সোমবার ১৬ মে ২০২২ ২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জাল দলিল দিয়ে মসজিদের জমি দখলঃ এলাকায় উত্তেজনা, সংঘর্ষের আশংকা

মোঃ জাকির হোসেন, সৈয়দপুর (নীলফামার) প্রতিনিধিঃ জাল দলিল দিয়ে মসজিদের জমি দখল করে বাড়ি নির্মাণের ঘটনায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। মসজিদের মুসল্লীসহ এলাকার ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। যে কোন সময় এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটতে পারে বলে আশংকা করছে সাধারণ মানুষ। এমন পরিস্থিতি বিরাজ করছে সৈয়দপুরের পার্শ্ববর্তী দিনাজপুর জেলার চিরিরবন্দর উপজেলার ফতেজংপুর ইউনিয়নের ফেরুসাডাঙ্গা দোলাপাড়া গ্রামে।

জানা যায়, ওই গ্রামে প্রায় ৪ যুগ আগে ১৯৬২ সালে নির্মিত হয় একটি জুমআ ঘর। যা পরবর্তীতে জামে মসজিদে রুপ নেয়। এই মসজিদের জমি দান করেন অজি মামুদ শাহ’র ছেলে মসেতুল্যা শাহ। মসজিদের সাথেই প্রায় ৪ শতক জমি মসজিদের কাজেই ব্যবহার করা হতো সেই সময় থেকেই। এই জমিও ছিল মসেতুল্যা শাহ’র ক্রয়কৃত। মসেতুল্যা শাহ’র একমাত্র কণ্যা জাহেদা বেগম এর বিয়ে হয় ফুলবাড়ী উপজেলার পানিকাটা গণিপুর গ্রামে মোঃ রফিকুল মোল্লার সাথে। মসেতুল্যা শাহ’র মৃত্যুর পর এই জাহেদাই তার একমাত্র ওয়ারিশ ছিলেন। তিনিও মারা গেছেন অনেকদিন আগেই। বর্তমানে জাহেদার একমাত্র পুত্র মোঃ খাদেমুল হক (৩০) ওই জমির প্রকৃত ওয়ারিশ। এই ওয়ারিশগণ কখনই মসজিদের ওই জমির মালিকানা দাবি করেনি এবং এখনও মসজিদের কাজে ব্যবহারের জন্য জমিটি লিখিতভাবে দান করতে প্রস্ত্তত। কারণ জমিটি এখনও মসেতুল্যাহ’র নামেই রেকর্ডভুক্ত রয়েছে।

কিন্তু এমতাবস্থায় মসজিদের পার্শ্ববর্তী মৃত. সেতাব উদ্দিনের ছেলে মোঃ রেজাউল হক সম্প্রতি একটি দলিল দেখিয়ে ওই জমি পৈত্রিক সূত্রে মালিক সেজে দখল করে বাড়ি নির্মাণ করছেন। এতে মসজিদে যাতায়াতের গেট সম্পূর্ণভাবে বন্ধ হয়ে যায়। তাছাড়া এলাকার লোকজন মারা গেলে এখানেই জানাযা পড়ানো হয়। সে সাথে ঈদের জামাতও অনুষ্ঠিত হয় এ জায়গাটিতে। বিয়ে, আকিকাসহ বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানের কাজেও এ জায়গা ব্যবহৃত হয়। হঠাৎ করে জমিটি দখল হওয়ায় এ ক্ষেত্রেও তৈরী হয়েছে প্রতিবন্ধকতা। তাই এ পরিস্থিতিতে এলাকাবাসী রেজাউল হকের জাল দলিলকে আপাত দৃষ্টিতে সঠিক বলে মেনে নিয়ে মসজিদের সামনের ওই জমির পরিবর্তে অন্যত্র ৫ শতক জমি প্রদানের প্রস্তাব দিলেও রেজাউল তা অগ্রাহ্য করে জোর পূর্বক গত ০২ মার্চ গভীর রাতে বাড়ির ভিত্তি দেয়। এতে এলাকায় মসজিদের নিয়মিত মুসুল্লীসহ ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের মাঝে চরম উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। এর প্রেক্ষিতে এখনই এই জবরদখল প্রক্রিয়া বন্ধ করা না হলে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের সৃষ্টি হতে পারে বলে এলাকার সাধারণ মানুষের মাঝে আশংকা দেখা দিয়েছে। তারা এ ব্যাপারে প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

এ ব্যাপারে মসজিদের মোয়াজ্জিন আব্দুর রশিদ মুন্সি বলেন, দখলকারী রেজাউল একজন মাদকসেবী ও মাদক বিক্রেতা। তার বাড়িতে বিভিন্ন এলাকা থেকে মাদক গ্রহণকারীসহ নানা অপরাধে জড়িত ব্যক্তিরা নিয়মিত যাতায়াত ও আড্ডা দিয়ে থাকে। এ কারণে একটি ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের জমি জাল দলিলের মাধ্যমে দখলের মত দুঃসাহস দেখিয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকেই জানান, ইতিপূর্বেও ওই রেজাউল জমিটিতে গাছ লাগিয়ে দখলের চেষ্টা করে এবং তখন চিরিরবন্দর থানার অফিসার ইনচার্জ বিষয়টি তদন্ত করে মসজিদ কমিটির পক্ষে রায় দেন। কিন্তু দখলবাজ চরিত্রহীন ওই ব্যক্তি আবারও চক্রান্ত করে তা দখলে নিয়েছে। এলাকাবাসী চাইলে যে কোন মূহুর্তে তাকে ওই জমিসহ বাস্ত্তভিটা থেকে উচ্ছেদ করে দিতে পারে। কিন্তু আইনের প্রতি শ্রদ্ধা থাকায় এবং ধর্মীয় অনুভুতি সম্পন্ন হওয়ায় তারা এমন কাজ করছেন না। কিন্তু অচিরেই যদি এ ব্যাপারে সমাধান না হয় তাহলে পরিস্থিতি অন্যরকম হতে পারে। যা কারই কাম্য নয়।

এদিকে দখলকারী রেজাউল এর দাবি মসজিদের জমি দাতা মসেতুল্যা মৃত্যুর আগে তার ভাই মজে তুল্যাহর কাছে ওই জমি বিক্রি করেছিলেন। পরে জমিটি রেজাউল হকের দাদা আব্দুর রহমান ক্রয় করেন। সেই কারণে রেজাউল হক জমি দখল করে বাড়ি নির্মাণ করছেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email