বুধবার ১৭ অগাস্ট ২০২২ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জামায়াত নেতা ইউসুফের মৃত্যু

Yousufএকাত্তরে মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধে কারাগারে আটক জামায়াতে ইসলামীর নায়েবে আমির একেএম ইউসুফ আজ রবিবার হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান।

গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগারে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে বেলা ১১টার দিকে তাকে বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে নিয়ে আসা হয়। সেখানে করোনারি কেয়ার ইউনিটে নেয়ার কিছুক্ষণ পর চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তিনি হৃদরোগ ও বার্ধক্যজনিত বিভিন্ন সমস্যায় ভুগছিলেন।

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল কারাগারে আটক একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত নিহত জামায়াত নেতা একেএম ইউসুফের মৃতদেহ নিয়ম অনুযায়ী ময়নাতদন্তের পর পরিবারের কাছে হস্তান্তরের নির্দেশ দিয়েছেন। ময়নাতদন্ত ছাড়াই লাশ হস্তান্তরের একটি আবেদনের শুনানি করে ট্রাইব্যুনাল-২ এর বিচারক মুজিবুর রহমান মিয়া ও শাহীনুর ইসলাম আজ রবিবার এ আদেশ দেন।

অন্যদিকে ইউসুফের মৃত্যুর পর ময়নাতদন্ত ছাড়াই তার লাশ চেয়ে ট্রাইব্যুনালে আবেদন করেন তার আইনজীবীরা। এই আবেদনের ওপর শুনানি করেন গাজী এইচএম তামিম আর প্রসিকিউশনের পক্ষে ছিলেন প্রসিকিউটর হায়দার আলী। শুনানিকালে তামিম আদালতকে বলেন, যেহেতু এটা স্বাভাবিক মৃত্যু, সেহেতু ময়নাতদন্ত ছাড়া তার মরদেহ গ্রহণ করতে পরিবারের আপত্তি নেই। তবে শুনানি শেষে বিচারক আদেশে বলেন, একেএম ইউসুফ গ্রেফতার হওয়ার পর কারা কর্তৃপক্ষের হেফাজতে ছিলেন। কাস্টডিতে থাকা অবস্থায় কী কারণে তার মৃত্যু হলো তা ট্রাইব্যুনালেরও জানা প্রয়োজন। কারা বিধি অনুযায়ী প্রয়োজনীয় আনুষ্ঠানিকতা সারার পর পরিবারের কাছে ইউসুফের লাশ হস্তান্তরের আদেশ দিয়ে এই নির্দেশনা অবিলম্বে কারা কর্তৃপক্ষকে পৌঁছে দিতে বলেন বিচারক।

এ বিষয়ে উপ-কারা মহাপরিদর্শক গোলাম হায়দার জানান, আদালতের আদেশ অনুযায়ীই সব ব্যবস্থা নেয়া হবে।
জামায়াত নেতা একেএম ইউসুফের মৃত্যুর পর তার জামাতা আব্দুল ওহাব হাসপাতালে সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করে বলেন, হাসপাতালে তার শ্বশুর যথাযথ চিকিৎসা পাননি।
অবশ্য এ অভিযোগ নাকচ করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের পরিচালক আব্দুল মজিদ ভূঁইয়া বলেন, একজন হার্ট অ্যাটাকের রোগীকে হাসপাতালে আনার পর যা যা করা দরকার তার সবকিছুই করা হয়েছিল।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email