সোমবার ৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৩শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চিরিরবন্দরে ইছামতি নদীর বুকে সবুজের সমারোহ

Ichamati Nodiমোছা. সুলতানা রফিকুল, চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: চিরিরবন্দর উপজেলার কোল ঘেঁষে বয়ে যাওয়া স্রোতস্বিনী ইছামতি নদী এখন যেন আর নদী নেই। মৃতপ্রায় নদীতে পরিণত হয়েছে। পরিণত হয়েছে নিচু শ্রেণির ফসলী জমিতে। শুকিয়ে যাওয়ায় নদীর বুকে ফলছে নানাজাতের ফসল। বর্তমানে নদীর তলদেশে চাষাবাদ করা হচ্ছে বোরো ধান। যা দেখে প্রাণ ভরে উঠবে। পথচারীরা নদীর তলায় ধান চাষ দেখে অবাক হন। এত সুন্দর হয়েছে নদীর তলায় ধান চাষ। দেখলে মনে হবে নদী আর ফসলের মাঠ যেন একাকার হয়ে গেছে। নদীতে ধান চাষ দেখে কেউ আনন্দিত আবার কেউ আতঙ্কিত। কারণ নদী দেশের প্রাণ। নদী-নালা, খাল-বিল স্বাস্থ্যসম্মত পরিবেশের অংশ বিশেষ। তাই নদীতে ধান চাষ হচ্ছে এ যেন আগামী প্রজন্মের নিকট প্রাকৃতিক পরিবেশের মারাত্নক বিপর্যয়ের আশঙ্কার পূর্বাভাষ। এককালে ইছামতি নদী ছিল যৌবন জোয়ারে পরিপূর্ণ। কিন্তু এখন আর সেই পূর্বের স্রোতস্বিনী ইছামতি নদী নেই। এ রকম অসংখ্য নদী আমাদের দেশে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে। তাই এই দেশকে নদীমাতৃক দেশ বলা হয়। নদীর অপরুপ সৌন্দর্য দেখে কবি রবি ঠাকুর লিখেছেন- আমাদের ছোট নদী চলে এঁকেবেকে, বৈশাখ মাসে তার হাঁট জল থাকে। শিল্পীর গানের সুরে বেজে উঠে- ও নদীরে একটি কথা সুধাই তোমারে, বল কোথায় তোমার দেশ, তোমার নেই কি চলার শেষ। প্রবাদ আছে-সময় ও নদীর স্রোত কারো জন্য অপেক্ষা করে না। নদী নিয়ে কবির ভাবনা আর শিল্পীর গানের সুর সবকিছুই যেন এখন স্মৃতির পাতায় বন্দি। একটি কথার মাঝেই কবির কথা ও কাব্য যেন থেমে যায়। তা হলো নদীতে পানি নেই। আর সময়মতো নদী বেয়েই চলে না। কিন্তু সময়ের মাঝে আছড়ে পড়ছে মারাত্নক প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের কষাঘাত। ফলশ্রুতিতে দীর্ঘদিন আকাশে বৃষ্টি নেই। নদী হয়েছে নি:স্ব প্রাণ। বর্ষাকালে নদীতে জোয়ার আসে। তাও থাকে মাত্র ৩/৪ মাস। তারপর নদী শুকিয়ে যায়। তাই নদীর তলদেশে কৃষকরা ইরি-বোরো, পাট, পেঁয়াজ, মিষ্টি আলু, ভূট্টাসহ বিভিন্ন ফসলের চাষাবাদ করছেন।

স্বাধীনতা পরবর্তী ৮০’র দশক পর্যন্ত এ নদী ছিল যৌবনে পরিপূর্ণ। বর্ষাকালে এ নদী পানিতে টইটুম্বর থাকত। চলাচল করত পাল তোলা নৌকা। করত বিভিন্ন মালামাল পরিবহন। তা দেখার জন্য এলাকার শিশু-কিশোর আর বয়োবৃদ্ধরা নদীর কিনারে ভিড় করত। কিন্তু বর্তমানে নাব্যতাহীনতা ও বিভিন্ন পারিপার্শ্বিক কারণে নদীতে আর পানি থাকে না। নদীর তীরবর্তী এলাকার লোকজন ইরি-বোরো ধানের বীজতলা ও ধান চাষাবাদসহ বিভিন্ন ফসল ফলায়। বর্তমান চিত্র দেখে আর মনে হবে না এই সেই স্রোতস্বিনী ইছামতি নদী। আজ নদীতে পানি শুন্যতার কারণে সেই চিত্র চোখে পড়ে না। পানি শুন্যতার কারণে নদীর তীরবর্তী এলাকার কৃষকরা আর আগের মতো তাদের সেচ কাজেও পানি দিতে পারছেন না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ক’জন কৃষক জানান, এবার নদীর তলায় তাদের সুন্দর ধান হয়েছে। তারা বিগত ক’বছর ধরে সাফল্যের সঙ্গে ধান চাষাবাদ করছেন। তবে এলাকাবাসী মনে করেন নদী খনন করে নব্যতা বাড়ালে কিছুটা হলেও শুষ্ক মৌসুমে পানি ধরে রাখা সম্ভব হবে এবং এলাকার চাষাবাদ ও কৃষকরা উপকৃত হবেন।