বুধবার ১৮ মে ২০২২ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চিরিরবন্দরে দ্বিতীয় স্ত্রীকে স্বীকৃতি না দেয়ায় স্বামীর প্রহারে প্রথম স্ত্রী হাসপাতালে

BP-012মো. রফিকুল ইসলাম, চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে দ্বিতীয় স্ত্রীকে স্বীকৃতি না দেয়ার অপরাধে স্বামীর বেদম মারপিটে প্রথম স্ত্রী দু’সন্তানের জননী নাজমা বেগম (২৪) গুরুতর আহত হয়েছে। তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এলাকাবাসী সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার উত্তর পলাশবাড়ী গ্রামের ফকিরপাড়ার মৃত আবু বক্কর সিদ্দিকের পুত্র স্বর্ণকার আনোয়ার হোসেন রানার সঙ্গে পারিবারিকভাবে ওই গ্রামের শাহাপাড়ার ফরতাজ আলীর কন্যা নাজমা বেগমের ২০১১ সালে বিয়ে হয়। বিয়ের পর তাদের দাম্পত্য জীবন ভালই চলছিল। দাম্পত্য জীবনের একপর্যায়ে রানা নুরবানু নামে এক মহিলার সঙ্গে পরকিয়া সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। নাজমার সুখের সংসারে কাল হয়ে দাঁড়ায় নুরবানু। নাজমা স্বামীকে এতে বাঁধা দিলে নানা সময় নেমে আসে তার উপর অকথ্য নির্যাতন। এক পর্যায়ে রানা গত ৭ জানুয়ারী প্রেমিকা এক সন্তানের জননী বিধবা নুরবানু আক্তারকে স্ত্রী পরিচয় দিয়ে ঘরে তোলে। এতে নেমে তাদের সংসারে অশান্তির আগুন। এরপর থেকে চলে প্রথম স্ত্রী নাজমার উপর পাশবিক নির্যাতন। গত মঙ্গলবার সকালে কথা কাটাকাটির সুত্রপাত ধরে স্বামী রানা প্রথম স্ত্রী নাজমাকে বেদম মারপিট করে। মারপিটে নাজমা জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। এসময় স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে­ক্সে ভর্তি করে। নাজমা জানায়, তার স্বামী রানা নুরবানুকে বিয়ে না করেই মিথ্যা বলে অপরিচিত মেয়েকে বউ হিসেবে ঘরে তুলেছে। রানা ও নুরবানু দাবী করেন তারা গত ২০০৪ সালে গোপনে বিয়ে করেছে। রানা জানায়, বিয়ে করা স্ত্রী নুরবানু ও তার সন্তানকে স্বীকৃতি দিতেই বউ ঘরে তুলেছি। নাজমার পিতা ফরতাজ জানায়, ২০১১ সালে রানা অবিবাহিত থাকায় তার সাথে আমার মেয়ে নাজমার বিয়ে দিয়েছি। তিনি আরো জানান, এখনও মামলা করিনি। তবে দু’একদিনের মধ্যেই রানার বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের হবে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email