শুক্রবার ৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২০শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চিরিরবন্দরে দুই আদিবাসী শিক্ষিকাকে ইপটিজিং করার অভিযোগে যুবকের দুই বছর কারাদন্ড

দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে দুই আদিবাসী শিক্ষিকাকে ইপটিজিং করার অভিযোগে কুমদ চন্দ্র রায় (২৮) নামে এক যুবকের দুই বছর কারাদ- দিয়েছে ভ্রাম্যমান আদালত।

গতকাল  বৃহস্পতিবার  সাড়ে ১২ টায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মিজানুর রহমান এই রায় প্রদান করেন। কুমদ চন্দ্র রায় চিরিরবন্দর উপজেলার দূর্গাডাঙ্গা গ্রামের মৃত: রতনেশ্বর রায়ের ছেলে ও দুই সমত্মানের জনক।

জানা যায়, উপজেলার তালপুকুর ব্র্যাক স্কুলের আদিবাসী দুই শিক্ষিকাকে দীর্ঘদিন ধরে কুমদ চন্দ্র রায়সহ কয়েকজন বখাটে স্কুল যাওয়া আসার পথে উত্ত্যক্ত করতো। এক পর্যায় তারা কৌশলে ওই শিক্ষিকাদের ছবি সংগ্রহ করে কম্পিউটারের মাধ্যমে গলাকেটে অন্য যৌনমিলন মূহুর্ত সাদৃশ্য ছবির সাথে এডিটিং করে। পরে সেগুলো প্রিন্ট করে তাদের হাতে দিয়ে বিশ হাজার করে টাকা দাবী করে ও অনৈতিক কর্মকান্ডের জন্য কুপ্রসত্মাব দেয়। অন্যথায় তাদের ওই নগ্ন ছবি ইন্টারনেটে ছাড়া হবে বলে হুমকি দেয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ওই দুই শিক্ষিকা চিরিরবন্দর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ অভিযান চালিয়ে কুমদকে নিজবাড়ী হতে আটক করে।

গতকাল  বৃহস্পতিবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার মাধ্যমে তাকে দুই বছর সশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়।

চিরিরবন্দর থানার ওসি আব্দুর রহমান জানান আদিবাসী  শিক্ষকদের অভিযোগের ভিত্তিতে কুমদ চন্দ্র রায়কে আটক করে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে সশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়েছে ।দিনাজপুর কেন্দ্রীয় কারাগারে কারা দন্ডপ্রাপ্ত আসামী কুমদ চন্দ্ররায়কে পাঠানো হয়েছে  বলে তিনি জানিয়েছেন।