মঙ্গলবার ১৭ মে ২০২২ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জেলা তথ্য অফিসের উদ্যোগে মাহুত পাড়ায় মহিলা সমাবেশ ও চলচ্চিত্র প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত

সরকারের সাফল্য, অর্জন ও উন্নয়ন ভাবনা সম্পর্কে জনগণকে অবহিতকরণ এবং উন্নয়ন কার্যক্রমে সম্পৃক্তকরণের লক্ষ্যে বিশেষ প্রচার কার্যক্রম বাস্তবায়নের আওতায় দিনাজপুর জেলা তথ্য অফিস এর উদ্যোগে ০৮মার্চ রবিবার আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে দিনাজপুর পৌরসভার এলজিইডি মোড় সংলগ্ন মাহুতপাড়া সিএন্ডবি রেস্ট হাউজ প্রাঙ্গনে সন্ধ্যা ০৬টায় মহিলা সমাবেশ ও চলচ্চিত্র প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়েছে।

 

বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ বমোঃ জোবেদ আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মহিলা সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) জনাব মোঃ আবু রায়হান মিঞা। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ডাঃ মোঃ দিদারম্নল ইসলাম, উপপরিচালক, পরিবার-পরিকল্পনা দিনাজপুর এবং জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা মোঃ সাইফুল ইসলাম। এছাড়া বক্তব্য রাখেন সিনিয়র তথ্য অফিসার আবুল কালাম মোহাম্মদ শামসুদ্দিন এবং দৈনিক উত্তর বাংলা এর বার্তা সম্পাদক মোঃ শাহাদাৎ হোসেন শাহ।

 

সমাবেশে ক) নারীর ক্ষমতায়নে সরকারের অর্জিত সাফল্য, খ) সরকারের সার্বিক উন্নয়ন কার্যক্রম এবং গ) ডিজিটাল বাংলাদেশ, ভিশন-২০২১ বিষয়ে সুবিধাবঞ্চিত নারীদের আলোকপাত করা হয়। সমাবেশে ইউনিয়ন পরিষদের মহিলা সদস্য, বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা, সাংবাদিক, এনজিও কর্মী, গ্রামীণ সমবায় সমিতির মহিলা সদস্যবৃন্দ, সুবিধা বঞ্চিত প্রান্তিক জনগোষ্ঠির নারীগণ এবং এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের মধ্য হতে প্রায় ৩০০জন নারী অংশগ্রহণ করেন।

 

প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন প্রায় ১৫০ বছর আগে এই ০৮মার্চ আমেরিকার শ্রমজীবি নারীরা তাদের অধিকারের জন্য সংগ্রাম শুরু করেন। ১৯৭৪ সালে এদিনটি আন্তর্জাতিক নারী দিবস হিসেবে জাতিসংঘের স্বীকৃতি লাভের পর গত ৪০ বছর যাবৎ বাংলাদেশে দিনটি পালিত হয়ে আসছে। মূলত নারী-পুরুষের বৈষম্য হ্রাস ও নারীর ন্যায্য অধিকার প্রদানে সমাজকে সচেতন করাই এ দিবস পালনের মূল লক্ষ্যে। বিগত ছয় বছরে বর্তমান সরকার ব্যাপক উন্নয়ন করেছে। তম্মধ্যে নারীর ক্ষমতায়ন এবং নারীর প্রতি বৈষম্য ও সহিংসতা হ্রাসের জন্য সরকার ‘পারিবারিক সহিংসতা প্রতিরোধ ও সুরক্ষা আইন ২০১০’, ‘নারী উন্নয়ন নীতিমালা-২০১১’, এবং ‘বাল্য বিবাহ নিরোধ আইন ২০১৪’ প্রণয়ন করেছে। এছাড়া জাতীয় সংসদে নারীদের জন্য সংরক্ষিত আসন ৫০টিতে উন্নীত করা হয়েছে, সণাতক শ্রেনী পর্যন্ত নারীশিক্ষা অবৈতনিক করা হয়েছে এবং উপবৃত্তির কোটা বৃদ্ধি করা হয়েছে। নারীদের সুরক্ষার জন্য ইভটিজিং ও বাল্যবিবাহকে মোবাইল কোর্টের আওতায় আনা হয়েছে। তথাপি এদশের নারীরা কর্মক্ষেত্রসহ অনেক ক্ষেত্রে এখনো পিছিয়ে আছে। নারীরা আমাদের মা, বোন, স্ত্রী, কণ্যা; যাদের অবদান ব্যতীত কোন পুরুষ সফল হতে পারে না। এখানেই নারীর বড় শক্তি লুকিয়ে আছে। এ শক্তিকে ব্যবহার করে নিজ নিজ গৃহ ও নিজস্ব পরিমন্ডলে সচেতনা তৈরীর মাধ্যমেই নারীর প্রতি বৈষম্য দূর করে নারী-পুরুষের সমাজে অর্জন করা সম্ভব বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

 

অনুষ্ঠান শেষে অর্ধেক আকাশ, জাগো বাঙালী জাগো, ডিজিটাল বাংলাদেশ, কুসুমের আত্মকথা ইত্যাদি বিষয় ভিত্তিক চলচ্চিত্র প্রদর্শন করা হয়।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email