বৃহস্পতিবার ১১ অগাস্ট ২০২২ ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চিরিরবন্দরের দিগন্ত জুড়ে সরিষা ফুলের সমারোহ

Chirirbandar মোঃ রফিকুল ইসলাম: দিগন্ত জুড়ে সরিষা ফুলে ছেয়ে গেছে চিরিরবন্দরের গ্রাম গুলিতে। জমিতে রোপনকৃত সরিষার ফুল আসায় যেমন হলুদ রঙের বাহার দেখা দিয়েছে। তেমনিভাবে সরিষা ক্ষেতে মৌমাছির আগমন ঘটেছে। গত ক’বছর ধরে সরিষা চাষে অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হওয়ায় সরিষা চাষে ঝুঁকে পড়েছেন অনেক কৃষক। ফলে চিরিরবন্দর উপজেলায় চলতি বছর সরিষার বাম্পার উৎপাদন হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। অন্যান্য বছরের তুলনায় এ বছর চাষিদের মধ্যে সরিষা চাষে বেশ আগ্রহ পরিলক্ষিত হয়েছে। তাই চাষিদের মধ্যে অন্যান্য ফসলের পাশাপাশি এ বছর সরিষা চাষে আগ্রহ সৃষ্টি করেছে। তাই চাষিরা সরিষা চাষ এবং পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় অতিবাহিত করছেন। উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নের প্রান্তিক চাষিরা অল্প কিছু হলেও জমিতে সরিষা চাষ করছেন। এ রবি ফসলটি স্বল্পমেয়াদী ও কম খরচে হওয়ার কারণে চাষিদের মধ্যে আগ্রহের সৃষ্টি করেছে। এসব গ্রামের বিস্তৃর্ণ মাঠ জুড়ে এখন সরিষা আর সরিষার ক্ষেত। এসব ক্ষেত দেখে চোখ ধাঁধায়িয়ে যায়। জুড়িয়ে যায় হৃদয়। এখন ক্ষেতে হলুদ আর হলুদ সরষে ফুল মাঠকে হলদে রঙে ভরপুর করে তুলেছে। বর্তমানে সরিষা ক্ষেতে হলুদ ফুলের ব্যাপক সমারোহ। এসব সরিষা ক্ষেতে মৌমাছির গুণগুণ শব্দ এলাকা মাতিয়ে তুলছে। সকালের শিশিরে আচ্ছাদিত ভেজা মেঠোপথের অপরম্নপ দৃশ্য  মানুষের হৃদয় কেঁড়ে নেয়। এসব সরিষা ক্ষেতের সুবাসিত মৌ মৌ গন্ধ পাশ দিয়ে হেটে যাওয়া পথচারিদের হৃদয় পুলকিত করে তুলছে। আর অল্প ক’দিন পরেই এসব সরিষা ক্ষেতে হলুদ ফুল ঝড়ে গিয়ে সরিষার দানাযুক্ত ছোট ছোট সবুজ মঞ্জুরীপত্র ছড়াতে শুরু করবে। সবুজে সবুজে ভরিয়ে উঠবে এসব ফসলের মাঠ। এসব সবুজ মঞ্জুরীপত্রগুলো আস্তে আস্তে কালচে বর্ণ ধারণ করবে এবং গাছগুলো শুকাতে শুরু করবে। এরপর পরিণত সরিষা ঘরে তোলার পর্ব শুরু হবে।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মো. সাপিয়ার রহমান জানান, চলতি বছর উপজেলায় ৫শ হেক্টর জমিতে সরিষা আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। কিন্তু লক্ষ্যমাত্রা অতিক্রম করে ৫শ ৯০ হেক্টর জমিতে সরিষার চাষ হয়েছে। আমন ও বোরো চাষের মধ্যবর্তী সময়ে এসব জমিতে সরিষার চাষ করা হয়েছে। আমাদের এ উপজেলার ফসলের নিবিড়তা ধরা হয়েছে ২শ ১০। কিন্তু তা ছড়িয়ে দাঁড়িয়েছে বর্তমানে ২শ ৫০-এ। ফলে সরিষার আবাদও ভাল হবে। কৃষকরাও ভাল ফসল উৎপাদন করে লাভবান হবেন। এ ব্যাপারে কথা হয় উপজেলার চিরিরবন্দর গ্রামের মকবুল হোসেন ২ বিঘা, জসিরউদ্দিন পাতানু ৩ বিঘা, দক্ষিণ পলাশবাড়ী গ্রামের জয়নাল আবেদীন ১৫ বিঘা, নান্দেড়াই গ্রামের মহসিন আলী ৩ বিঘা, ধলু মোহাম্মদ ১০ বিঘা, মামুদপুর গ্রামের আব্দুল মতিন ৫ বিঘা, দিঘারণ গ্রামের নুর ইসলাম ৫ বিঘা, রসুলপুর গ্রামের মোসলেম তেলী ৩ বিঘা, রাণীপুর গ্রামের আনোয়ার হোসেন ৩ বিঘা জমিতে সরিষা চাষ করেছেন। তারাসহ আরো বেশ ক’জন কৃষক জানান, আমন ও বোরো ফসলের মাঝামাঝি সময়ে সরিষা চাষ হয়। সরিষা চাষে একটি সেচ ও রাসায়নিক সার অল্প প্রয়োজন হওয়ায় বিঘা প্রতি খরচও কম হয়। এতে মোটামুটি লাভও ভাল হয়। এছাড়াও অনেক কৃষক মৌসুমের শুরুতেই সবজি হিসেবে সরিষা শাক বিক্রি করে নগদ টাকাও আয় করেন। এছাড়াও সরিষার পাতা জমিতে পড়ে সবুজ সার তৈরী হয়। যা বোরো চাষে জৈব সারের চাহিদা মেটায়। তারা আরো জানান, সরিষার ফলন ভাল হলে প্রতি একর জমিতে অন্তত ১০ মণ সরিষা উৎপাদন হবে। স্বল্পমেয়াদী ও লাভজনক হওয়ায় সরিষা চাষে কৃষকদের মধ্যে আগ্রহ বাড়ছে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email