সোমবার ১৬ মে ২০২২ ২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জিয়া হার্ট ফাউন্ডেশনে জন্মগত জটিল রোগের সফল ওপেন হার্ট সার্জারী সম্পন্ন

নুর ইসলাম,স্টাফ রিপোর্টার : দিনাজপুর জিয়া হার্ট ফাউন্ডেশন হাসপাতালে একটি রোগীর কনজেনিটাল হার্ট ডিজিস-ডিএসডি এবং পিএস নামক জন্মগত জটিল রোগের সফল ওপেন হার্ট সার্জারী সুসম্পন্ন হয়েছে। জিয়া হার্ট ফাউন্ডেশন সূত্রে জানা যায়, দিনাজপুরের হাকিমপুর উপজেলার জাংগই গ্রামের আইয়ুব আলীর পুত্র রায়হান কবির (২০) তার বাড়ির জমি জায়গা সবকিছু বিক্রি করে সিংগাপুরে চাকুরী করার উদ্দেশ্যে গেলে সেখানে পুনরায় যখন তার মেডিকেল টেষ্ট করা হয় সেখানকার ডাক্তার হার্টে ছিদ্র আছে বলে সেখান থেকে ফেরত পাঠান। পরিশেষে নিঃস্ব হয়ে দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এক সেমিনারে একজন ডাক্তারের সাথে পরিচয় হলে সেখান থেকে জিয়া হার্ট ফাউন্ডেশনের সন্ধান পান। জিয়া হার্ট ফাউন্ডেশনে বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষা শেষে প্রতিষ্ঠানের চীফ কার্ডিয়াক সার্জন ডাঃ মোঃ ফয়েজুল ইসলাম অপারেশন করার পরামর্শ দেন এবং দীর্ঘ কয়েক ঘন্টা ধরে এই সফল অপারেশনটি করা সম্ভব হয়। বর্তমানে রোগীটি সুস্থ ভাবে কথাবার্তা, চলাফেরা ও খাওয়া দাওয়া করতে পারছে। রোগটি ডান নিলয় ও বাম নিলয়ের মাঝে একটি ছিদ্র থাকে। ছিদ্রটি এওর্টিক ভাল্ব ও পারমোনারী ভালবের ঠিক নিচে। বাম নিলয়ের মধ্যে রক্তের চাপ বেশী থাকায় ভিএসডি বা ছিদ্র দিয়ে হার্টের ডান নিলয়ে রক্ত চলে আসে। ফলে ডান নিলয় রক্তের প্রবাহ স্বাভাবিকের চেয়ে বেশী হয়। যার ফলে ডান নিলয়ের অতিরিক্ত রক্ত পালমোনারী ধমনী বা আর্টারির মাধ্যমে ফুসফুসে প্রবেশ করে। ফুসফুসে অতিরিক্ত রক্ত প্রবেশ করায় ফুসফুসে রক্তের চাপ বৃদ্ধি পায়। ফলে রোগীর বিভিন্ন রোগের লক্ষণ দেখা যায়। যেমন অতিরিক্ত ঠান্ডায় ঘন ঘন কাশি জ্বর, শ্বাসকষ্ট, বুক ধড়পড় করা, বুকে ব্যথা। ভিএসডি নামক হৃদপিন্ডের এই জন্মগত ছিদ্রের কারণে অনেক রোগীর ঘন ঘন ঠান্ডা /কাশি বা জ্বরে আক্রান্ত হয়। অথবা ঠান্ডা / কাশি বা জ্বর হলে তা সারতে / ভাল হতে চায় না। এটি বাংলাদেশে প্রায় প্রতি ১০ হাজার জনের মধ্যে ১০-১৫ জন জন্মগত হৃদরোগটি নিয়ে জন্মগ্রহণ করে। জন্মগত হৃদরোগের মধ্যে ভিএসডি হৃদরোগটির প্রকোপ সবচেয়ে বেশী তবে সুসংবাদ হচ্ছে ছিদ্রটি ছোট থাকলে ০-২ বছরের মধ্যে কোন কোন ভিএসডি বা ছিদ্র বন্ধ হয়ে যায়। ফলে রোগীর অপারেশন করার প্রয়োজন হয় না। কোন কোন ক্ষেত্রে ৩-৪ বছর পর্যন্ত অপেক্ষা করা যায় তবে ৫ বছরের অধিক সময় অপেক্ষা করা মোটেই উচিত নয় বলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডাঃ মোঃ ফয়েজুল ইসলাম জানান। তিনি আরো জানান, ৪-৫ বছরের মধ্যে রোগীর অপারেশন অবশ্যই করা উচিত। অপারেশন না করলে পরে ফুসফুসের উপর চাপ পড়ে। পরবর্তীতে পারমোনারী হাইপার টেনশন বেশী হলে রোগী অপারেশনের অযোগ্য হয়ে যায়। রোগটির চেনার উপায় সম্পর্কে জানতে চাইলে চিকিৎসক জানান, রোগীর হাতে ও পায়ের আঙ্গুল, জিহ্বা /ঠোট নীল, চোখ ঘোলাটে বর্ণের হয়ে যায়। রোগী স্বাভাবিক হাটা চলা করতে পারে না। একটু হাটলেই রোগী হাপিয়ে উঠে। শেষ পর্যন্ত রোগী মৃত্যুবরণ করে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email