমার্ণে সংশি­ষ্ঠ কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email