সোমবার ১৪ জুন ২০২১ ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

হাসাপাতালে বাড়ছে রোগী ॥ আইসিইউ এবং এইচডিইউতে জায়গা নেই

দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ ভারত সীমান্তবেষ্ঠিত দিনাজপুর জেলায় আবারও বাড়তে শুরু করেছে করোনা সংক্রমণ ও করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যা। করোনায় আক্রান্ত হয়ে দিনাজপুরে একদিনে চিকিৎসকসহ মারা গেছে ৩ জন। আর সনাক্তের হার বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৪ দশমিক ২৮ শতাংশ। সনাক্তের হার বেড়ে যাওয়ায় দিনাজপুরের হাসপাতালগুলোতে বাড়ছে রোগীর সংখ্যা। বিশেষ করে হাসাপাতালের আইসিইউ ও এইচডিইউ ইউনিটগুলোতে রোগীর রাখার জায়গা নেই। অন্যদিকে ভারত থেকে ফেরা বাংলাদেশীদের ৩ জন করোনা সনাক্ত হওয়ায় উদ্বেগের কারন হয়ে দাঁড়িয়েছে সীমান্তবেষ্ঠিত এই জেলায়। ভয়ানক পরিস্থিতি সৃষ্টির শংকায় প্রস্তুতিও নিতে শুরু করেছে জেলা স্বাস্থ্যবিভাগ।
দিনাজপুর জেলা স্বাস্থ্যবিভাগ সুত্রে জানাযায়, দিনাজপুর জেলার হাসপাতালগুলোতে করোনা আক্রান্ত রোগীর চিকিৎসার জন্য মোট ২৩০টি বেড প্রস্তুত রাখা হয়েছে। এই ২৩০টির মধ্যে দিনাজপুর এম. আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ৭৫টি, ২৫০ শয্যা বিশিষ্ঠ দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতালে ৩৫টি এবং ১২টি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১০ টি করে মোট ১২০টি বেড। এগুলোর মধ্যে এম. আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ও দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতাল ছাড়া অন্য হাসপাতালগুলোতে সেন্ট্রাল অক্সিজেন সাপ্লাইয়ের কোন ব্যবস্থা নেই।
দিনাজপুরের সিভিল সার্জন ডাঃ আব্দুল কুদ্দুছ জানান, যেগুলো হাসপাতালে সেন্ট্রাল অক্সিজেন সাপ্লাইয়ের ব্যবস্থা নেই সেগুলোতে অক্সিজেন সরবরাহের জন্য ৯’শটি অক্সিজেন সিলিন্ডার মজুদ রাখা হয়েছে। তিনি এও জানান, হাসপাতালে করোনা আক্রান্ত ৩’শ রোগীর চিকিৎসা দেয়ার সক্ষমতা আছে। এর চেয়ে রোগী বাড়লে চিকিৎসা দেয়ার সক্ষমতা থাকবে না।
জেলা স্বাস্থ্যবিভাগ সুত্রে জানাযায়, দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে এ পর্যন্ত ১৩৭ জন বাংলাদেশী নাগরিক ভারত থেকে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। এদের মধ্যে ভারতে করোনা নেগেটিভ রিপোর্ট নিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশের পরও ৩ জনের করোনা পজিটিভ সনাক্ত হয়েছে। ওই তিন জন বর্তমানে দিনাজপুর এম. আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। ভ্যারিয়েন্ট পরীক্ষার জন্য ওই তিন জনের নমুনা ঢাকায় প্রেরণ করা হয়েছে। এছাড়াও ভারত ফেরত ২০ জন বাংলাদেশী হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে।
এদিকে দিনাজপুর এম. আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসাপাতাল সুত্রে জানাযায়, করোনা রোগী বৃদ্ধি শুরু হওয়ায় সেখানে আইসিইউ এবং আইসিইউ সমমানের এইচডিইউ (হাই ডিপেডেন্সি ইউনিট) ইউনিটে রোগী রাখার জায়গা নেই।
এম. আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পরিসংখ্যান কর্মকর্তা মোঃ জাহাঙ্গীর আলম জানান, এই হাসপাতালে করোনা রোগীদের জন্য আইসিইউতে ১৫টি এবং এইচডিইউতে ১১টিসহ মোট ৭৫টি বেড রয়েছে। এদের মধ্যে শনিবার তিন জন রোগীর মৃত্যুর কারনে আইসিইউতে বর্তমানে ১৪ জন এবং এইচডিইউতে ১১ জন রোগী ভর্তি রয়েছে। জীবন রক্ষার শেষ চেষ্ঠা হিসেবে এই দুটি ইউনিটে জায়গা নেই বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, রোববার এম. আব্দুর রহিম হাসপাতালে মোট ৫৯ জন রোগী ভর্তি রয়েছে। এদের মধ্যে করোনা পজিটিভ নিয়ে ২৯ জন এবং করোনা উপসর্গ নিয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছে ৩০ জন। ভারত ফেরত ৩ জন রোগীকে আলাদাভাবে রাখা হয়েছে বলে জানান তিনি।
পরিসংখ্যান কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম জানান, শনিবার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় করোনা আক্রান্ত ৩ জন মারা গেছে। এদের মধ্যে বিরল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিক্যাল অফিসার (আয়ুর্বেদিক) ডাঃ মোঃ মোরশেদুল আলম চৌধুরী (৩৯), দিনাজপুর সদর উপজেলার বালুবাড়ী এলাকার ফিরোজা ইসলাম (৬৭) এবং নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার তাতিপাড়া গ্রামের সুধীর চন্দ্র সাহা (৬৭)। এই তিনজন করোনা পজিটিভ নিয়ে এম. আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলো। তিনি আরও জানান, এছাড়াও গত শুক্রবার করোনা উপসর্গ নিয়ে এম. আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে গত দু’দিনে এই হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৫ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানান তিনি।
অন্যদিকে দিনাজপুর সিভিল সার্জন কার্যালয়ের দেয়া রিপোর্ট অনুযায়ী, রোববার এই জেলায় আরও ২৩ জনের করোনা সনাক্ত হয়েছে। সনাক্তের হার উন্নীত হয়ে ১৪ দশমিক ২৮ শতাংশে এসে দাঁড়িয়েছে। বর্তমানে জেলায় করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২০২ জনে।
সিভির সার্জন ডাঃ আব্দুল কুদ্দুছ আরও জানান, ভারত থেকে আসা বাংলাদেশী ৩ নাগরিকের করোনা পরিটিভ সনাক্ত হওয়ায় উদ্বেগের বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। ভারত সীমান্তবেষ্ঠিত এই জেলায় করোনা সংক্রমন ও মৃত্যুর হার বেড়ে যাওয়ায় উদ্বেগ জানিয়ে এই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানান সিভিল সার্জন ডাঃ আব্দুল কুদ্দুছ।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email