মঙ্গলবার ১৭ মে ২০২২ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চিরিরবন্দরের প্রবীণ মহিলা ময়নার বয়স্ক ভাতা দাবি

Old Womanমোছা. সুলতানা খাতুন, চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) থেকে: চিরিরবন্দর উপজেলার একমাত্র শতোর্ধ্ব বয়স্ক ও প্রবীণ মহিলা হলেন মমেনা বেগম ময়না। তিনি ও ছেলে জবান আলী (৭৩) দাবী করেন তাঁর বয়স অন্তত ১শ ২০ বছর। কিন্তু তাঁর জাতীয় পরিচয়পত্রে জন্ম তারিখ রয়েছে ৬ অক্টোবর ১৯১৭ইং। জাতীয় পরিচয়পত্র মোতাবেক তাঁর বয়স ৯৬ বছর ৩ মাস। এ বয়সেও তাঁর ভাগ্যে জোটেনি কোন সরকারী সাহায্য-সহযোগিতা। পান না কোন বয়স্ক ভাতাও। আর কত বয়স হইলে সরকার মোক্ বয়স্ক ভাতা দিবে বাহে? মোর ছবি তুলিই বা কি হইবে? কত মানুষ কত বার আসিয়া মোর ছবি তুলিয়া নিয়া গেল, কত বার চেয়ারম্যান, মেম্বারক কনু কাহই মোর একখান বয়স্ক ভাতার কার্ড করিয়া দিল না! এভাবে নিজ বাড়িতে তিনি একান্ত আলাপচারিতায় আক্ষেপ করে উপরোক্ত কথাগুলো বললেন। জবান আলী আরো বলেন, যখন জাতীয় পরিচয়পত্রের কাজ হয় সে সময় ওই লোক পাড়ার একস্থানে থেকেই নাম ও বয়স লিখে নিয়েছে। ফলে তাঁর প্রকৃত বয়স ভুল হয়েছে।

মমেনা বেগম ময়না ২০বছর বয়সে উপজেলার আব্দুলপুর ইউপির মামুদপুর গ্রামের আগুনিয়াপাড়ার ফজলার রহমান আগুনিয়াকে পারিবারিকভাবে বিয়ে করেন। তাদের দাম্পত্য জীবন বেশ সুখেই কেঁটেছিল। তিনি ব্যক্তিগত জীবনে ৭ সন্তানের জননী। সন্তানদের মধ্যে ৫ ছেলে ও ২ মেয়ে। বড় মেয়ে লতিফন নেছার বর্তমান বয়স ৯৫ এবং ছোট ছেলে আজিজার রহমানের বয়স ৬০ বছর। ছেলেমেয়েদের মধ্যে তার ছোট দু’ছেলে সামসুদ্দিন (৬৫) ও আজিজার রহমান (৬০) বছর বয়সে মারা গেছেন। বর্তমানে তাঁর ২৪ নাতী, ১৮ নাতনী, ৪১ পুতি এবং পুতনীর সংখ্যা ২১ জন। পুতি-পুতনীরও বিয়ে হয়েছে। তাদের সন্তানদের সংখ্যাও ১৩জন। এ বয়সেও তিনি টিউবলের পানি তোলা, তরকারী কাটার কাজ করতে পারেন। তিনি চশমা ছাড়াই সুঁচের মধ্যে সুতো দিতে পারেন। এতে তাঁর কোন সমস্যা হয় না। এ বয়সেও তিনি চলাফেরাসহ পরিবারের সব কাজকর্ম অন্যের সহযোগিতা ছাড়াই করতে পারেন। ওই গ্রামের আলতাবুর রহমান (৬৫) ও নজরুল ইসলাম (৭০) জানান, আমরা ছোট বেলা থেকেই তাঁকে এমন অবস্থায় দেখে আসছি। তাঁর মধ্যে কোন পরিবর্তন দেখছি না।

এ সময় তিনি অনেক দুঃখ গাঁথা স্মৃতিচারণও করেন। তিনি বিট্রিশ শাসনামলে দু’বার যুদ্ধ দেখেছেন। তিনি আরো বলতে পারেন দেশের পট পরিবর্তনের নানা কথা। তিনি যুবক বয়সে পাক সরকারের (আইয়ুব খান) শাসনামলে ভোটাধিকারও প্রয়োগ করেছেন। তিনি আগুনিয়াপাড়ায় কুড়েঁ ঘরে বসবাস করছেন। স্বামীর দেয়া এ ভিটেমাটিটুকু ছাড়া তাঁর কিছুই নেই। সেটুকুই তিনি অাঁকড়ে ধরে আছেন। তিনি আরো জানান, তাঁর ছেলেদের অভাবী সংসার। তারাই এখন ঠিকমত খেতে-পড়তে পারেন না। বর্তমানে তাঁর দেখভাল করছেন নাতী লেদ মিস্ত্রি কবির হোসেন। এরপরও তিনি কোন সরকারি সাহায্য-সহযোগিতা পাননি। এলাকার জনপ্রতিনিধিসহ শিক্ষিত সমাজের নিকট তিনি দাবি করে বলেন, তাঁর মত বয়োবৃদ্ধরা যেন সরকারের দেয়া সাহায্যটুকু সঠিকভাবে পায়।

এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান ময়েনউদ্দিন শাহ্ বলেন, সুযোগ এলে আমি তাঁর ব্যাপারে বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করব। উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মো. ময়নুল ইসলাম বলেন, যদি তিনি আমার নিকট আসেন তাহলে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে তাঁর বয়স্ক ভাতার ব্যবস্থা করে দেয়া হবে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email