শনিবার ২১ মে ২০২২ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ক্লাস করছে শিক্ষার্থীরা।

শেখ সাবীর আলী, ষ্টাফ রিপোর্টার, ফুলবাড়ী (দিনাজপুর)

জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ক্লাস করছে দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া বাজার দাখিল মাদরাসাসহ বড়পুকুরিয়া বাজারের ৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এক হাজার শিক্ষার্থী।

 

জানা গেছে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির কয়লা উত্তোলনের ফলে ওই এলাকা ঝুঁকিপুর্ণ হওয়ায়, খনি কর্তৃপক্ষ গত সাড়ে ৩ বছর পুর্বে এলাকাটিকে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা হিসেবে ঘোষণা প্রদান করেন। পরবর্তীতে এলাকার জমিসহ স্থাপনা অধিগ্রহণ করে খনি কতৃপক্ষ ক্ষতিপুরণ প্রদান করলেও, অদৃশ্য কারণে ঝুঁকিপুর্ণ এলাকা থেকে স্থানান্তর করা হয়নি বড়পুকুরিয়া বাজারের ৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

 

বর্তমানে বড়পুকুরিয়া দাখিল মাদরাসা, বড়পুকুরিয়া স্কুল এ্যান্ড কলেজ ও বড়পুকুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ঝুঁকিপূর্ণ ভবন যথারীতি চালু রাখা হয়েছে। ঝুঁকিপুর্ণ এলাকায় থাকা এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো যে কোন সময় দেবে গিয়ে ঘটতে পারে প্রানহানীর মত অনাকাংখিত ঘটনা।

 

বুধবার বড়পুকুরিয়া বাজারে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির কারণে ভুমি অবনমন হয়ে বিশাল জলরাশির সৃষ্টি হয়েছে বড়পুকুরিয়া বাজার এলাকার ঈদগাঁ মাঠসহ বিশাল এলাকা জুড়ে। সেই জলরাশির ধারেই বড়পুকুরিয়া দাখিল মাদরাসাটি। মাদরাসার ঘরগুলোর এখন জরা-জীর্ণ দশা, দীর্ঘদিন থেকে কোন মেরামত করা হয়নি। জরা-জীর্ণ হেলে পড়া ঘরেই ক্লাস করছে মাদরাসার ছাত্র-ছাত্রীরা।

 

ছাত্র-ছাত্রী ও শিক্ষক জানালেন, দিনে কয়েকবার করে ভুমি কম্পন সৃষ্টি হয়, কম্পনের সময় তারা প্রান ভয়ে ক্লাস ছেড়ে বাহিরে চলে আসেন, একই কথা বলেন ঐ এলাকার বাসিন্দারা। তারা জানান মাদরাসার সংলগ্ন জিগাগাড়ী গ্রামের সকল বাসিন্দারা এখন বাড়ী ঘর ছেড়ে দিয়ে অন্যত্র চলে গেছেন, কিন্তু মাদরাসা কর্তৃপক্ষ খনি থেকে ক্ষতিপুরণ বাবদ ব্যাপক টাকা পেলেও তারা মাদরাসাটিকে স্থানান্তর করছেন না। এজন্য মাদরাসার শিক্ষার্থীসহ অভিভাবকরা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন। তারা মাদরাসার সুপারিন্টেন্ডসহ ম্যানেজিং কমিটিকে বারবার অনুরোধ করেও কোন ফল পাননি বলে অভিযোগ করেন।

 

Fulbari-01একই অবস্থা মাদরাসার ২০০ গজ পুর্বে অবস্থিত বড়পুকুরিয়া স্কুল এ্যান্ড কলেজ ও বড়পুকুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের। এলাকাবাসী ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে অধ্যায়নকারী শিক্ষার্থীদের অভিভাবকেরা অভিযোগ করে বলেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো ঝুঁকিপুর্ণ এলাকা থেকে স্থানান্তর করার দাবীতে কয়েক দফায় মানব বন্ধনসহ একাধিক কর্মসুচিও পালন করা, হলেও কর্তৃপক্ষের টনক নড়েনি।

 

এদিকে বড়পুকুরিয়া বাজারের ব্যবসায়ীরা জানান, মাদরাসার জরা-জীর্ণ ঘরগুলো এখন অপরাধিদের অভয়রন্যে পরিনত হয়েছে। সন্ধ্যা নামার সাথে সাথে সেখানে বসে জুয়া ও নেশার আসর, এছাড়া সেখানে অসামাজিক কার্য্যকলাপ চলে রাতভর। তারা বলেন গত ১ মার্চ অসামাজিক কর্মে লিপ্ত থাকার অপরাধে মাদরাসা থেকে ১জন তরুন ও ১জন তরুনীকে আটক করেছে বড়পুকুরিয়া পুলিশ তদন্ত কেন্দের পুলিশ, এর কয়েক মাস আগেও একই ঘটনা ঘটেছিল। এই ঘটনায় মাদরাসার সুপারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ বিরাজ করছে ওই এলাকা সংশ্লিষ্টদের। তারা বলেন মদরাসার সুপারিন্টেন্ড এর দায়ীত্ব অবহেলার কারণে মাদরাসাটি এখন অপরাধিদের আড্ডাখানায় পরিণত হয়েছে।

এই বিষয়ে মাদরাসার সুপারিন্টেন্ড আনিসুর রহমানের সাথে কথা বললে, তিনি বলেন মাদরাসার জায়গা কেনার চেষ্ঠা চলছে, অল্প সময়ের মধ্য কেনা হয়ে যাবে।

উল্লেখ্য বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির কয়লা উত্তোলনের কারণে ঐ এলাকায় ভুমি অবনমন হতে শুরু হলে, খনি কর্তৃপক্ষ গত ২০১১ সালে ওই এলাকা টিকে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা ঘোষনা করে বাড়ী ঘর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ক্ষতিপুরণ প্রদান করেন। এরপর ওই এলাকার বাসীন্দারা তাদের ঘরবাড়ী ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গুটিয়ে নিয়ে অনাত্র চলে গেলেও এখন পর্যন্ত বড়পুকুরিয়া বাজারের ৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বড়পুকুরিয়া দাখিল মাদরাসা, বড়পুকুরিয়া স্কুল এ্যান্ড কলেজ ও বড়পুকুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়ে গেছে ঝুঁকি পুর্ণ এলাকাতেই। এলাকাবাসীর অভিযোগ ওই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানেরা ক্ষতিপুরণের টাকা ব্যাংকে রেখে মুনুফা ভোগ করার জন্য তারা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো স্থানামত্মর করছেনা। যার ফলে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ক্লাস করতে বাধ্য হচ্ছে ওই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে অধ্যায়নরত শিক্ষার্থীরা।

 

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email