সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৩ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

চিরিরবন্দরে মামলা থেকে বাঁচতে অভিনব কান্ড!

মো. রফিকুল ইসলাম, চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: চিরিরবন্দরে মামলা থেকে বাঁচতে জামাতের সক্রিয়কর্মী একাধিক জ্বালাও-পোড়াও মামলার আসামী আওয়ামী লীগ সাজার চেষ্টা করেছেন। ঘটনাটি এলাকায় ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করেছে।
জানা গেছে, গত ২৯ অক্টোবর বিএনপির ডাকে দেশব্যাপি সকাল-সন্ধ্যা হরতাল চলাকালে চিরিরবন্দর উপজেলার রানীরবন্দরে সুইহারিবাজারের পশ্চিম পাশে দুপুর ১টায় দশমাইল-সৈয়দপুর মহাসড়কে নাশকতা ও অন্তর্ঘাতমূলক কর্মকান্ড করার অপরাধে থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইন-১৯৭৪ সালের ১৩(১)(৩) ধারায় একটি মামলা দায়ের হয়। এই মামলার ১২নং আসামী হলেন মো. আব্দুর রহিম মৌলভী (৪৫)। তিনি উপজেলার ফতেজংপুর  ঘিনাশাহ্পাড়ার মৃত বোরহান উদ্দিনের ছেলে। তিনি ওই ইউনিয়নের জামাতের একজন সক্রিয়কর্মী। তিনি একাধিক জ্বালাও-পোড়াও মামলার আসামী। তিনি বিএনপির ডাকা দেশব্যাপি সকাল-সন্ধ্যা হরতাল পালনকালে রানীরবন্দরের মামলার আসামী হওয়ার ঘটনায় সুকৌশলে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্যাড ব্যবহার করে উপজেলা আওয়ামী লীগ ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সম্পাদকের স্বাক্ষর সম্বলিত একটি প্রত্যায়নপত্র তৈরি করে নিজেকে আওয়ামী লীগের একজন কর্মী হিসেবে জাহির করেন। যা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে ভাইরাল হয়। এলাকায় কথা উঠেছে জ্বালাও-পোড়াও মামলার আসামী এবং জামাতের একজন সক্রিয়কর্মী কিভাবে আওয়ামী লীগের কর্মী হতে পারেন। আব্দুর রহিম মৌলভীর আওয়ামী লীগ সাজার বিষয়টি ফতেজংপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নজরে আসলে তারা সাংবাদিক সম্মেলন করেন।
ফতেজংপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মামুনুর রশিদ বাদল বলেন, এঘটনায় উপজেলা আওয়ামী লীগ ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগকে তিনি সুকৌশলে প্রশ্নবিদ্ধ করার অপচেষ্টা করেছেন। এই প্রত্যায়নপত্রটি সম্পূর্ণরুপে ভুয়া। উপজেলা ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দকে হেয় প্রতিপন্ন করতে তিনি এ ছল- চাতুরির আশ্রয় নিয়েছেন। বিষয়টি উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দকে অবহিত করা হয়েছে। উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুনীল কুমার সাহা বলেন-বিষয়টি অত্যন্ত বিব্রতকর। ওই ব্যক্তি কখনই আওয়ামী লীগের সদস্য ছিলেন না। ঘটনাটি এলাকায় ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করেছে।
Spread the love