শনিবার ২১ মে ২০২২ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চীফ হুইপের বক্তব্য গণতন্ত্র এবং সুশাসনের জন্য অশনি সংকেত : টিআইবি

পটুয়াখালির বাউফল উপজেলায়TIB গণ-সংবর্ধনায় গত ৭ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার জাতীয় সংসদের চীফ হুইপ আ স ম ফিরোজ “ক্রেস্ট না, ক্যাশ চাই, ক্যাশ” মর্মে  বক্তব্যকে গণতন্ত্র এবং সুশাসনের জন্য অশনিসংকেত চিহ্নিত করে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)।  অনতিবিলম্বে উক্ত বক্তব্য প্রত্যাহারের জন্য আহ্বান জানিয়েছে দুর্নীতি বিরোধী সংস্থাটি। একই সাথে এরূপ লাগামহীন দুর্নীতি সহায়ক অবস্থান সংসদে চীফ হুইপের পদের মর্যাদার সাথে কতটুকু সামঞ্জস্যপূর্ণ তা বিবেচনার জন্য সংসদ নেতার ও স্পিকারের প্রতি আহ্বান জানায় টিআইবি।
টিআইবি’র নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান এক বিবৃতিতে উপরোক্ত মন্তব্য ও আহবান জানিয়েছেন।  বিবৃতিতে তিনি বলেন, চীফ হুইপের বক্তব্য শুধু ন্যাক্কারজনকই নয় বরং তা দেশের গণতন্ত্র ও সুশাসনের জন্য এক অশনিসংকেতও বটে।  প্রকাশ্যে টাকা চাওয়া দুর্নীতিরই নামান্তর যা অন্য দুর্নীতিবাজদের উৎসাহিত করবে।

টিআইবি’র প্রধান নির্বাহী বলেন, সংবিধানের ২০(২) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী অনুপার্জিত আয়কে পরিষ্কারভাবে অবৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। অতএব জাতীয় সংসদের সদস্য, এমনকি চীফ হুইপ পদে আসীন একজন ব্যক্তির পক্ষে প্রকাশ্যে অবৈধভাবে অর্থ উপার্জনের ঘোষণা দিয়ে শুধু দুর্নীতি সহায়ক অবস্থানই নেননি, বরং সংবিধান লংঘন করেছেন।
‘নির্বাচন করতে অনেক (টাকা) লাগে’ মর্মে চীফ হুইপের বক্তব্যকে ঠাট্টা-তামাশা নয়, বরং অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ আখ্যায়িত করে নির্বাচনে কালো টাকা এবং রাজনীতি ও ক্ষমতার অপব্যবহার করে দুর্নীতির মাধ্যমে অবৈধ সম্পদ অর্জনের যে ধারা সাম্প্রতিক কালে হলফনামা সহ বিভিন্নভাবে প্রকাশিত হচ্ছে তারই এক লাগামহীন প্রাতিষ্ঠানিকীকরণের ইঙ্গিত বলে ড. জামান অভিমত প্রকাশ করেন। নিজের বক্তব্যের স্বপক্ষে চীফ হুইপ গণমাধ্যমকে যে সাফাই যুক্তি দেখিয়েছেন তাও পুরোপুরি অগ্রহণযোগ্য বলে ড. জামান মন্তব্য করেন। ড. জামান অনতিবিলম্বে নবম সংসদে উত্থাপিত সংসদ সদস্যদের আচরণবিধি খসড়া আইনটি প্রণয়নের দাবি জানান।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email