সোমবার ১৫ অগাস্ট ২০২২ ৩১শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চিরিরবন্দর যুবলীগ সভাপতি সুমন দাসের অত্যাচার ও নির্যাতন থেকে রক্ষায় প্রশাসনের সহযোগিতা চেয়ে দিনাজপুরে অবুঝ সন্তানসহ অসহায় এক নারীর সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত

রফিকুল ইসলাম ফুলাল প্রতিনিধি দিনাজপুর:স্বামী সন্তানসহ নিজ জীবন ও সম্পদের নিরাপত্তা নিশ্চিতের দাবি জানিয়ে দিনাজপুরে অসহায় এক নারীর সংবাদ সম্মেলন।৬ আগষ্ট শনিবার সকালে দিনাজপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন দিনাজপুর চিরিরবন্দর উপজেলার পূর্ব সাইতারা গ্রামের আফতাবুজ্জামান এর স্ত্রী লাভলী আরা । এসময় তিনি লিখিত বক্তব্যে বলেন, গত ১৮ জুলাই রাত সাড়ে ১১টায় তার স্বামী আফতাবুজ্জামানকে আমেনা বাকি স্কুলের সামনে আটক করে ৫ লাখ টাকা চাঁদাদাবী করেন চিরিরবন্দর উপজেলা যুবলীগের সভাপতি সুমন দাস। এসময় আমার স্বামী চাঁদার টাকা দিতে অস্বীকার করায় সুমন দাস ও তার সঙ্গীয় ১৪/১৫ জন সন্ত্রাসী তুলে নিয়ে গিয়ে লাঠি দিয়ে নিষ্ঠুর ভাবে পেটাতে থাকে এবং সন্ত্রাসীরা পকেটে থাকা ৫ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয় ও ৪ লাখ ৯৫ হাজার টাকা দাবী করতে থাকে। নির্যাতন করার সময় আমার স্বামীর আত্মচিৎকারে স্থানীয় আরিফ রেজা নামের এক যুবক থানায় ফোন দিয়ে জানালে পুলিশ তাকে উদ্ধার করেন। পরে আমার স্বামীকে চিরিরবন্দর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করাই এবং চিকিৎসা শেষে গত ২০/০৭/২২ তারিখে আদালতে মামলা দায়ের করেছি । মামলা নং সি আর ১৪৪/২২। মামলা করার কারণে গত ২২ জুলাই সুমন দাসের লোকজন আমার স্বামীকে ঘুঘুরাতলী কাঁচাবাজারে আটক করে মামলা তুলে নেয়ার জন্যে হুমকি দেয়। মামলা তুলে না নিলে হত্যা করে লাশ গুম করে ফেলবে। এব্যাপারে আমরা  গত ২৩ জুলাই চিরিরবন্দর থানায় জিডি করেছি এরপরেও গত ২৪ জুলাই বিকেলে সুমন দাস ও তার সঙ্গীরা ঘুঘুরাতলীর বটতলা বাজার এলাকায় আমার স্বামীকে মারধরের জন্য তেরে আসলে আমার স্বামী বাঁচাও বাঁচাও বলে চিৎকার শুরু করলে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে আসায় এবারের মত প্রানে রক্ষা পায়।  এব্যাপারেও ২৪ জুলাই ফৌ: কা:বি: ১০৭/১১৪/১১৭ ধারায় তাদের বিরুদ্ধে সিআরপিসি আদালত চিরিরবন্দর দিনাজপুরে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। শুধু আমি  কিংবা আমার স্বামী নয়, চিরিরবন্দর উপজেলার প্রতিটি পরিবার সুমন দাসের অন্যায় অত্যাচার নির্যাতনের শিকার হয়ে আসছে এবং নিরাপত্তাহীনতায় দিনাতিপাত করছেন। সুমন দাসের বিরুদ্ধে থানা, আইন-আদালতে এতো কিছু’র পরেও আমরা সুমন দাসের অপ্রতিরোধ্য সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছিি, কেউই তাকে প্রতিরোধ করতে পারছে না। কোনভাবেই তার সন্ত্রাসী হামলা ও হুমকি ধামকি থেকে পরিত্রাণ পাচ্ছি না আমরা কেউই। সে আমার স্বামীর বিরুদ্ধে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কুৎসা ও অপপ্রচার চালাচ্ছে ও মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করছে। ইতিপূর্বে সুমন দাাাসের অত্যাচারের শিকার হয়েছে  চিরিরবন্দরের ডিস লাইন ব্যবসায়ী শিশিির ক্যাাবল নেটওয়ার্ক’র মালিক মোছাঃ সেলিনা পারভীন। তার কাছেও সুমন দাস আড়াই লাখ টাকা চাঁদা নেন এবং প্রতিমাসে ১ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন,অনথ্যায় তারা ব্যবসা করতে দিবে না বলে হুমকি দেয়। সেলিনা পারভীনের স্বামীর হোটেল “সোহেল সুইটস”এ সুমন দাসের সন্ত্রাসীরা খেয়ে দেয়ে বিল না দিয়ে চলে যায়। কিছু বললেই সুমন দাসের হুমকি আমি যুবলীগ নেতা আমার কাছে বিল চাস। আমার কথায় আইন কানুন,থানা ওঠা-বসা করে। এ বিষয়ে সেলিনা পারভীন বাদী হয়ে চিরির বন্দর থানায় মামলা করেন, মামলা নং ০৮ তাং ১২/০৭/২২। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে জমি সংক্রান্ত বিষয়ে মামলা করেছেন ইউসুফ আলী মামলা নং ১৯১পি/২০২২ এবং ব্যাংক কর্মকর্তা মহিউদ্দিন মামলা নং ১৭৬পি/২০২২। যুবলীগ সভাপতি সুমন দাসের ক্ষমতার কাছে আমরা আজ জিম্মি পড়েছি। আমিসহ চিরির বন্দর উপজেলায় সুমন দাসের অন্যায় অত্যাচার নির্যাতনের শিকার প্রতিটি মানুষ আজ প্রশাসনের কাছে বেঁচে থাকার জন্য সাহায্য সহযোগিতা চায়।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email