সোমবার ৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৩শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চিরিরবন্দরে পুঁইশাক ও লালশাকে ঝুঁকছে কৃষক

Lal Shakমো. রফিকুল ইসলাম চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ পুঁইশাক ও লালশাক অতীব লাভজনক হওয়ায় দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে কৃষকরা ব্যাপক হারে পুঁইশাক ও লালশাক চাষ শুরু করেছেন। এর ফলে তারা যথেষ্ট লাভবান হচ্ছেন। অনেকেই ভাগ্যের চাকা ঘুরিয়ে ফেলেছেন। হয়েছেন স্বাবলম্বী। বর্তমানে এ অঞ্চলে পুঁইশাক ও লালশাকে অত্র অঞ্চলের চাহিদা মিটিয়ে বাজারজাত করা হচ্ছে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে।

অন্যান্য ফসলের তুলনায় পুঁইশাক চাষ লাভজনক হওয়ায় এ বছর অত্রালাকার কৃষকরা ব্যাপকহারে পুঁইশাক ও লালশাক চাষের দিকে ঝুকে পড়েছেন। বিশেষ করে প্রান্তিক কৃষক ও সবজি চাষিরা এ বছর সকলেই কম-বেশী পুঁইশাক ও লালশাক চাষ করেছেন। সবচেয়ে বেশী চাষাবাদ হয়েছে উপজেলার নান্দেড়াই, মামুদপুর, দগরবাড়ী, চক শুকদেবপুর, চক সুদাম, হরিহরপুর, চক সন্যাসী, উত্তর সুকদেবপুর গ্রামে। আশা করা হচ্ছে প্রাকৃতিক কোন দুর্যোগ না হলে পুঁইশাক ও লালশাক আবাদে কৃষকরা অধিকভাবে প্রচুর লাভবান হবেন।

নান্দেড়াই গ্রামের কৃষক শওকত আলী জানান জানান, একসময় বাঁশের তৈরী জাঙ্গী তৈরী করে তার উপর গাছের কুশি তুলে দিত, কিন্তু এখন শাকের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় তাছাড়া বাঁশের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় অন্য সবজির মতো জমিতে পুঁইশাক চাষাবাদ করা হচ্ছে এবং লালশাক আবাদে অল্প জায়গায় প্রয়োজন হওয়ায় মানুষ এই শাক চাষাবাদে আগ্রহী বেশী হচ্ছে। একই গ্রামের কৃষক এনামুল হক জানান, দিনাজপুর বাহাদুর বাজারে সারাবছর লালশাক সরবরাহ করা হয়। এই মৌসুমে পুঁইশাকের চাহিদা বেশী। বিভিন্ন হোটেলে, আবাসিক ছাত্রাবাস-ছাত্রীনিবাসে, মেস ও বাসাবাড়ীতে বিভিন্ন সবজির পাশাপাশি পুঁইশাক ও লালশাকের চাহিদা বাড়ছে। রমজান মাস হওয়ায় এর চাহিদা আরও বেড়ে গেছে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা বিপ্লব কুমার মহন্ত জানান, পুঁইশাক-লালশাক সহ অন্যান্য শাক এখন মানুষের তরকারীর নিত্যসঙ্গী। ভাল তরকারীর পাশাপাশি প্রায় সকলেই শাক পছন্দ করে। গত বছরের তুলনায় এবছর উচুঁ জমিতে পুঁইশাক ও লালশাক বেশী চাষাবাদ হওয়ায় কৃষকরা লাভবানও হচ্ছে এতে করে উৎপাদন বেড়েছে। কৃষক শওকত আরো জানান, গড়ে প্রতিদিন ২ মন-আড়াই মন করে পুঁইশাক ১৫ টাকা কেজি দরে ও ১০ টাকা অাঁটি হিসেবে বিক্রি করা হচ্ছে। সারাবছর তারা শাক-সবজি বিক্রি করে সংসারের উন্নতি করেছেন।