সোমবার ২৩ মে ২০২২ ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চিরিরবন্দরে একটি ব্রীজের অভাবে গাছের ভেলাই পার হচ্ছে মানুষ- চরম দূর্ভোগ

দিনাজপুর প্রতিনিধি: দিনাজপুর জেলার চিরিরবন্দওে ইছামতি নদীর উপরে একটি ব্রীজের অভাবে গাছের ভেলাই পার হচ্ছে সাধারন মানুষ।

ইছামতি নদীর ২০ কিলোমিটারের মধ্যে স্বাধীনতার ৪২ বছরেও ব্রীজ নির্মান্না হওয়ায় আনুমানিক ৩০ হাজার চিরিরবন্দরের ইসবপুর ইউপির হাড়িকাটা’র মানুষ নদী পারাপারে চরম দুর্ভোগে পড়েছে।

নদীর তিনটি ঘাটে সারাবছর বাঁশের সাঁকো একমাত্র ভরসা হলেও বর্ষা মৌসুমে সেই বাঁশের সাuঁকাটিও অতিরিক্ত ব্যবহারে ভেঙ্গে যাওয়ায় পারাপারের জন্য কলার গাছের ভেলা হয় এলাকাবাসীর একমাত্র ভরসা।

স্থানীয় এলাকাবাসী জানায়, নির্বাচনের সময় এলে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতারা মঞ্চে ক্ষমতায় গেলে হাড়িকাটা ইছামতি নদীর এই তিন ঘাটে ব্রীজ নির্মান করা হবে বলে প্রতিশ্রুতি দিলেও বিজয়ী হলেই ভুলে যান ওইসব প্রতিশ্রুতির কথা।

বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকারের দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী এমপিও এ প্রতিশ্রম্নতি দিয়েছিলেন।  কিন্তু পাঁচ বছর ক্ষমতায় থাকলেও এখানে ব্রীজ নির্মানের কোন উদ্যোগ গ্রহন করা হয়নি। ফলে এলাকাবাসীর স্বপ্ন অধরাই থেকে গেছে। ইতিপূর্বে আওয়ামীলীগ থেকে নির্বাচিত এমপি শাহ্ মাহাতাব উদ্দীন, সাবেক হুইপ মিজানুর রহমান মানু তাদের নির্বাচনী প্রচারনার সময় একই প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। ইউপি সদস্য মোকলেছুর রহমান, ধান ব্যবসায়ী মোজাম্মেল হক, পাট ব্যবসায়ী আফালী, মিল মালিক মুন্নাসহ এলাকার এলাকাবাসীর দাবী এই নদীতে একটি ব্রীজের অভাবে দক্ষিণ নগর, ইয়াকুবপুর, কালোপুর, হরিহরপুর, দগড়বাড়ী, খোড়াখাই, দেউল,ও সুকদেবপুর গ্রামের পথচারী স্কুল কলেজ মাদরাসাগামী শিক্ষার্থীদের চরম দূর্ভোগ পোহাতে হয়। তাছাড়া এসব গ্রামে রয়েছে ১০টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, ১টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ২টি দাখিল মাদরাসা, ১টি কমিউনিটি ক্লিনিক, ও বেশ কয়েকটি ছোটবড় হাঁট বাজার। গ্রামগুলি কৃষি প্রধান হওয়ায় মৌসুমী ফসলসহ ধান উৎপাদনে উপজেলার শীর্ষে। যোগাযোগ ব্যবস্থা না থাকায় কৃষকরা তাদের উৎপাদিত কৃষিপন্য সামগ্রী ভারী যানবাহনে করে পার্শ্ববর্তী বিন্যাকুড়ী হাট ও অন্যান্য বাজারগুলোতে নিয়ে গিয়ে নির্ধারিত মূল্যে বিক্রি করতে পারেনা। এতে করে তারা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হন বলেও তারা দাবী করেন। জরুরী প্রয়োজনে মুমুর্ষ রোগীকে উপজেলা সদর কিংবা জেলা শহরের হাসপাতালে পৌঁছাতে চরম বিড়ম্বনায় পড়তে হয়।

ইসবপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবু হায়দার লিটন সাংবাদিকদের জানান, হাড়িকাটা ইছামতি নদীর তিনটি ঘাটের মধ্যে কমপক্ষে একটি ব্রীজ নির্মান করা অতীব জরুরী। হরিহরপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের

প্রধান শিক্ষক আমিনুল হক শাহ্ জানান, ছাত্র/ছাত্রীরা বর্ষা মৌসুমে ঠিকমত বিদ্যালয়ে উপস্থিত হয়না। তাছাড়া ভেজা কাপড়ে বিদ্যালয়ে আসে পাঠদানে মনোযোগী হয় না।

চিরিরবন্দর থানার ওসি আব্দুর রহমান জানান, উক্ত গ্রামগুলিতে যেতে পুলিশের চরম অসুবিধা হওয়ায় সার্বিক তদারকি সহজে সম্ভব হয় না।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email