রবিবার ২১ এপ্রিল ২০২৪ ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল আজহারুলের ফাঁসির আদেশ

মানবতাবিরোধী অপরাধে জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল এ টি এম আজহারুল ইসলামকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১।

 

তার বিরুদ্ধে আনীত ছয়টি অভিযোগের মধ্যে পাঁচটি সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হয়েছে। এর মধ্যে তিনটি অর্থাৎ ২, ৩ এবং ৪ নম্বর অভিযোগে তাকে মৃত্যুদণ্ড, অপর দুটি অভিযোগে ৩০ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ৫ নম্বর অভিযোগে ২৫ বছর এবং ৬ নম্বর অভিযোগে পাঁচ বছর কারাদণ্ড দেওয়া হয়। প্রমাণিত না হওয়ায় তাকে ১ নম্বর অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুরে বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ এই রায় ঘোষণা করেন। ট্রাইব্যুনালের অপর দুই বিচারপতি মো. জাহাঙ্গীর হোসেন ও বিচারপতি আনোয়ারুল হক।

এটি মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলার ১৫তম রায়। একাত্তরে সংঘটিত মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারের জন্য গঠিত আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ ও ২ বেঞ্চ এর আগে ১৪টি মামলার রায় দিয়েছেন।
বেলা ১১টা ১৮ মিনিটে এ টি এম আজহারুল ইসলামের মামলার রায় পড়া শুরু করেন ট্রাইব্যুনাল। ১৫৮ পৃষ্ঠার রায়ের সারসংক্ষেপ পড়া হয়। রায়ের প্রথম অংশ পাঠ করেন বিচারপতি আনোয়ারুল হক। দ্বিতীয় অংশ পাঠ করেন বিচারপতি মো. জাহাঙ্গীর হোসেন এবং সর্বশেষে রায়ের মূল অংশ পাঠ করেন ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম।

আজহারুল ইসলামের বিরুদ্ধে ২০১২ সালের ১৫ এপ্রিলে তদন্তকাজ শুরু করেন তদন্ত কর্মকর্তা এস এম ইদ্রিস আলী। তদন্ত চলাকালে ট্রাইব্যুনাল-১-এর নির্দেশে ২০১২ সালের ২২ আগস্ট মগবাজারের বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। সেই থেকে তিনি কারাগারে রয়েছেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ২০১৩ সালের ৪ জুলাই তদন্ত শেষ করে ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউশনে অভিযোগ দাখিল করে। এরপর প্রসিকিউটর ১৮ জুলাই ট্রাইব্যুনালে আজহারুল ইসলামের বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিল করেন। চারটি ভলিউমে ৩০০ পৃষ্ঠায় দাখিল করা আনুষ্ঠানিক অভিযোগে আজহারুলের বিরুদ্ধে ছয়টি অভিযোগ আনা হয়। ওই বছরের ১২ নভেম্বর আজহারুল ইসলামের বিরুদ্ধে অভিযোগ (চার্জ) গঠন করেন ট্রাইব্যুনাল। ২৬ ডিসেম্বর সাক্ষ্য গ্রহণ শুরু হয়। আজহারুলের বিরুদ্ধে তদন্ত কর্মকর্তাসহ রাষ্ট্রপক্ষে প্রসিকিউশনের ১৯ জন সাক্ষী তাদের জবানবন্দি পেশ করেছেন। তাদের মধ্যে সপ্তম সাক্ষী আমিনুল ইসলামকে বৈরী ঘোষণা করেছে প্রসিকিউশন। আসামির পক্ষে একমাত্র সাফাই সাক্ষী হিসেবে জবানবন্দি পেশ করেন আনোয়ারুল হক।
১৮ আগস্ট থেকে ২৭ আগস্ট পর্যন্ত এবং সর্বশেষ ১৮ সেপ্টেম্বর আসামির বিরুদ্ধে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করে রাষ্ট্রপক্ষ এবং ২৭ আগস্ট থেকে ১৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আসামিপক্ষ যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করে।

Spread the love