বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জীবিকার তাগিদে মেধাবী ছাত্রী খাদিজা’র শাক বিক্রি

Panchখালি পাঁয়ে ফুটফুটে শিশু খাদিজা এক আটি কচুশাক হাতে দরজায় দাড়িয়ে বলছে শাক নিবেন। খাদিজা ফুটকিবাড়ী ইউনিয়নের টেংগনমারী গ্রামের ভ্যানচালক মো: খয়রুল ইসলামের মেয়ে। খাদিজা প্রতিদিন ৪-৫ টি কচুশাকের আটি বিক্রি করে রোজগারকৃত ৪০-৫০ টাকা বাবার হাতে তুলে দেয়। চার ভাই-বোনের মধ্যে খাদিজা তৃত্বীয়। অভাবের সংসারে ভ্যানচালক পিতা মো: খয়রুল কে স্বস্থি দিতেই তার এই শাক বিক্রি। সে স্থানীয় ব্রাক স্কুলে দ্বিত্বীয় শ্রেণীতে পড়ে। স্কুলে ৩৩ জন ছাত্র-ছাত্রীর মধ্যে খাদিজা’র রোল-৫ বলে জানায় খাদিজা। প্রতিদিন সকাল ৮ টা থেকে ২ টা পর্যন্ত সে ব্রাক স্কুলে যায়। স্কুল ছুটির পর অন্য শিশুদের মত খেলাধুলা না করে খাদিজা গ্রামের বিভিন্ন জায়গায় কচু ও ঢেঁকিয়া শাক সংগ্রহ করে। বিকালে পঞ্চগড় বাজারে এসে খাদিজা শাকের আটি বিক্রি করে সন্ধার পর বাড়ী ফিরে যায়। খাদিজা’র বড়ভাই মো:কামাল ট্রাক্টর শ্রমিক বিয়ে করে পৃথক হয়েছে। ছোটভাই মো: জাকির হোসেন স্থানীয় প্রাইমারী স্কুলে প্রথম শ্রেণীতে পড়ে। প্রচন্ড শীতেও খালি পাঁয়ে থাকার কারণ জানতে চাইলে ফুটফুটে খাদিজা বলে বাবা কিনে দেয়নি। দেখতে সুন্দর ও মেধাবী খাদিজা কতদিন এই জীবন যুদ্ধ চালিয়ে যাবে ? সে কি পাবে তার মেধা বিকাশের সুযোগ ? নাকি অভাবের তারণায় পঞ্চমশ্রেণী পাশ করে পরিবারের চাপে বিয়ের পিঁড়িতে পাঁ দিবে। খাদিজা শাক বিক্রি করে বাবাকে সহায়তার পাশাপাশি পড়ালেখা করে মানুষের মত মানুষ হতে চায়।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email