মঙ্গলবার ৪ অক্টোবর ২০২২ ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চিরিরবন্দরে লাল টুকটুকে স্ট্রবেরি কৃষক অমূল্য রায়ের ভাগ্যের চাঁকা ঘুরিয়ে দিতে পারে

Stabaryরফিকুল ইসলাম, রাণীরবন্দর, দিনাজপুর : দিনাজপুরের চিরির বন্দর উপজেলার তেঁতুলিয়া ইউনিয়নের গোন্দল গ্রামের কালুশা পাড়ার মৃত খগেন্দ্র নাথের পুত্র অমূল্য রায়। তিনি দশম শ্রেণী পর্যন্ত লেখাপড়া করেন। তিনি লেখাপড়ায় সুবিধা করতে না পেরে মনোনিবেশ করেন কৃষি কাজে। বিভিন্ন পত্রিকায় ষ্ট্রবেরী বিষয়ে জানতে পেরে তার ইচ্ছে জাগে ষ্ট্রবেরী চাষে। এ বিষয়ে স্থানীয় এনজিও বহুব্রীহির সাথে যোগাযোগ করেন তিনি। অমূল্য রায়ের আগ্রহ দেখে থেকে বহুব্রীহিই তাকে প্রশিক্ষণ দিয়ে ষ্ট্রবেরির চারা সরবরাহ করে। প্রথম বার তেমন সফলতা না পেলেও কয়েক বছর ধরে বেশ আয় হয়েছে ষ্ট্রবেরি চাষ করে। বর্তমানে লাল টুকটুকে ষ্ট্রবেরিতে ভরে উঠেছে তার ক্ষেত । এই ষ্ট্রবেরী কৃষক অমূল্য রায়ের ভাগ্যের চাঁকা ঘুরিয়ে দিতে পারে।

অমূল্য রায় জানান, এ বছরের ৭ শতক জমিতে ষ্ট্রেবেরী চাষ করেছি। এ পর্যন্ত জমিতে চারা রোপন, সেচ, সার ও ঘেরা বাবদ অন্তত ৫-৬হাজার টাকা খরচ হয়েছে। চারা বপনের দু’মাস বয়স থেকে ফলন তোলা শুরু হয়। প্রতিদিন ৩-৫ কেজি স্ট্রবেরি উত্তোলন করতে শুরু করি। স্থানীয় বাজারে পাইকারের নিকট দেড়শ টাকা দরে প্রতি কেজি বিক্রি করছি। জমিতে রোপনকৃত চারার বয়স ৩ মাস চলছে। প্রতিদিন ঘরে আসছে নগদ ৭-৮শ টাকা করে। সামনে আরো এক মাস বিক্রি করা যাবে। এ পর্যন্ত ২০হাজার টাকার ফল বিক্রি করেছি। আগামী আরো অত্যন্ত ৬-৭হাজার টাকার ফল বিক্রি করা যাবে। পাশাপাশি এই জমিতে আড়াই থেকে ৩হাজার চারা উৎপন্ন হবে। এ চারা ক্রয়ের জন্য অনেকেই যোগাযোগ করেছেন। আগামিতে আরো বড় পরিসরে ষ্ট্রবেরি ফলের চাষ করার প্রস্ত্ততি গ্রহণ করেছি।

বহুব্রীহির নির্বাহী পরিচালক মো. জাকির হোসেন দুলু জানান, আমরা প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের সহযোগিতায় পিএডিপি প্রজেক্টের মাধ্যমে কৃষকদের বিভিন্ন ফসলের পাশাপাশি স্ট্রবেরি চাষের প্রশিক্ষণ প্রদান করি। অমূল্যও সেই প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে আজ স্ট্রবেরি চাষ করছে। আমরা রাজশাহী থেকে স্ট্রবেরির চারা সংগ্রহ করে তাকে প্রদান করেছি।

দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাঁসপাতালের চিকিৎসক ডা. মো. নজমুল ইসলাম জানান, যত রকম সুস্বাদু ও পুষ্টিকর ফল রয়েছে তার মধ্যে ষ্ট্রবেরি সর্বোৎকৃষ্ট। বিভিন্ন গবেষণার সূত্র থেকে জানা যায়, এতে রয়েছে ভিটামিন এ, সি, ই, কে, বি-৬, ওমেগা-৩, ফলিক এসিড, মেলেনিয়াম, ক্যালসিয়াম, পলিফেনল, এলাজিক ফেরালিক, কুমারিক এসিড, কুয়ের মিটিন, জ্যান্থোমাইসিডিন এবং ফাইটোস্টেবল। এলার্জিক এসিড ক্যান্সার ও প্রৌঢ়ত্ব প্রতিরোধ করে। এমন কি স্ট্রবেরিতে এইডস রোগ প্রতিরোধী উপাদানেরও কথা বলা হয়েছে। স্ট্রবেরি খেলে মানব দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। এটি শরীরের রক্তচাপ কমায়। ফলে হৃদরোগের সম্ভাবনা কমে যায়। নিয়মিত খেলে পাকস্থলী, অন্ত্রের রোগ ও চর্মরোগ থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। শরীরের কোলস্টোরল কমায়। স্ট্রবেরি খেলে স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি পায়। এতে রয়েছে গেটে বাত,ফোঁড়া থেকে শরীরকে রক্ষা করার প্রতিরোধ উপাদান।

চিরির বন্দর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা মো. সাপিয়ার রহমান জানান- ধান, গম, পাট ও অন্যান্য আবাদের চেয়ে তুলনামূলক স্ট্রবেরি চাষ বেশ লাভজনক। আমাদের দেশে এ ফলটি তেমন জনপ্রিয় না হওয়ার কারণে গ্রাহক সমস্যা রয়েছে। গ্রাহক বৃদ্ধিতে পেলে এ ফসল থেকে ব্যাপক মুনাফা লাভের সম্ভবণা রয়েছে। আমাদের দেশের কৃষক যদি বাণিজ্যিকভাবে স্ট্রবেরি চাষ শুরু করেন তাহলে দেশ অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হবেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email