শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১০ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

চিরিরবন্দরে বাদীকে ভয়ভীতি দেখিয়ে শালিসে স্বাক্ষর নেওয়ার অভিযোগ

দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ চিরিরবন্দরের পল্লীতে ক্ষমতাসীন দলের নেতারা বাদীকে ভয়ভীতি দেখিয়ে জোরপূর্বক শালিস নামায় স্বাক্ষর নেয়া হয়েছে বলে জানা যায়, ঘটনায় প্রকাশ চিরিরবন্দর উপজেলার পূর্ব সাইতাড়া (মন্ডলপাড়া) ইউনিয়নের মৃত নন্দরাম রায়ের ছেলে সুরেশ চন্দ্র রায় এর কলেজ পড়ুয়া মেয়ে বীথি রাণী রায় একই গ্রামের হিতেন্দ্র নাথ রায়ের বখাটে ও লম্পট ছেলে প্রণয় চন্দ্র রায় মালু দীর্ঘদিন ধরে কলেজ যাওয়া আসার পথে প্রায়ই উত্যক্ত করত। এ ব্যাপারে বীথি রাণীর পিতা সুরেশ চন্দ্র রায় স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিদের কাছে বিচার চেয়েও কোন প্রতিকার পেয়ে গত ৪ জানুয়ারি চিরিরবন্দর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করতে গেলে উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতাদের হস্তক্ষেপে কোন অভিযোগ থানা গ্রহণ করেনি। লম্পট প্রণয় চন্দ্র রায় ও তার জনৈক বন্ধু বীথি রাণী রায় বাড়ী থেকে কলেজ যাওয়ার পথে গত ৩১ ডিসেম্বর ’১৪ ইং তারিখে আব্দুলপুর ইউনিয়নের আন্ধরমূয়া বাজারের ৫শ গজ উত্তরে একাকী পেয়ে প্রণয় ও তার বন্ধু মিলে বীথি রাণী রায় কে বিবস্ত্র করার চেষ্টা করে ও শ্লীলতাহানি ঘটায়। ফলে বীথি রাণীর পিতা সুরেশ চন্দ্র রায় বাদী হয়ে গত ১৬ মার্চ’১৫ ইং তারিখে দিনাজপুর নারী ও শিশু নিয়ার্তন দমন আইনে প্রণয় চন্দ্র রায় মালুকে আসামী করে মামলা দায়ের করে। মামলা নং-১৫৭/১৫ সুরেশ চন্দ্র রায় অভিযোগ করেন মামলা দায়েরের পর হতেই উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ আহসানুল হক মুকুল, সাইতাড়া ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সন্তোষ চন্দ্র রায়সহ কতিপয় নেতারা সুরেশ চন্দ্র রায়কে মামলা তুলে নেওয়ার জন্য প্রতিনিয়ত চাপ সৃষ্টি করে ও নানা রকম ভয় ভিতি দেখিয়ে গত ২০/০৩/১৫ইং তারিখ রোজ শুক্রবার বিকাল ৩ ঘটিকায় পূর্ব সাইতাড়া ইউপির সাধারণ সম্পাদক সন্তোষ চন্দ্র রায়ের বাড়িতে অতি গোপনে বৈঠক করে। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আহসানুল হক মুকুল, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আইবুর রহমান শাহ এর ছেলে মোঃ আশরাফুল আলম বাবলু, সাইতাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ মোকররম হোসেনসহ শহর যুবলীগের কয়েকজন নেতা। সুরেশ চন্দ্র রায় জানান, তারা আমার মেয়ের শ­ীলতা হানির জন্য লম্পট প্রণয় চন্দ্র রায়কে মাত্র ২০ হাজার টাকা জরিমানা করে। আমি এতে রাজী না হলে তারা আমাকে ভয় ভিতি দেখিয়ে শালীস নামায় জোর পূর্বক স্বাক্ষর নেয় এবং মামলা তুলে নেওয়ার জন্য চাপ সৃষ্টি করে। আমি এখন দারুন অসহায় বোধ করছি এবং নিরাপত্তা হিনতায় ভূগছি। এব্যাপারে উর্দ্ধতন মহলের আশু হস্তক্ষেপ কামনা ও সুবিচার প্রার্থনা করছি।

Spread the love