শনিবার ২৫ জুন ২০২২ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জীবন রক্ষায় কলকাতা এসেছি : নূর হোসেন

Nur Hoshinনারায়ণগঞ্জের বহুল আলোচিত ৭ জনকে অপহরণ ও খুনের মামলার প্রধান আসামি নূর হোসেন জানিয়েছেন, জীবন বাঁচাতে তিনি কলকাতায় আশ্রয় নিয়েছেন। তিনি দাবি করেন, তার জীবনের সংশয় থাকায় তিনি বাংলাদেশ থেকে কলকাতায় চলে এসেছেন। আজ সোমবার পশ্চিমবঙ্গের উত্তর ২৪ পরগনা জেলার বারাসাতের মুখ্য বিচার বিভাগীয় হাকিমের আদালত প্রাঙ্গণে প্রিজন ভ্যান থেকে নামার পর সাংবাদিকদের কাছে তিনি এসব কথা বলেন। এর আগে আজ কলকাতার স্থানীয় সময় বেলা ২টায় দুই সঙ্গীসহ তাকে আদালতে তোলা হয়। তারও আগে ১৪ দিনের জেল হেফাজত শেষে আজ সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে তাদের দমদম কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে প্রিজন ভ্যানে করে আদালতের হেফাজত খানায় নিয়ে আসা হয়। নূর হোসেনের অপর ২ সঙ্গী হলেন ওহিদুর রহমান ও খান জামান।
কলকাতার দমদম বিমানবন্দরের অদূরে বাগুইহাটি থানার কৈখালী এলাকার ইন্দ্রপ্রস্থ আবাসন থেকে গত ১৪ জুন রাতে নূর হোসেন ও তার ২ সঙ্গী খান সুমন ও ওহিদুর জামান শামীম গ্রেপ্তার হন। বাগুইহাটি থানার পুলিশের সহযোগিতায় বিধাননগর পুলিশ কমিশনারেটের অ্যান্টি টেররিস্ট স্কোয়াডের (এটিএস) সদস্যরা তাদের গ্রেপ্তার করেন। পরদিন ১৫ জুন তাদেরকে বারাসাতের আদালতে তোলা হয়। ওই দিন তাদের প্রত্যেকের ৮ দিনের পুলিশ রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। রিমান্ড শেষে গত ২৩ জুন তাদের ফের আদালতে তোলা হয়।
এরপর মুখ্য বিচার বিভাগীয় হাকিম মধুমিতা রায় ওই ৩ জনকে ১৪ দিনের জেল হেফাজতে দিয়ে দমদম কেন্দ্রয় কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। নূর হোসেনকে দেশে ফিরিয়ে নিতে ইন্টারপোলে মাধ্যমে বাংলাদেশ সরকারের করা আবেদন একই দিন মামলার সঙ্গে তালিকাভুক্ত হয়েছে। ৭ জুলাই তাদের আদালতে তোলা হলে আদালত তাদের ফের ১৪ দিনের জেল হেফাজত দিয়ে দমদম কারাগারে পাঠান।
নূর হোসেন গত ১৪ জুন গ্রেপ্তার হওয়ার পর এখনো আদালতে জামিনের প্রার্থনা করেননি। তবে আজ তিনি সাংবাদিকদের বলেন, তার আত্মীয়-স্বজন কলকাতায় এলে তিনি জামিনের আবেদন করবেন। এখানে তাঁকে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে মামলায় জড়ানো হয়েছে। তবে গত ৭ জুলাই নূর হোসেনের সঙ্গী খান সুমন জামিনের আবেদন করলেও ১৪ জুলাই মুখ্য বিচার বিভাগীয় হাকিম মধুমিতা রায় তা খারিজ করেন।
প্রসঙ্গত গত ২৭ এপ্রিল ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংকরোড থেকে অপহৃত হন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র ও কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম ও জেলা বারের সিনিয়র আইনজীবী চন্দন সরকারসহ ৭জন। অপহরণের ৩ দিন পর ৩০ এপ্রিল নারায়নগঞ্জে শীতলক্ষ্যা নদী থেকে ৭ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। তারা হলেন- নজরুল ইসলাম, তার সঙ্গী তাজুল ইসলাম, মনিরুজ্জামান স্বপন, লিটন ও তার গাড়িচালক জাহাঙ্গীর আলম, আইনজীবী চন্দন সরকার ও তার গাড়িচালক ইব্রাহিম।
এ ঘটনায় নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর নূর হোসেনকে প্রধান আসামি করে মামলা করেছে নজরুলের পরিবার। ওই ঘটনার পর পরই গা ঢাকা দেন নূর হোসেন। এর পর গত ১৪ জুন পশ্চিমবঙ্গ পুলিশ নূর হোসেনকে গ্রেপ্তারের পর ১৯ জুন তা আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশকে জানায় ভারত। পক্ষান্তরে ৭ খুনের মামলায় র‌্যাবের সাবেক ৩ কর্মকর্তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। র‌্যাব থেকে অব্যাহতি দেয়া ওই ৩ কর্মকর্তাই আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়ে হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করে নিয়েছেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email